Wednesday, May 18, 2022

জনগণের জন্য মামলা খেয়েছি, দুঃখ নেই: প্রধানমন্ত্রী

কল্যাণ ডেস্ক : প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, ‘প্রথমবার যেকোনো কাজ যখন আমরা করতে গিয়েছি। পরবর্তী সরকার এসে আমার বিরুদ্ধে মামলা দিয়েছে। প্ল্যানেটারিয়াম করার জন্য আমার বিরুদ্ধে দুটি মামলা দেওয়া হয়েছিল। কেন ঠিক তা আমি জানি না। এটা করার সময় সব ইউটিলিটিগুলো যেন সামরিক জাদুঘরও ব্যবহার করতে পারে তার ব্যবস্থা করেছিলাম।’

আজ বৃহস্পতিবার গণভবন থেকে ভার্চুয়ালি যুক্ত হয়ে বঙ্গবন্ধু সামরিক জাদুঘরের উদ্বোধন অনুষ্ঠানে এসব কথা বলেন প্রধানমন্ত্রী।

১৯৯৬ সালে ক্ষমতায় আসার পরে বিমানবাহিনীর জন্য দুটি মিগ ২৯ কেনার বিষয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘এটার জন্য দুটি মামলা আমার বিরুদ্ধে দেওয়া হয়। আমাদের বিমানবাহিনী যথেষ্ট শক্তিশালী। সেখানে মেয়েরা পর্যন্ত কাজ করছেন।’

নৌ বাহিনীর কার্যক্ষমতা বাড়াতে ১৯৯৬ সালের সরকার দুটি ফ্রিগেট কেনার কথা বলেন প্রধানমন্ত্রী। তিনি বলেন, ‘সেটা কেনার জন্যও আরও দুটি মামলা আমার বিরুদ্ধে করা হয়েছিল। কিন্তু আমার এখানে দুঃখ নেই। আমি যা করেছি জনগণের জন্যই করেছি। যদিও এখানে তারা কোনো কিছু প্রমাণ করতে পারেনি।’

দেশের জন্য কাজ করাই সরকারের লক্ষ্য জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘আমাদের প্রতিটি বাহিনীকে আধুনিকায়ন করাই ছিল লক্ষ্য। এমনকি পদবিগুলোকেও পরিবর্তন করে আন্তর্জাতিক মানের করে দিয়েছি।’

সরকার প্রধান বলেন, ‘বঙ্গবন্ধু হত্যাকাণ্ডের মাধ্যমে আমরা আপনজন হারিয়েছি ঠিকই কিন্তু বাংলাদেশ কি হারিয়েছিল? একের পর এক ক্যু হয়েছে। কত সামরিক কর্মকর্তা, সৈনিককে জীবন দিতে হয়েছে। অনেক পরিবার এখনো তাদের আপনজনের খোঁজও পায়নি। পাশাপাশি রাজনৈতিক নেতাদের ওপর অত্যাচার ও নির্যাতন। সেই সঙ্গে বাংলাদেশ যে আদর্শ নিয়ে স্বাধীন হয়েছিল, তা থেকে বিচ্যুত হয়। দেশের অগ্রযাত্রা থেমে যায়, যা কখনো হওয়ার কথা না।’

১৯৯৬ সালে আওয়ামী লীগ সরকারে আসার পর সশস্ত্র বাহিনীকে আধুনিকায়নের জন্য তৎকালীন সরকারের বিভিন্ন কর্মকাণ্ড তুলে ধরেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। মানুষের কর্মসংস্থান সৃষ্টির জন্য বেসরকারি খাতকে তখন সরকার উন্মুক্ত করে দিয়েছিল বলে জানান প্রধানমন্ত্রী।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘পাঁচটি বছর আমরা ক্ষমতায় ছিলাম। অন্তত এইটুকু দাবি করতে পারি, সেটা বাংলাদেশের জন্য স্বর্ণযুগই ছিল। মানুষের মনে একটা আশার প্রদীপ জ্বলে উঠেছিল যে, তাঁরাও সুন্দরভাবে বাঁচতে পারবে। সরকার যে জনগণের সেবক সেটাই আমরা প্রমাণ করেছিলাম।’

