Wednesday, July 6, 2022

অশনির ‘জোয়াল’ বোরোচাষির কাঁধে 

২০ ভাগ ধানও উঠেনি তোলা যায়নি

জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক: যশোরে বোরো ধানের বাম্পার ফলনে হাসি ফুটেছিল কৃষকের। কিন্ত এই হাসি উড়ে গেছে ঘূর্ণিঝড় অশনি’র প্রভাবে বৃষ্টিপাতে। টানা ৪দিনের বৃষ্টিতে কৃষকের স্বপ্ন মাটিতে মিশে গেছে। বৃষ্টিতে বোরো আবাদের কেটে রাখা পাকা ধানের উপর পানি উঠে যায়। আবার কোথাও আধা পাকা ধান ন্যুইয়ে পড়ে। ক্ষেতে ভেজা ধান আর কৃষকের চোখের জল একাকার হচ্ছে। পানি না সরায় কেটে রাখা ধানে ক্ষেতেই চারা গজিয়েছে। যশোরে ৯০ ভাগ বোরোচাষি ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছেন। তাদের দাবি এখনো ২০ ভাগ ধান কেটে ঘরে তোলা যায়নি। তবে কৃষি বিভাগের দাবি ক্ষতির পরিমাণ খুবই কম। যদিও বাস্তবের সাথে মিল নেই কৃষি বিভাগের তথ্যের।
এদিকে শ্রমিক সংকট ক্ষতির পরিমাণ আরও বাড়িয়ে দিয়েছে। শ্রমিকের অভাবে নিরাপদ স্থানে কৃষক তুলতে পারেননি ক্ষেতের কাটা ধান। ধানের সাথে পচে গেছে বিচালি।

বৃহস্পতি ও শুক্রবার যশোরের বেশকিছু এলাকার মাঠ ঘুরে দেখা গেছে, এখনো বেশিরভাগ ধান ক্ষেতে আছে হাঁটুজল। পানির নিচেই তলিয়ে আছে কাটা ধান। কিছু ক্ষেতের পানি সরলেও ধান মিশে গেছে কাদা-মাটিতে। ঘূর্ণিঝড় ‘অশনি’র আগাম খবরে আধা-পাকা ধান কেটে ক্ষতি কমানোর চেষ্টা করেছিলেন কৃষক। কিন্তু শেষ রক্ষা হয়নি। উল্টো শ্রমিকের পেছনে চলে গেছে মোটা অংকের টাকা।

যশোর সদরের বাহাদুরপুর গ্রামের কৃষক ইখতিয়ার হোসেন জানান, দুই বিঘা জমির কাটা ধান মাটিতে মিশে গেছে। তিনি বলেন, চড়াদামে শ্রমিক কিনে তড়িঘড়ি করে ধান কাটা শেষ করেছিলাম কিন্তু রাত পোহানোর আগেই বৃষ্টি শুরু হয়। বৃষ্টিতে শ্রমিকও মাঠে নামতে রাজি হয়নি। যেকারণে ক্ষেতেই পুড়ে গেছে স্বপ্ন। তিনি বলেন, এখন শ্রমিক সংকট নেই। কিন্তু চারা গজানো ধানের পেছনে খরচ বাড়িয়ে লাভ নেই।

ঢাকুরিয়ার গৌতম কুন্ডু জানান, আড়াই বিঘা জমিতে ধান ছিল। এরমধ্যে এক বিঘা জমির ধান বাঁচানো গেছে। দেড় বিঘা জমির ধানে পাক ধরেছিল। কিন্তু টানা বৃষ্টিতে ধানগাছ ন্যুইয়ে পড়েছে। এসব ধানের ভাত খাওয়া যাবে না। দুর্ঘন্ধ ছড়াচ্ছে। এই ক্ষতি অপূরণীয়। কোনভাবে পুষিয়ে নেয়ার উপায় খুঁজে পাচ্ছি না। তিনি বলেন, এবার গো-খাদ্যের সংকট আরও প্রকট হবে। বিচালি পচে দুর্গন্ধ ছড়াচ্ছে।

মণিরামপুরের রোহিতা ইউনিয়নের ইউপি মেম্বার বিল্লাল হোসেন দৈনিক কল্যাণকে বলেন, কিছু কৃষক ক্ষেতে ভেজা ধান শুকনো স্থানে তুলে নেচেচেড়ে ক্ষতি কমানোর চেষ্টা করছেন। তবে এসব ধানের ভাত খাওয়া যাবে না। পশু-পাখি ও গো-খাদ্য হিসেবে ব্যবহার করা যাবে। কৃষি বিভাগের ওপর ক্ষোভ ঝাড়েন বিল্লাল। তিনি বলেন, টানা বৃষ্টির পর কৃষি অফিসের কেউ এলাকায় আসেনি।

