Sunday, May 22, 2022

জীবননগরে কৃষকের স্বপ্ন ভেঙে গেছে

প্রবল বর্ষণে ক্ষতির পরিমাণ ১০ কোটি টাকার ক্ষতি

জীবননগর (চুয়াডাঙ্গা) প্রতিনিধি
ঘূর্ণিঝড়ের প্রভাবে তিনদিনের টানা ভারী বর্ষণে চুয়াডাঙ্গার জীবননগর উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় ফসলের ক্ষেত তলিয়ে গেছে। ভেসে গেছে পুকুরের মাছ। এরফলে চরম ক্ষতিরমুখে পড়েছেন চাষি। তাদের স্বপ্ন ভেঙে তছনছ হয়ে গেছে। হতাশায় ভেঙে পড়েছে কৃষক।

উপজেলা কৃষি বিভাগ এখনও ক্ষতির পরিমাণ নির্ণয় করতে না পারলেও ব্যাপক ক্ষতির আশঙ্কা করেছেন সংশ্লিষ্ট বিভাগের কর্মকর্তারা।

ক্ষতিগ্রস্ত চাষিদের অনেকে জানিয়েছেন, জীবননগরে চলতি মৌসুমের আমন ধান ঘরে তুলতে পারিনি। শত শত বিঘা জমির ধান মাঠে পড়ে রয়েছে। অন্যদিকে কয়েক হাজার হেক্টর জমিতে আলুসহ শীতকালীন সবজির আবাদ হয়েছে। এসব ফসল নিয়ে কৃষকদের স্বপ্ন ছিল অনেক। কিন্তু সেই স্বপ্ন পানিতে ভেসে গেছে।
এদিকে প্রবল বর্ষণে হাজার হাজার বিঘা আলু, সরিষা, মসুরি, লাল শাক, মিষ্টি কুমড়া, পেঁয়াজ, মুলা, ফুলকপি, বাঁধাকপি, পালং শাকের ক্ষেতে এখন হাঁটু পানির নিচেই। পুকুর ও ইরি-বোরোর বীজতলা পানিতে ভেসে গেছে। জীবননগর পৌর এলাকার প্রায় সব ওয়ার্ডে জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হয়েছে। প্রবল বর্ষণের ফলে উপজেলার সবক’টি ইটভাটায় ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে বলে জানা গেছে।

জীবননগর পৌর এলাকার রাজনগর গ্রামের আহাদ আলী বলেন, চলতি মৌসুমে আমি এক বিঘা জমিতে মসুর ও এক বিঘা জমিতে সরিষার আবাদ করেছিলাম। কিন্তু ভারী বর্ষণে তলিয়ে গেছে। একই গ্রামের প্রান্তিক কৃষক আক্তার হোসেন বলেন, আমার আড়াই বিঘা জমির ধান বৃষ্টির একদিন আগে কেটে জমিতেই রেখেছিলাম। কিন্তু সেই ধান এখন জমিতে পানিতে ভাসছে।

আশা-ভরসা সব শেষ হয়ে গেছে উল্লেখ করে তিনি বলেন, এই ক্ষতি পুষিয়ে নেয়া সম্ভব না। পানি সরে গেলেও অনেক ধান ঝরে পড়বে। তাতে ধান তোলা খরচই হবে না।
দৌলৎগঞ্জের আলী কদর আলী বলেন, আমার এক বিঘা জমির মসুর ও ১২ কাঠা জমির সরিষা পানিতে তলিয়ে গেছে। সেখান থেকে আর কিছুই পাওয়া যাবে না।
উপজেলার শ্রীরামপুর গ্রামের সাইদুর রহমান বলেন, আমার দু’বিঘা জমির পুকুরের মাছ ভেসে গেছে। এ অবস্থায় আমার পরিবার-পরিজন নিয়ে পথে বসতে হবে।