২০০৯ সাল থেকে দীর্ঘ সময় সরকারের থাকার সুফল দেশের জনগণ পাচ্ছে জানিয়ে শেখ হাসিনা বলেন, ‘বাংলাদেশকে শুধু উন্নয়ন করা না, উন্নয়নশীল দেশের মর্যাদায় উন্নীত করতে সক্ষম হয়েছি। যেটা ২০০৮ সালের নির্বাচনী ইশতেহারে ঘোষণা ছিল। সেই সুনির্দিষ্ট কাজ করছি বলেই এটা সম্ভব হয়েছে।’

সশস্ত্র বাহিনী দেশের স্বাধীনতা ও সার্বভৌমত্ব রক্ষার প্রতীক জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, দেশের মানুষ এই সম্পর্কে যেন জ্ঞান অর্জন, জানতে ও উপলব্ধি করতে পারে যে, আমাদের সশস্ত্র বাহিনী কি কাজ করে? কীভাবে চলে বা অতীতে তাঁরা কি করছেন, এটা মানুষকে জানানো দরকার। বিশেষ করে মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস জানা। সেই সঙ্গে আমাদের ভবিষ্যৎ কি হচ্ছে সেই সম্পর্কেও জ্ঞান অর্জন একান্ত দরকার।

সামরিক জাদুঘর প্রথমে খুব ক্ষুদ্র পরিসরে নির্মিত হয়েছে জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, বিজয় সরণির পাশে এই জাদুঘরটি প্রস্তুত করা হয়। আমরা আকাঙ্ক্ষা ছিল এটি এমনভাবে তৈরি করা, যেটা খুব একটা আকর্ষণীয় স্থান হবে। তাঁরাই পাশে আরেকটি জায়গায় প্রথমবার সরকারে থাকার সময় আমরা প্ল্যানেটারিয়াম (নভোথিয়েটার) করে ফেলি।

সামরিক জাদুঘরকে দৃষ্টিনন্দন করে তৈরি করা হয়েছে জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘সারা বিশ্বে যত সামরিক জাদুঘর রয়েছে তার মধ্যে শ্রেষ্ঠ জাদুঘর হিসাবে প্রতিষ্ঠা পায়, সেটাই আমার আকাঙ্ক্ষা ছিল। আমি সত্যিই আনন্দিত যে, যতটুকু ছবি দেখেছি তাতে মনে হয়েছে এটা হবে পৃথিবীর মধ্যে সর্বশ্রেষ্ঠ, সুন্দর, আধুনিক প্রযুক্তি সম্পন্ন একটি সামরিক জাদুঘর। সেভাবে এটা তৈরি হোক। সেটাই আমি চাই।’

প্রধানমন্ত্রী বলেন, সেনা, নৌ ও বিমানবাহিনীর জন্য আলাদা আলাদা জায়গা আছে। যাতে করে প্রতিটি বিষয়ে শিশু, তরুণ বা বয়োবৃদ্ধ যারাই আসবেন, তাঁরা জ্ঞান অর্জন করবেন। সেই সঙ্গে আমাদের সশস্ত্র বাহিনীতে তরুণ প্রজন্মের যোগদান করতে আগ্রহী হবে। স্বাধীনতা ও সার্বভৌমত্ব রক্ষায় তারা উদ্বুদ্ধ হবে। এটাই আমি মনে করি।