মণিরামপুর উপজেলা কৃষি অফিসের একটি সূত্র নাম প্রকাশ না করার শর্তে দৈনিক কল্যাণ জানান, শ্যামকুড়, ঝাঁপা, হরিহরনগর, খেদাপাড়া ও রোহিতায় হাজার হাজার হেক্টর জমিতে ধান কেটে ক্ষেতেই স্তুপ করে রেখেছিলেন কৃষক কিন্তু সেইসব ধানে চারা গজিয়ে গেছে।

সদরের সাড়াপোলের কৃষক মকবুল হোসেন বলেন, ৩ বিঘা জমিতে বোরোর আবাদ করেছিলাম। এরমধ্যে ২২ কাটা জমির ধান কেটে আঁটি বেঁধে রাখা হয়েছিল ক্ষেতে। এসব ধানের ওপর দিয়ে বৃষ্টির পানির ¯্রােত বইয়ে গেছে। ক্ষেতের পানি সরে গেলেও ধান-কাদা একাকার হয়ে গেছে। তিনি বলেন, ধানের আশা বাদ দিয়ে বিচালি রক্ষার চেষ্টা করছি। তিনি বলেন, কৃষি বিভাগ সঠিক তথ্য ফাঁস করছে না।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে যশোর সদর কৃষি অফিসের এক কর্মকর্তা জানান, টানা বৃষ্টিতে বোরো ধানের স্বপ্ন মাটিতে মিশে গেছে। ক্ষতির পরিমাণ এখনো নিরুপণ করা যায়নি। উর্দ্ধতন কর্মকর্তারা যে তথ্য দিচ্ছেন তা আন্দাজে-যোগ করেন তিনি। সূত্রের দাবি, সদরে ২৭ হেক্টর জমিতে বোরোর আবাদ হয়েছিল। বৃষ্টিতে অনন্ত ৪০ ভাগ ধান নষ্ট হয়ে গেছে। বাকি ৬০ ভাগ ধান ক্ষেতে পানি জমে আছে। এসব ক্ষেত ঝুঁকিতে রয়েছে বলেও দাবি সূত্রের।

যশোর কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের ভারপ্রাপ্ত পরিচালক দীপঙ্কর দাশ দৈনিক কল্যাণকে বলেন, পুরো জেলায় ৯৬৫ হেক্টর জমির ধান বৃষ্টিতে আক্রান্ত হয়েছে। এরমধ্যে ৫০ ভাগ ধান নষ্ট হয়ে গেছে। তিনি বলেন, চলতি মৌসুমে জেলায় ১ লাখ ৫৮ হাজার ৮০৫ হেক্টর জমিতে বোরো ধানের চাষ হয়েছে।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

সর্বশেষ

পিঠে ছুরিবিদ্ধ খোকন নিজেই গাড়ি ভাড়া করে আসেন যশোর হাসপাতালে

নিজস্ব প্রতিবেদক : পিঠে বিদ্ধ হওয়া ছুরি নিয়ে নিজেই যশোর জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসা নিতে এসেছেন...

নায়কদের নামে কোরবানির গরু, আপত্তি জানালেন ওমর সানি

কল্যাণ ডেস্ক : আগামী ১০ জুলাই পবিত্র ঈদুল আজহা। মুসলিম সম্প্রদায় এই ঈদে পশু কোরবানির...

এশিয়ার বাইরের উইকেটের যে কারণে অসহায় মোস্তাফিজ

ক্রীড়া ডেস্ক : মোস্তাফিজুর রহমানের বোলিং দেখে ক্যারিয়ারের শুরুতে অনেকে তাকে বলতেন, 'জোর বল করা...

নতুন ২৭১৬ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান এমপিওভুক্ত

কল্যাণ ডেস্ক : শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের উভয় বিভাগের আওতায় আরও ২ হাজার ৭১৬টি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান এমপিওভুক্ত করার...

নওয়াপাড়া বন্দরে অবৈধ তালিকায় ৬০ ঘাট

অবৈধভাবে গড়ে উঠা ঘাটের কারণে কমছে নদীর নাব্যতা ৫ বছরে অর্ধশত জাহাজ ডুবিতে ক্ষতিগ্রস্ত...

মণিরামপুরে জমজমাট কোরবানির পশু হাট

আব্দুল্লাহ সোহান, মণিরামপুর : দক্ষিণবঙ্গের অন্যতম হাট মণিরামপুরের গরু-ছাগলের হাট। প্রতি শনি ও মঙ্গলবার এখানে...