Saturday, July 2, 2022

বিভাজনের রাজনীতি প্রবল : যশোরে আ.লীগকে এক কাতারে আনা যাচ্ছে না

চারু আদিত্য
কোন কিছুই এক করা যাচ্ছে না যশোরের আওয়ামী লীগের গ্রুপ বিভাজনের রাজনীতি। বিজয় দিবসের মত জাতীয় কর্মসূচিও প্রতিন্দন্দ্বী গ্রুপ দুটিকে এককাতারে আনতে পারেনি। যশোরে দলটির কেন্দ্র ঘোষিত বিজয় দিবসের শোভাযাত্রা কর্মসূচিও পৃথকভাবে পালন হয়েছে। মুক্তিযুদ্ধে বিজয়ের সুর্বণজয়ন্তী উপলক্ষে শনিবার যশোর শহরে আলাদাভাবে শোভাযাত্রা বের করে দুটি গ্রুপ।

এদিন সকাল ১১টায় জেলা কার্যালয় থেকে শহরে বিজয় শোভাযাত্রা বের হয়। জেলা আওয়ামী লীগের ব্যানারে এই শোভাযাত্রা বের হয়। ‘নাবিল গ্রুপ’ বলে পরিচিত জেলা আওয়ামী লীগের এক অংশের নেতারা তাদের সমর্থকদের নিয়ে এই শোভাযাত্রা বের করেন। বিকেল ৩টায় জেলা, সদর উপজেলা ও পৌর আওয়ামী লীগের ব্যানারে আরেকটি বিজয় শোভাযাত্রা বের হয়। ‘শাহীন চাকলাদার’ গ্রুপ বলে পরিচিত আওয়ামী লীগের নেতারা এই শোভাযাত্রার নেতৃত্ব দেন।

দুই মেরুতে অবস্থান করে দলীয় রাজনীতি করেছেন জেলা আওয়ামী লীগের কয়েকজন শীর্ষ নেতা। দীর্ঘ দিন ধরে এমনটি চলে আসছে। দলীয় থেকে শুরু করে জাতীয় দিবসের কর্মসূচিগুলোও আলাদাভাবে পালন করছেন তারা। ফলে জেলা সংগঠন থেকে শুরু করে তৃনমূল পর্যায় পর্যন্ত এই বিভাজন ছড়িয়ে পড়েছে। ওয়ার্ড থেকে শুরু করে আঞ্চলিক সংগঠনের নেতা-কর্মীরা পৃথক কর্মসূচি আয়োজন করে। আর আওয়ামী লীগের এই গ্রুপ রাজনীতি ছড়িয়ে পড়েছে সহযোগী সব সংগঠনেও। ছাত্রলীগ, যুবলীগ, স্বেচ্ছাসেবক লীগ, শ্রমিক লীগসহ অন্য সহযোগী সংগঠনগুলোর নেতা-কর্মীরা দুই গ্রুপে বিভক্ত। যশোরের রাজনীতিতে গ্রুপ দুটি নাবিল গ্রুপ ও শাহীন গ্রুপ নামে পরিচিত। সদরের এমপি কাজী নাবিল আহমেদ ও জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও কেশবপুর আসনের এমপি শাহীন চাকলাদার গ্রুপ দুটির নেতৃত্ব দেন।

বিজয় দিবসের মত একটি জাতীয় কর্মসূচি আলাদাভাবে পালনের বিষয়ে জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি শহিদুল ইসলাম মিলনের বক্তব্য, ‘এব্যাপারে আমি কোন মন্তব্য করতে চাই না’। এব্যপারে সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মোহিত কুমার নাথ জানান, জাতীয় ও দলীয় কর্মসূচিগুলো সদর এবং পৌর আওয়ামী লীগের যৌথ উদ্যোগে পালিত হয়। জেলা আওয়ামী লীগের নেতারাও এসব কর্মসূচিতে অংশ নেন। যার কারণে শোভাযাত্রায় জেলা আওয়ামী লীগের ব্যানার থাকলেও থাকতে পারে। বিষয়টি তিনি সেভাবে লক্ষ করেননি।

শনিবার বিকাল সাড়ে ৩ টায় যশোর জেলা, সদর উপজেলা ও পৌর আওয়ামী লীগের উদ্যোগে জেলা আওয়ামী লীগের দলীয় কার্যালয় থেকে বিজয় শোভাযাত্রা বের হয়। নানা রঙের ব্যানার, ফেস্টুন, প্লাকার্ড নিয়ে বিজয় শোভাযাত্রায় অংশ নেয় দলের নেতা-কর্মীরা। শোভাযাত্রাটি শহরের বিভিন্ন প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ করে শহরের বকুলতলাস্থ বঙ্গবন্ধু ম্যুরাল প্রাঙ্গনে গিয়ে শেষ হয়। বিজয় মিছিলে অংশ নেয়, যশোর জেলা আওয়ামী লীগের সহ সভাপতি মুক্তিযোদ্ধা গোলাম মোস্তফা, আইন বিষয়ক সম্পাদক অ্যাডভোকেট গাজী আব্দুল কাদের, দপ্তর সম্পাদক অ্যাডভোকেট মজিবুদ্দৌলা সরদার কনক, ধর্ম বিষয়ক সম্পাদক খলিলুর রহমান, যুব ও ক্রীড়া বিষয়ক সম্পাদক জিয়াউর হাসান হ্যাপী, সাংগঠনিক সম্পাদক এস এম আফজাল হোসেন, সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মোহিত কুমার নাথ, সাধারণ সম্পাদক শাহারুল ইসলাম, পৌর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এস এম মাহমুদ হাসান বিপু, জেলা আওয়ামী লীগনেতা রেজাউল ইসলাম, মশিয়ার রহমান সাগর, জেলা মহিলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সসম্পাদক জ্যোৎস্না আরা মিলি, জেলা শ্রমিক লীগের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক আসাদুজ্জামান বাবলু, সদর উপজেলা পরিষদের সাবেক ভাইস চেয়ারম্যান সুলতান মাহমুদ বিপুল, জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক ও যুবলীগনেতা শফিকুল ইসলাম জুয়েল, জেলা যুবলীগের প্রচার সম্পাদক শেখ জাহিদ হাসান মিলন, সদর উপজেলা যুবলীগের আহ্বায়ক অশোক বোস, যশোর পৌর সভার ৪ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর আলমগীর কবির সুমন, জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি রওশন ইকবাল শাহী, সাবেক পাঠ্যচক্র বিষয়ক সম্পাদক মেহেদী হাসান রনি, জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি সালাউদ্দিন কবির পিয়াসসহ জেলা যুবলীগ, ছাত্রলীগ, স্বেচ্ছাসেবক লীগ, মহিলা আওয়ামী লীগ, যুব মহিলা লীগ, তাঁতি লীগ, কৃষক লীগ নেতৃবৃন্দ।

