Wednesday, July 6, 2022

ঐতিহ্য : শতাব্দি প্রচীন বি সরকার ঘূর্ণায়মান রঙ্গমঞ্চ

জহিরুল হক
প্রাণ ফিরে পাচ্ছে যশোরের বি. সরকার মেমোরিয়াল ঘূর্ণায়মান নাট্যমঞ্চ। শতাব্দি প্রাচীন এই নাট্যমঞ্চটিকে সবাই তসবির সিনেমা হল হিসেবে চেনে। এটি যশোর জেলা শহরের প্রাণকেন্দ্র টাউন হল ময়দানের পূর্ব পাশে অবস্থিত। ইতিহাস ঐতিহ্যের সৌন্দর্যের লীলাভূমি যশোর। যশোর জেলার পরতে পরতে ছড়িয়ে রয়েছে বহু ঐতিহাসিক নান্দনিক স্থাপনা। সে রকমই একটি অন্যতম নান্দনিক স্থাপনা হলো বি. সরকার ঘূর্ণায়মান মঞ্চ। এই শতাব্দি প্রাচীন বি. সরকার অর্থাৎ বিশে^স্বর সরকার স্মৃতি ঘূর্ণায়মান রঙ্গমঞ্চ ১৯২১ সালে টাউন হল ময়দানে পূর্বপাশে তৈরি হয়।

এটি শুধু ১০০ বছরের পুরনো তাই নয়, বর্তমানে এখনো টিকে থাকা অন্যতম নাট্যমঞ্চ। আর বাংলাদেশের দ্বিতীয় ঘূর্ণায়মান মঞ্চ এটি। যেখানে এখন তসবির সিনেমা হল অবস্থিত, সেখানেই একসময় বহু নাটক পরিবেশিত হয়েছে এবং যশোরের সুনাম সারা ভারত উপমহাদেশে ছড়িয়ে দিয়েছে। এই ধরনের রঙ্গমঞ্চ প্রথম নির্মিত হয়েছিল ব্রিটিশ আমলে বগুড়ার উডবার্ন হলে। কলকাতার বিখ্যাত গিনি হাউসের সত্বাধিকারী ছিলেন যশোরের চৌগাছা নিবাসী বিশে^স্বর সরকার। তিনি বহু অর্থ-সম্পদের মালিক ছিলেন এবং ছিলেন সংস্কৃতিমনা। তিনিই এই মঞ্চ নির্মাণের জন্য অর্থ সাহায্য করেন। আর সে কারণেই এই হলের নামকরণ করা হয় বি. সরকার মেমোরিয়াল হল।

১৯২১ সালের আগেই যশোরের আর এক কৃতি সন্তান রায়বাহাদুর যদুনাথ মজুমদারের উদ্যোগে ‘নিউ আর্য থিয়েটার’ নামে একটি নাট্য সংগঠন গড়ে উঠেছিল । ১৯২৮ সালের থেকে এই হলটি যশোর ইনসটিটিউটের অধীনে পরিচালিত হতে থাকে। ১৯৪৭ সালের ভারত বিভাগের পর এই মঞ্চকে কেন্দ্র করে যশোর অঞ্চল হয়ে ওঠে বাংলাদেশের ঐতিহ্যবাহী অন্যতম সাহিত্য-সংস্কৃতি শিল্প চর্চার পীঠস্থান। যেখানে কামাল উদ্দিন নীলুর ‘অন্ধ নগরীর চৌপাট রাজা’ নাটক এক ভিন্ন মাত্রা যোগ করে। নতুনভাবে নাট্য আন্দোলনের সূচনা করেছিল। তারপর মুনীর চৌধুরীর ‘কবর’ নাটক বহুবার মঞ্চায়িত হয়েছে এই মঞ্চে। ষাটের দশকের কবি আজিজুল হকের নাটক ‘কৃষ্ণচূড়ার তৃষ্ণা’ এবং তাঁর পরিচালনায় ‘অগ্নিবীণা’ নাটক মঞ্চস্থ হয় এবং তা বহুল জনপ্রিয়তা লাভ করে । যা আজও বয়স্কদের স্মৃতিপটে উজ্জ্বল হয়ে রয়েছে। বৃহত্তর যশোর জেলা সুপ্রাচীন কাল থেকেই শিল্প-সাহিত্য-সংস্কৃতির এক উল্লেখযোগ্য চর্চাকেন্দ্র হিসেবে বিশেষ অবদান রেখে চলেছে। আর সেইসব শৈল্পিক, সৃজনশীল, মননশীল সৃষ্টিগুলোকে প্রদর্শনের জন্য এই ঐতিহাসিক বি. সরকার মেমোরিয়াল ঘূর্ণায়মান মঞ্চটি মূল কেন্দ্রবিন্দু। এই ঘূর্ণায়মান মঞ্চে একসাথে তিনটি সেট নির্মাণ করে নাটক পরিবেশন করা যায়। বর্তমানে এখানে নাট্যকলা সংসদ নামে যশোর ইনসটিটিউটের একটি বিভাগ রয়েছে; যারা এই হলের দেখাশোনার দায়িত্ব পালন করে।