জীবননগর উপজেলা উপ-সহকারি কৃষি কর্মকর্তা দেলোয়ার হোসেন বলেন, বৃষ্টিপাতে ধান ও আলুসহ শীতকালীন সব ধরণের সবজি আবাদ আক্রান্ত হয়েছে। তবে দ্রুত পানি সরে গেলে ফসলের খুব বেশি ক্ষতি হবে না। পানি দ্রুত অপসারিত না হলে মাটিতে হেলে পড়া ধানের চেয়ে কেটে রাখা ধানের বেশি ক্ষতি হবে।
জীবননগর উপজেলার মনোহরপুর ইউনিয়ন পরিষদের প্যানেল চেয়ারম্যান আহসান হাবিব রিপন বলেন, পানিতে এলাকার কৃষকদের যে পরিমাণে ক্ষতি হয়েছে তা কোন ভাবেই পুঁষিয়ে দেয়া সম্ভব নয়। এবারের অবিরাম বর্ষণে উপজেলায় ১০ কোটিরও বেশী টাকার ক্ষতির সম্ভবানা রয়েছে।

উপজেলা কৃষি অফিসার সারমিন আক্তার বলেন, ঘুর্ণিঝড়ের প্রভাবে সৃষ্ট নি¤œচাপে প্রবল বৃষ্টিপাতে আমন ধান ছাড়াও শীতকালীন আগাম জাতের সবজি এবং আগাম আলুর ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। জমি থেকে দ্রুত পানি অপসারণ করা গেলে সবজির ক্ষতির আশঙ্কা খুব কম। মুলা জাতীয় সবজি নষ্ট হয়ে যেতে পারে। যেসব কৃষক আগাম আলু লাগিয়েছেন, তাদের আলু নষ্ট হয়ে যাওয়ার আশঙ্কা রয়েছে। বৃষ্টির কারণে উপজেলায় কি পরিমাণ ফসলের ক্ষতি হয়েছে তা মাঠ পর্যায়ে নিরুপণ শুরু হয়েছে। ক্ষতির পরিমাণ নির্ধারণ করতে আরো ২-৩ দিন সময় লাগবে। বেশি ক্ষতির শিকার যারা হয়েছেন, তাদের ক্ষতি কিছুটা হলেও পুষিয়ে দেয়ার চেষ্টা করবো।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

সর্বশেষ

যশোরে সন্ত্রাসীদের বর্বর নির্যাতনে যুবকের মৃত্যু

নিজস্ব প্রতিবেদক: যশোরে সন্ত্রাসীদের বর্বর নির্যাতনে এক যুবকের মৃত্যুর অভিযোগ উঠেছে। আজ রোববার (২২...

যশোরে অর্ধগলিত ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার

নিজস্ব প্রতিবেদক: রাসেল হোসেন (২৪) নামে এক যুবকের অর্ধগলিত ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। আজ...

কোন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানই এভাবে চলতে পারে না

যশোরের মণিরামপুর উপজেলার জোকা কোমলপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক নবিরুজ্জামান বিদ্যালয়ে যান না...

ভোরের ঝড়ে লণ্ডভণ্ড যশোরাঞ্চল

উপড়ে পড়েছে গাছপালা ভেঙে গেছে বাড়িঘর-বিদ্যুতের খুঁটি অশনির আঘাত না কাটতেই কৃষকের ঘরে কালো থাবা শাহারুল...

যশোর প্রিমিয়ার ডিভিশন ক্রিকেট আরএন রোডের জয় ছিনিয়ে নিল হাসানুর

নিজস্ব প্রতিবেদক: শনিবার সকালে যশোর অঞ্চলের উপর দিয়ে বয়ে যাওয়া কালবৈশাখী দমকা হাওয়া শামস্-উল-হুদা...

সুজলপুরে দুই বন্ধুকে মারপিটের অভিযোগ

নিজস্ব প্রতিবেদক: পূর্বশত্রুতার জের ধরে যশোর শহরতলীর সুজলপুরে সাকিব (২৫) ও নাহিদ (২৩) নামে...