বোমাবাজি ভাঙচুরসহ নানা সহিংসতায় নির্বাচনী এলাকার মানুষ আতঙ্কিত

বোমাবাজি ভাঙচুরসহ

কল্যাণ রিপোর্ট
বিভিন্ন স্থানে নির্বাচনী সহিংসতা অব্যাহত রয়েছে। এতে পক্ষ-বিপক্ষের লোকজন আহত হচ্ছে। অগ্নি সংযোগের ঘটনা ঘটছে। ভাঙচুর হচ্ছে নির্বচনী অফিস, দোকান-পাট, বাড়ি-ঘর এবং নির্বচনী কাজে ব্যবহৃত গাড়ি। বোমাবাজির ঘটনাও ঘটছে কোন কোন জায়গায়। এসব ঘটনায় নির্বাচনী এলাকাসমূহের মানুষ আতঙ্কিত জীবন কাটাচ্ছেন।

 মণিরামপুরে অগ্নিসংযোগ
 বাঘারপাড়ায় ভাঙচুর
 সাতক্ষীরায় বোমাবাজি

মণিরামপুর (যশোর) প্রতিনিধি জানান, মণিরামপুরে নৌকা মার্কার প্রার্থীর নির্বাচনী প্রচার কার্যালয়ে অগ্নিসংযোগের ঘটনা ঘটেছে। রোববার মধ্যরাতে খেদাপাড়া ইউনিয়নের দিঘিরপাড় জামতলা মোড়ে ঘটনাটি ঘটে। খেদাপাড়া ইউনিয়নের আওয়ামী লীগ মনোনীত নৌকা প্রতীকের চেয়ারম্যান প্রার্থী আব্দুল আলীম জিন্নাহর নির্বাচনী প্রচারণা কার্যালয় এটি। কার্যালয়ের চারপাশ কাপড় দিয়ে ঘেরা ছিলো। ভেতরে কয়েকটি প্লাস্টিকের চেয়ার ও প্রার্থীর পোস্টার ঝুলানো ছিল। আগুন লেগে চারপাশের কাপড় পুড়ে গেছে। তবে কে বা কারা কার্যালয়টিতে আগুন দিয়েছে তা স্পষ্ট নয়। আগুন লাগার ধরণ দেখে ঘটনাটি রহস্যজনক মনে করছেন অনেকে।

খেদাপাড়া ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাবেক সভাপতি আব্দুল মমিন বলেন, রাত ১২ টা পর্যন্ত আমাদের লোকজন অফিসে ছিলেন। তারা চলে যাওয়ার পর এ ঘটনা ঘটেছে। ভোরে আশপাশের লোকজন নামাজ পড়তে গেলে আগুন লাগার বিষয়টি টের পান। তিনি বলেন, আগুন লাগিয়ে অফিস ও পোস্টার পুড়িয়ে দেয়া হয়েছে। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক জন বলেন, রাতে প্রাকৃতিক ডাকে সাড়া দিতে বের হলে মোটরসাইকেলে দুজনকে এসে অফিসের সামনে থামতে দেখেছি। সকালে উঠে শুনি নৌকার অফিসে আগুন লেগেছে। আওয়ামী লীগ মনোনীত নৌকার প্রার্থী আব্দুল আলীম জিন্নাহ বলেন, ইতোপূর্বে আমার নেতাকর্মীদের হুমকি দেয়া হয়েছে। রাতের আঁধারে আমার নির্বাচনী প্রচার কার্যালয়ে আগুন দেয়ার ঘটনায় আমি থানায় অভিযোগ করবো।
খেদাপাড়া পুলিশ ক্যাম্পের এসআই গোলাম রসুল বলেন, খবর পেয়ে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছি। বিষয়টি নিয়ে কোন সহিংসতা যেন না হয় সে ব্যাপারে নৌকার মনোনীত প্রার্থীর সাথে কথা বলেছি। আমরা মূল ঘটনা খতিয়ে দেখছি।