যশোর জেলা প্রশাসকের অর্থসাহায্যে নাট্যশালা সংসদ এই মঞ্চের সংস্কার কাজ শুরু করে দিয়েছে। সরেজমিনে দেখা যায় যে, নতুন চুনকাম এবং দেয়াল প্লাস্টারের কাজ চলমান রয়েছে। মহড়া কক্ষে পুরাতন জিনিসপত্র এবং ভাঙাচোরা চেয়ার-টেবিল সরানোর কাজ চলছে। জেলা প্রশাসক মহোদয়ও পরিদর্শন করেছেন।

‘অন্ধ নগরীর চৌপাট রাজা’ নাটকের কিছু ব্যাকগ্রাউন্ড স্ক্রিন এখনো সেখানে রয়েছে। বাইরের ‘ভূপতি মঞ্চ’ মেরামত করা হয়েছে। যশোর ইনসটিটিউট নাট্যকলা সংসদ ‘ভূপতি মঞ্চ’ টি ২০০০ সালে বর্ষিয়ান রাজনৈতিক নেতা খালেদুর রহমান টিটো উদ্বোধন করেন।

যশোর জেলার এই ঐতিহাসিক বি. সরকার মেমোরিয়াল ঘূর্ণায়মান মঞ্চটি অতি শিগগিরই নতুনভাবে প্রাণ ফিরে পাবে, সেই আশায় রয়েছেন শিল্প-সাহিত্য-সংস্কৃতি অঙ্গনের কর্মীরা।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

সর্বশেষ

পিঠে ছুরিবিদ্ধ খোকন নিজেই গাড়ি ভাড়া করে আসেন যশোর হাসপাতালে

নিজস্ব প্রতিবেদক : পিঠে বিদ্ধ হওয়া ছুরি নিয়ে নিজেই যশোর জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসা নিতে এসেছেন...

নায়কদের নামে কোরবানির গরু, আপত্তি জানালেন ওমর সানি

কল্যাণ ডেস্ক : আগামী ১০ জুলাই পবিত্র ঈদুল আজহা। মুসলিম সম্প্রদায় এই ঈদে পশু কোরবানির...

এশিয়ার বাইরের উইকেটের যে কারণে অসহায় মোস্তাফিজ

ক্রীড়া ডেস্ক : মোস্তাফিজুর রহমানের বোলিং দেখে ক্যারিয়ারের শুরুতে অনেকে তাকে বলতেন, 'জোর বল করা...

নতুন ২৭১৬ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান এমপিওভুক্ত

কল্যাণ ডেস্ক : শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের উভয় বিভাগের আওতায় আরও ২ হাজার ৭১৬টি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান এমপিওভুক্ত করার...

নওয়াপাড়া বন্দরে অবৈধ তালিকায় ৬০ ঘাট

অবৈধভাবে গড়ে উঠা ঘাটের কারণে কমছে নদীর নাব্যতা ৫ বছরে অর্ধশত জাহাজ ডুবিতে ক্ষতিগ্রস্ত...

মণিরামপুরে জমজমাট কোরবানির পশু হাট

আব্দুল্লাহ সোহান, মণিরামপুর : দক্ষিণবঙ্গের অন্যতম হাট মণিরামপুরের গরু-ছাগলের হাট। প্রতি শনি ও মঙ্গলবার এখানে...