Tuesday, August 16, 2022

কুমড়ো বড়ি তৈরিতে ব্যস্ত মহেশপুরের গৃহিণীরা

মহেশপুর (ঝিনাইদহ) প্রতিনিধি
মহেশপুরের প্রতিটি গ্রামে কুমড়ো বড়ি তৈরির ধুম পড়েছে। কুমড়ো বড়ি তৈরির উপযুক্ত সময় শীতকাল। শীতের সময় গ্রামের গৃহিণীদের কর্ম ব্যস্ততা বেড়ে যায়। মাষকলাই ভিজিয়ে সেই ডালের সঙ্গে পাকা চালকুমড়ো মিশিয়ে তৈরি করা হয় এ সুস্বাদু বড়ি। শীতের সময় গ্রামের প্রায় ৮০ ভাগ গৃহিণী পালা করে বড়ি তৈরি করার কাজটি করে থাকেন। কুমড়া বড়ি একটি মুখরোচক খাদ্য। এতে তরকারির স্বাদে যোগ হয় নতুন মাত্রা।

নারীরা এই বড়ি তৈরি করার জন্য বেশ কয়েক মাস আগে থেকে চাহিদামতো পাকা চালকুমড়োর ব্যবস্থা করেন। কুমড়ো বড়ি তৈরিতে মূলত চালকুমড়া এবং মাষকলাইয়ের ডাল প্রয়োজন হয়। মাষকলাইয়ের ডাল ছাড়া অন্য ডালেও তৈরি করা যায়। মচমচে করে রোদে শুকাতে পারলে এই বড়ির ভালো স্বাদ পাওয়া যায়। এ সময় গ্রামের প্রতিটা বাড়িতে কমবেশি কুমড়ো বড়ি তৈরি করা হয়। পরিবারের চাহিদা মিটিয়ে বাকিটা বাজারে বিক্রি করেন অনেকে। শীতের সময় কুমড়ো বড়ির চাহিদা থাকে বেশি, আর গ্রামাঞ্চলের নারীরা বাড়তি আয়ের জন্য কুমড়ো বড়ি তৈরি করেন।

পাতিবিলা গ্রামের গৃহিণী হাজেরা বেগম জানান, বড়ি তৈরির আগের দিন ডাল ভিজিয়ে রাখতে হয়। চালকুমড়া ছিলে ভেতরের নরম অংশ ফেলে মিহিভাবে কুচি করে রাখতে হয়। এরপর কুমড়ো খুব ভালোভাবে ধুয়ে পরিষ্কার পাতলা কাপড়ে বেঁধে সারা রাত ঝুলিয়ে রাখতে হয়। অন্যদিকে ডালের পানি ছেঁকে শিলপাটায় বেটে নিতে হয়। তারপর বাটা ডালের সঙ্গে কুমড়ো মেশাতে হয়। যতক্ষণ না ডাল-কুমড়োর মিশ্রণ হালকা হয়, ততক্ষণ খুব ভালো করে হাত দিয়ে এ মিশ্রণ মিশাতে হয়। এরপর কড়া রোদে চাটি বা কাপড় বিছিয়ে বড়ির ছোট ছোট আকার দিয়ে একটু ফাঁকা ফাঁকা করে বসিয়ে শুকাতে হয়। এভাবে বড়ি তিন থেকে চার দিন রোদে শুকিয়ে অনেক দিন পর্যন্ত সংরক্ষণ করা যায়।

বগা গ্রামের ফাতেমা বেগম বলেন, শীতের সময় মূলত বড়ি তৈরি করা হয়। এ বড়ি নিজেদের খাওয়াসহ আত্মীয়-স্বজনের বাড়িতেও পাঠানো হয়।

উপজেলার কুমড়ো বড়ির ব্যবসায়ী রমজান আলী বলেন, এখানকার কুমড়ো বড়ি খুব সুস্বাদু হওয়ায় এ অঞ্চলের বড়ি এলাকার চাহিদা মিটিয়ে দেশের বিভিন্ন জেলায় পাঠানো হয়। বিশেষ করে ঢাকায় এর চাহিদা সবচেয়ে বেশি।
উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা হাসান আলী জানান, শীত মৌসুমে গ্রামের গৃহিণীরা কুমড়ো বড়ি তৈরি করে বাড়তি আয় করছেন। গ্রামীণ নারীরা উপযুক্ত প্রশিক্ষণ ও পৃষ্টপোষকতা পেলে তারা নিজেদের ভাগ্য উন্নয়ন ও গ্রামীণ অর্থনীতিতে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখতে সক্ষম হবে।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

সর্বশেষ

ঝিনাইদহে নবজাতক হত্যায় আটক ৩

ঝিনাইদহ প্রতিনিধি : ঝিনাইদহ সদর হাসপাতালে সদ্য ভূমিষ্ঠ এক ছেলে শিশুকে গলা টিপে হত্যার অভিযোগে...

দুই চোরসহ ভ্যান উদ্ধার

দেবহাটা প্রতিনিধি : দেবহাটা থানা পুলিশের অভিযানে ইঞ্জিন ভ্যান চুরির ২৪ ঘন্টার মধ্যে ২ চোরসহ...

শিশু নাঈমার ঘাতকের ফাঁসির দাবিতে মানববন্ধন

প্রেমবাগ প্রতিনিধি : যশোরের অভয়নগর উপজেলার চেঙ্গুটিয়ার বালিয়াডাঙ্গায় শিশু নাঈমার ঘাতক আমজাদের ফাঁসির দাবিতে মঙ্গলবার...

যশোরে ইয়াবাসহ নারী গ্রেফতার

নিজস্ব প্রতিবেদক : র‌্যাব-৬ যশোর ক্যাম্পের সদস্যরা সোমবার রাতে শহরের মুজিব সড়ক সার্কিট হাউজের সামনে...

যশোরে জুয়ার আস্তানা থেকে ছয়জন গ্রেফতার

নিজস্ব প্রতিবেদক : যশোর সদর উপজেলার চুড়ামনকাটি ইউনিয়নের ইসলামপুর গ্রামের এক পরিত্যক্ত টিনের ঘরের মধ্যে...

স্বামী স্ত্রী হিসেবে মেলামেশা, যশোরে চিকিৎসকের বিরুদ্ধে মামলা

নিজস্ব প্রতিবেদক : তালাকের কাগজ ছয় বছর গোপন করে স্বামী-স্ত্রী হিসেবে মেলামেশার এক পর্যায় তালাকের...