যশোরে আ.লীগকে এক কাতারে আনা যাচ্ছে নাএর আগে সকাল সাড়ে ১১টার দিকে দলীয় কার্যালয়ের সামনে থেকে জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি শহিদুল ইসলাম মিলনের নেতৃতে আরেকটি শোভাযাত্রা বের হয়। শহরের বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ সড়ক প্রদক্ষিণ করে দলীয় কার্যালয়ে এসে শোভাযাত্রাটি শেষ হয়। শোভাযাত্রায় শহিদুল ইসলাম মিলন সংক্ষিপ্ত বক্তব্য দেন। এসময় উপস্থিত ছিলেন, যশোর জেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি ও যশোর পৌরসভার মেয়র বীরমুক্তিযোদ্ধা হায়দার গনি খান পালাশ, মেহেদী হাসান মিন্টু, হুমায়ুন কবির কবু, সাংগঠনিক সম্পাদক সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মোস্তফা ফরিদ আহমেদ চৌধুরী, ভাইস চেয়ারম্যান আনোয়ার হোসেন বিপুল, জেলা আওয়ামী লীগের কৃষি ও সমবায় বিষয়ক সম্পাদক অ্যাডভোকেট আবু সেলিম রানা, ত্রাণ ও সমাজকল্যাণ সম্পাদক সুখেন মজুমদার, প্রচার সম্পাদক মুন্সী মহিউদ্দিন আহমেদ, শিল্প ও বাণিজ্য বিষয়ক সম্পাদক শেখ আতিকুর বাবু, উপপ্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক লুৎফুল কবির বিজু, সদস্য মারুফ হোসেন খোকন, কামাল হোসেন, অধ্যাপক মোয়াজ্জেম হোসেন, সামির ইসলাম পিয়াস। এছাড়াও উপস্থিত ছিলেন, শহর আওয়ামী লীগের সাবেক যুগ্ম আহ্বায়ক ফিরোজ খান, জেলা যুবলীগের ক্রীড়া সম্পাদক নাজমুল হুদা পনি, সদস্য এসএম রবি সিদ্দিকী, কেরামত আলী, জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সহসভাপতি জাবের হোসেন জাহিদ, শফিকুল ইসলাম সোহাগ, সাবেক যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাসুদ এ শরীফ হিমেল, সাবেক উপশিক্ষা ও পাঠচক্র বিষয়ক সম্পাদক রেযোয়ান হোসেন মিথুন, বর্তমান সাধারণ সম্পাদক তানজিব নওশাদ পল্লব, সহসভাপতি কায়েস আহমেদ রিমু, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক রিফাতুজ্জামান রিফাত, সাংগঠনিক সম্পাদক তরিকুল ইসলাম, মারুফ হোসেন প্রমুখ।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

সর্বশেষ

কেন বিয়ে করেননি, জানালেন সুস্মিতা

বিনোদন ডেস্ক: কেন বিয়ে করেননি সাবেক বিশ্বসুন্দরী ও বলিউড অভিনেত্রী সুস্মিতা সেন; এমন প্রশ্ন...

করোনায় নতুন শনাক্ত ১৮৯৭, মৃত্যু ৫ জনের

কল্যাণ ডেস্ক: দেশে গত ২৪ ঘণ্টায় (গতকাল বৃহস্পতিবার সকাল ৮টা থেকে আজ শুক্রবার সকাল...

বাংলাদেশ জঙ্গিবাদ দমনে যে ভূমিকা দেখিয়েছে, তা সত্যিই প্রশংসনীয়

কল্যাণ ডেস্ক: বাংলাদেশে নিযুক্ত মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের রাষ্ট্রদূত পিটার ডি হাস বলেছেন, বাংলাদেশ জঙ্গিবাদ দমনে...

যশোরের কেশবপুরে নরসুন্দর যুবককে কুপিয়ে হত্যা

কেশবপুর প্রতিনিধি : জেলার কেশবপুর উপজেলায় নরসুন্দর এক যুবকের গলা ও পেট কেটে হত্যা করেছে...

হতদরিদ্রদের চালের দামও বাড়ল ৫ টাকা

ঢাকা অফিস: খাদ্যবান্ধব কর্মসূচির আওতায় দেশের ৫০ লাখ হতদরিদ্র মানুষের কাছে বিক্রি করা চালের...

নির্দলীয় সরকার নিয়ে উত্তপ্ত সংসদ

ঢাকা অফিস: বৃহস্পতিবার সংসদে নির্বাচন ব্যবস্থা নিয়ে তুমুল বিতর্ক হয়েছে। বিরোধী দলের সংসদ সদস্যরা...