বুধবার, নভেম্বর ৩০, ২০২২

আনন্দ নেই মণিরামপুরে নির্বাচিত চেয়ারম্যান জিন্নাহ ও লিটনের বাড়িতে

আব্দুল্লাহ আল মামুন সোহান, মণিরামপুর (যশোর) প্রতিনিধি
চারিদিকে যখন বিজয়ের স্লোগান চলছিলো ঠিক সে সময় বিজয়ী চেয়ারম্যান আব্দুল আলিম জিন্নাহর বাড়িতে চলছিলো শোকের মাতম। জিন্নাহ তখন ভাই তবিবুর রহমানের লাশ নিয়ে বুকফাটা আর্তনাদে করছিলেন। অপর বিজয়ী চেয়ারম্যান প্রার্থী আলমগীর হোসেন লিটন ঢাকার শ্যামলী নিউরোসাইন্স হাসপাতালে যন্ত্রণায় কাতরাচ্ছিলেন।

মণিরামপুরের এ দু’ জন বিজয়ী চেয়ারম্যানের বাড়িতে বিজয়ের আনন্দের কোন ছোয়া লাগেনি। ছিল বিষাদে ভরপুর।

আব্দুল আলিম জিন্নাহ চারবার নির্বাচন করে নৌকা প্রতীক নিয়ে এবারই প্রথম বিজয়ী হন। নির্বাচনের দিন সকাল ৮টায় যখন ভোট নিয়ে ব্যস্ত থাকার কথা তখন আব্দুল আলিম জিন্নাহর ভাই তবিবুর রহমান মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়েন। তবিবুর রহমান দীর্ঘদিন ছিলেন ফুসফুস জনিত রোগে আক্রান্ত। নির্বাচনের দিন সকাল ৮টায় তিনি মৃত্যু বরণ করেন। ছোট ভাইয়ের লাশ নিয়ে প্রার্থী আব্দুল আলিম জিন্নাহ বাড়িতেই বুকফাটা আর্তনাদ করছিলেন। রাত ৮টার দিকে চারিদিকে যখন আব্দুল আলিম জিন্নাহর বিজয়ের স্লোগান চলছিলো সে সময় তিনি বাড়িতে ভাইয়ের লাশ দাফন করতে ব্যস্ত সময় পার করছিলেন। রাত ১০টার দিকে দাফন শেষে আব্দুল আলিম জিন্নাহ শোকাহত বাবা-মাকে নিয়েই বাড়িতেই কাটাচ্ছিলেন। বিজয়ের দিনে পুরো পরিবারটি ছিলো শোকে মুহ্যমান।

বিজয়ী আলমগীর কবির লিটন এবার আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রাথী হিসেবে নির্বাচনী মাঠে ছিলেন। প্রতিদ্বন্দ্বি প্রার্থী ছিলেন আওয়ামী লীগের মনোনীত বিপদ ভঞ্জন পাড়ে। গত ৯ নভেম্বর সন্ধ্যায় আলমগীর কবির লিটন নির্বাচনী কাজে ইউনিয়নের হোগলাডাঙ্গা বাজারে প্রচার-প্রচারণায় যখন ব্যস্ত ছিলেন এসময় প্রতিদ্বন্দ্বি প্রার্থীর কর্মীরা তাকে হাতুড়ি পেটা করে গুরুত্বর আহত করে। এসময় ভাইকে উদ্ধার করতে গিয়ে ছোট ভাই জাহাঙ্গীর হোসেনও আক্রমণের শিকার হয়ে হাসপাতালে যান। দু’ভাই ছিলেন হাসপাতালের বেডে। যশোর মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল থেকে প্রার্থী আলমগীর কবির লিটনকে নেওয়া হয় ঢাকা শ্যামলী নিউরোসাইন্স হাসপাতালে। এ হাসপাতালে গত তিন আগে তার অপারেশন করা হয় বলে পারিবারিক সূত্র জানায়। হাসপাতালের বেডে শুয়েই তিনি দল থেকে বহিষ্কারের ম্যাসেজ পান। পরিবারের কেউ ছিলো না নির্বাচন কার্যক্রমের কাজ করার মত। শেষ পর্যন্ত রাহুল রায় তার নির্বাচনী হাল ধরেন। আলমগীর কবির লিটন প্রতিদ্বন্দ্বি প্রার্থী বিপদ ভঞ্জন পাড়েকে অতিক্রম করে ৩ হাজার ৭৬১ ভোট বেশি পেয়ে বিজয়ী হয়েছেন। তবে এ বিজয়ের আনন্দের স্বাদ গ্রহণ করতে পারেননি ওই পরিবারের কেউ। ছোট ভাই জাহাঙ্গীর পঙ্গুত্ব জীবন নিয়ে বাড়িতেই কাটাচ্ছেন। বৃদ্ধ বাবা-মা রয়েছেন আতংকের মধ্যে। চারিদিকে যখন বিজয়ের আনন্দ মিছিল চলছিলো প্রার্থী আলমগীর কবির লিটন তখন ছিলেন শ্যামলী নিউরোসাইন্স হাসপাতালে।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

সর্বশেষ

সেমি-ফাইনালে আর্জেন্টিনা-ব্রাজিল মহারণ নাকি মেসি-রোনালদো দ্বৈরথ?

ক্রীড়া ডেস্ক: প্রথম ম্যাচে সৌদি আরবের বিপক্ষে হেরে বিপাকেই পড়ে গিয়েছিল আর্জেন্টিনা। এক হারেই...

সুন্দরী প্রতিযোগিতার বিজয়ী রাহার আয়োজকদের বিরুদ্ধে থানায় অভিযোগ

বিনোদন ডেস্ক: থাইল্যান্ড পাঠানোর নাম করে তার দেওয়া ৬ লাখ টাকা আয়োজকরা আত্মসাৎ করেছেন...

মেসিকে হুমকি দেওয়া মেক্সিকান বক্সারকে পেটাবেন আর্জেন্টাইন ফাইটার

ক্রীড়া ডেস্ক: আর্জেন্টাইন ফাইটার ফ্রাঙ্কো তেনাগ্লিয়াকে তেমন খ্যাতিমান কেউ নন। লাইটওয়েট শ্রেণিতে লড়াই করেন...

আর্জেন্টিনা বিশ্বকাপ থেকে বাদ পড়লে ব্রাজিলকে সমর্থন দেবেন স্কালোনি!

ক্রীড়া ডেস্ক: আর্জেন্টিনার কোচ লিওনেল স্কালোনি বলেছেন, আর্জেন্টিনা কাতার বিশ্বকাপ থেকে বাদ পড়ে গেলে...

মাগুরায় স্কুলছাত্রীর আত্মহত্যা

মাগুরা প্রতিনিধি : মাগুরা শহরের পশু হাসপাতাল পাড়ায় মিম (১৩) নামের এক স্কুলছাত্রী গলায়...

শতভাগ পাস ঝিকরগাছায় শীর্ষে বিএম হাইস্কুল

নিজস্ব প্রতিবেদক: যশোরের ঝিকরগাছা বদরুদ্দীন মুসলিম হাইস্কুলের শতভাগ পাসের সাফল্য এবারও উপজেলার শীর্ষে রয়েছে।...