সামরিক জাদুঘরে পাশে একটি শিশু পার্ক তৈরি করা হয়েছে বলে জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, এটার পেছনে একটা ইতিহাস আছে। কোন একজন, আমি নাম বলতে চাই না। হয়তো এখন না শুনলে লজ্জা পাবে। তিনি হঠাৎ দাবি করে বসলেন এখানে একটি বহুতল ভবন করবেন। সঙ্গে আমি আমার তৎকালীন সামরিক সচিব জয়নাল আবেদিনকে বললাম এই জায়গায় কিছুতেই বহুতল ভবন করা যাবে না। কারণ তা করতে গেলে সামরিক জাদুঘর ও প্ল্যানেটারিয়াম সম্পূর্ণ নষ্ট হয়ে যাবে। ওখানে আমি শিশু পার্ক করে দেব। সেখানে এখন দৃষ্টিনন্দন শিশু পার্ক হয়ে গেছে। কেউ আর নিতে পারবে না। ওই দালানকোঠা বানাতেও পারবে না।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, দেশের মানুষের বিনোদনের জায়গা খুব সীমিত। সে জন্য আমাদের চেষ্টা থাকে তাদের বিনোদনের ব্যবস্থার। তার সঙ্গে রয়েছে শিক্ষণীয়। নভোথিয়েটারে আমাদের অনেক শিক্ষার্থীরা আসে। অনেক কিছু জানতে পারে। সেই সঙ্গে আমাদের সামরিক জাদুঘরে আসতে পারবে। দেখতে পারবে। ছোট্ট শিশুদের বিনোদনের ব্যবস্থা শিশু পার্কে আছে। সবকিছু মিলিয়ে একটা চমৎকার জায়গা। আমাদের বিজয় সরণি। বিজয় সরণি বিজয়ের স্মৃতি নিয়েই চলবে। সেটাই হচ্ছে বড় কথা।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, প্রথমবার সরকারে এসে পার্বত্য চট্টগ্রামে শান্তিচুক্তি করে সেখানে শান্তি প্রতিষ্ঠা করি। আমরা কিন্তু নিজেরাই করেছি। বাইরের কাউকে হাত দিতে দেয়নি। কারণ এটা আমার নিজের দেশের ভেতরে। অভ্যন্তরীণ ব্যাপার। আমাদের দেশের নাগরিক। তাদের সঙ্গে সমস্যা থাকলে আমরাই সমাধান করতে পারব। সেভাবেই আমরা করতে পেরেছি। একই সঙ্গে ভারতের সঙ্গে গঙ্গা পানি চুক্তি করে ন্যায্য হিস্যা নিয়েছি।

অনুষ্ঠানে আরও বক্তব্য রাখেন সেনাপ্রধান জেনারেল এস এম শফিউদ্দিন আহমেদ, বিমানবাহিনী প্রধান এয়ার চিফ মার্শাল শেখ আব্দুল হান্নান, নৌবাহিনী প্রধান অ্যাডমিরাল এম শাহীন ইকবাল।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

সর্বশেষ

যশোরে গৃহবধূর রহস্যজনক মৃত্যু

নিজস্ব প্রতিবেদক: যশোরে সুমাইয়া খাতুন নামে এক গৃহবধূর রহস্যজনক মৃত্যু হয়েছে। তার ঝুলন্ত মরদেহ...

ঝিকরগাছায় সখিনা হত্যার দায় স্বীকার প্রেমিকের

নিজস্ব প্রতিবেদক: যশোরের ঝিকরগাছায় সখিনাকে হত্যার কথা স্বীকার করে আদালতে জবানবন্দি দিয়েছে তার প্রেমিক...

শেখ হাসিনার ৪২তম স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবসে বিভিন্ন স্থানে কর্মসূচি পালিত 

কল্যাণ ডেস্ক: বঙ্গবন্ধু কন্যা আওয়ামী লীগ সভানেত্রী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ৪২তম স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবসে...
00:03:13

যশোরে বাপ্পি খুনের আসামিরা দুই সপ্তাহেও আটক হয়নি

নিজস্ব প্রতিবেদক: যশোর সদর উপজেলার ভায়না গ্রামের বাপ্পি হাসান (১৯) নামে এক তরুণ খুনের...

পদ্মা সেতুর টোল নির্ধারণে প্রজ্ঞাপন

কল্যাণ ডেস্ক: বহুল প্রত্যাশিত পদ্মা সেতুর ওপর দিয়ে চলাচলকারী যানবাহনের টোল নির্ধারণ করে প্রজ্ঞাপন...

বঙ্গবন্ধু জাতীয় গোল্ডকাপ ফুটবল টুর্নামেন্ট পৌরসভা ও দোহাকুলা ইউনিয়ন ফাইনালে 

বাঘারপাড়া (যশোর) প্রতিনিধি: উপজেলা পর্যায়ে মঙ্গলবার বাঘারপাড়ায় বঙ্গবন্ধু জাতীয় গোল্ডকাপ ফুটবল টুর্নামেন্টের সেমিফাইনাল পর্বের...