বাঘারপাড়া (যশোর) প্রতিনিধি জানান,যশোরের বাঘারপাড়ার নারিকেলবাড়িয়া ইউনিয়নে স্বতন্ত্র প্রার্থীর বিরুদ্ধে নৌকা প্রার্থী বাবলু সাহার নির্বাচনী অফিস ভাঙচুরের ঘটনায় থানায় লিখিত অভিযোগ দেয়া হয়েছে। ঘটনাটি ঘটেছে ইউনিয়নের মালঞ্চী গ্রামে রোববার গভীর রাতে ।

রোববারের এই ঘটনায় জানা যায়, রাতে নৌকার সমর্থক মালঞ্চী গ্রামের মোক্তার হোসেন মোটরসাইকেলযোগে মালঞ্চী গ্রামের মালঞ্চী স্কুল মাঠ সংলগ্ন একটি নৌকার অফিসে যাচ্ছিলেন। এ সময় আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী আবুল সরদারের সমর্থকরা তাকে পিটিয়ে আহত করে। খবর পেয়ে নৌকার কয়েকজন সমর্থক এগিয়ে এলে আনারস প্রতীকের সমর্থকরা তাদের ওপরও হামলা চালায় ।

নৌকার কর্মী জাকির হোসেন জানান , হামলাকারীরা একই সাথে নৌকার নির্বাচনী কার্যালয় ভাঙচুর করে। এ সময় মোক্তার হোসেনসহ আহত হয় নৌকার কর্মী মালঞ্চী গ্রামের তরিকুল ইসলাম ও সত্তার মোল্যার ছেলে শিমুল ।

নৌকা প্রার্থী বাবলু কুমার বলেন, খবর পেয়ে সাথে সাথে ঘটনাস্থলে থেকে আহতদের বাঘারপাড়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যাই। এর মধ্যে তরিকুলের বুকে ও মোক্তারের মাথায় গুরুতর আঘাত পাওয়ায় তাদেরকে যশোর জেনারেল হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়েছে।

হাসপাতালের জরুরি বিভাগের চিকিৎসক সুমাইয়া রহমান জানান, আহত তিনজনের মধ্যে তরিকুল ও মোক্তারের অবস্থা গুরুতর হওয়ায় তাদেরকে যশোর জেনারেল হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

আহতরা জানান ৮ নং ওয়ার্ডের মেম্বর প্রার্থী আলতাফ হোসেনের নেতৃত্বে ১৫/২০ জন এ হামলার ঘটনা ঘটিয়েছে। নৌকার নির্বাচনী কার্যালয় ভাঙচুর ও নৌকার কর্মীদের ওপর হামলা চালিয়েছে। হামলাকারীরা বিএনপি-জামায়াতের নেতা-কর্মী বলেও উল্লেখ করেন বাবলু সাহা।

অভিযোগ অস্বীকার করে আনারস প্রতীকের প্রার্থী আবু তাহের আবুল সরদার বলেন, এ ঘটনায় আমি কিছু জানিনে । শুনেছি ৮ নম্বর ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য পদপ্রার্থী আলতাফ হোসেন ও রবিউল ইসলামের মধ্যে আনারস ও নৌকা প্রতীকের ভোট করা নিয়ে কথা কাটাকাটি হয়। একপর্যায়ে দু’ পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষের সৃষ্টি হয়। আলতাফ হোসেন আমার অনুসারী হওয়ায় আমার ওপর এ অভিযোগ আনা হয়েছে।

ইউপি সদস্য প্রার্থী আলতাফ হোসেন ও রবিউল ইসলামের মোবাইল ফোন বন্ধ থাকায় যোগাযোগ করা সম্ভব হয়নি।

বাঘারপাড়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ফিরোজ উদ্দীন বলেন, খবর পেয়ে পুলিশের একটি টিম ঘটনাস্থলে পাঠানো হয়। এখনো তারা কাজ করছে। পরিস্থিতি বর্তমানে স্বাভাবিক রয়েছে । এ ঘটনায় আনারস প্রতীকের স্বতন্ত্র প্রার্থী আবুল সরদার ও ৮ নং ওয়ার্ডের মেম্বর প্রার্থী আলতাফ হোসেনের বিরুদ্ধে থানায় লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন নৌকার প্রার্থী বাবলু কুমার সাহা। তদন্তপূর্বক ব্যবস্থা নেয়া হবে।

সাতক্ষীরা জেলা প্রতিনিধি জানান, সাতক্ষীরার কালিগঞ্জ উপজেলার কৃষ্ণনগরে নৌকা প্রতীকের প্রার্থী শ্যামলী রানী অধিকারীকে লক্ষ্য করে বোমা হামলার ঘটনা ঘটেছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। এতে তার কয়েকজন কর্মী সমর্থক আহত হয়েছে বলে তারা দাবি করেছেন। গত রোববার রাত সাড়ে ১০ টার দিকে নৌকা প্রতীকের প্রার্থী শ্যামলী রানী অধিকারী কৃষ্ণনগর ইউনিয়নের নেঙ্গী এলাকায় নির্বাচনি পথসভা শেষে বাড়ি ফেরার পথে কৃষ্ণনগর শ্মশানঘাট এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। তবে, পুলিশ বলছে এ ঘটনায় কেউ আহত হননি।

প্রত্যক্ষদর্শী ইউনিয়ন কৃষক লীগের সাধারণ সম্পাদক আব্দুল বারী, ওয়ার্ড আওয়ামী লীগ নেতা আরব আলী, সেলিম মাহমুদ ও আরিফুল ইসলাম জানান, নেঙ্গী এলাকা থেকে রাতে নির্বাচনি পথসভা ও প্রচার প্রচারণা শেষে ফেরার পথে কৃষ্ণনগর শশানঘাট এলাকায় পৌছালে ৩ থেকে ৪ জনের একদল দুর্বৃত্ত তাদের লক্ষ্য করে বোমা বিস্ফোরণ ঘটায়। এতে নৌকার প্রার্থী শ্যামলী রানী অধিকারী ঘটনাস্থলেই জ্ঞান হারিয়ে ফেলেন। এতে তাদের কয়েকজনের আহত হয়েছে বলে তারা দাবী করেন। তারা প্রাথমিক চিকিৎসাও নিয়েছেন। এছাড়া শ্যামলী রানীকে কালিগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে বলে তারা জানান।

এ ব্যাপারে কালিগঞ্জ থানার ওসি গোলাম মোস্তফা জানান, বোমা হামলার কোন ঘটনা সেখানে ঘটেনি। ফাঁকা জায়গায় একটি বিকট শব্দ হয়েছিল। সেখান থেকে কিছু জালের কাটি ও কাঁচের গুড়ো পাওয়া গেছে। তবে কেউ আহত হননি বলে তিনি দাবী করেন। ঘটনার তদন্ত করে আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে তিনি আরো জানান।
এদিকে, এ ঘটনায় শ্যামলী রানী অধিকারীর কর্মী-সমর্থকরা সোমবার দুপুরে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের সামনে মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করেছে। এতে বক্তব্য রাখেন, কৃষ্ণনগর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি মোস্তফা কবিরুজ্জামান, উপজেলা যুবমহিলা লীগের সভাপতি ফাতেমা খাতুন, নৌকা প্রতীকের প্রার্থী শ্যামলী রানী অধিকারীর স্বামী বাপী অধিকারী প্রমুখ।

বক্তারা এ বোমা হামলার ঘটনার জন্য লাঙল প্রতীকের প্রার্থী সাফিয়া পারভীনের কর্মী-সমর্থকদের দায়ি করেছেন। তারা বলেন, তাদের কর্মীসমর্থরা বিভিন্নভাবে হামলা ও হয়রানির শিকার হচ্ছেন। এ ব্যাপারে তারা প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।

প্রায় এক মাস পূর্বে নৌকা প্রতীকের প্রার্থী শ্যামলী রানী অধিকারীর বাড়িতে বোমা হামলার ঘটনা ঘটে। টানা দুইবার বোমা হামলার ঘটনা ঘটায় তার কর্মী-সমর্থকদের মাঝে কিছুটা আতঙ্ক বিরাজ করছে।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে