Tuesday, August 16, 2022

জেএসসির সার্টিফিকেটে বয়স ১৯ হলেও মামলায় ১৬: র‍্যাব

কল্যাণ ডেস্ক: শিক্ষক উৎপল কুমার সরকারকে হত্যার ঘটনায় করা মামলার আসামি দশম শ্রেণির ছাত্রের বয়স জেএসসি পরীক্ষার সনদ অনুযায়ী ১৯ বছর। কিন্তু মামলার এজাহারে তার বয়স ১৬ বলে উল্লেখ করা হয়েছে।

আজ বৃহস্পতিবার দুপুরে রাজধানীর কারওয়ান বাজার র‍্যাবের মিডিয়া সেন্টারে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এ কথা বলেন র‍্যাবের লিগ্যাল অ্যান্ড মিডিয়া উইংয়ের পরিচালক কমান্ডার খন্দকার আল মঈন।

গতকাল বুধবার র‍্যাব সদর দপ্তরের গোয়েন্দা শাখা, র‍্যাব-১ ও ৪ যৌথ অভিযানে গাজীপুরের শ্রীপুর এলাকা থেকে দশম শ্রেণির ঘাতক ছাত্রকে গ্রেপ্তার করেছে।

গত রোববার আশুলিয়া থানায় উৎপল কুমারের ভাই অসীম কুমার সরকারের করা মামলায় আসামির বয়স ১৬ বলে উল্লেখ করা হয়। ওই ছাত্রের ২০২০ সেশনের বাংলাদেশ মাদ্রাসা শিক্ষা বোর্ডের জুনিয়র দাখিল সার্টিফিকেট পরীক্ষার রেজিস্ট্রেশন কার্ডের কপি রয়েছে। এতে তার জন্ম ২০০৩ সালের ১৭ জানুয়ারি লেখা। এ হিসাবে আজ ৩০ জুন তার বয়স হয় ১৯ বছর ৫ মাস ১৩ দিন।

আজ সংবাদ সম্মেলনে র‍্যাব কর্মকর্তা খন্দকার আল মঈন বলেন, ওই ছাত্রকে প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদের ভিত্তিতে জানা গেছে, স্কুলের এক ছাত্রীকে সঙ্গে নিয়ে সে অযাচিতভাবে ঘোরাফেরা করছিল। এ ধরনের আচরণ থেকে ছাত্রকে বিরত থাকতে বলেছিলেন শিক্ষক উৎপল কুমার সরকার। এতে ওই ছাত্র ক্ষুব্ধ হয়ে ছাত্রীর কাছে হিরোইজম দেখাতে শিক্ষক উৎপলের ওপর হামলার পরিকল্পনা করে।

২৫ জুন স্কুলে ছাত্রীদের ক্রিকেট টুর্নামেন্ট চলাকালে শিক্ষক উৎপল কুমার সরকারকে স্টাম্প দিয়ে এলোপাতাড়ি পিটিয়ে আহত করে দশম শ্রেণির ওই ছাত্র। হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় উৎপল মারা যান। ঘটনার পরপরই ওই ছাত্র পালিয়ে যায়। সে দেশের বিভিন্ন স্থানে আত্মগোপনে ছিল।

সংবাদ সম্মেলনে র‍্যাব কর্মকর্তা খন্দকার আল মঈন বলেন, পূর্বপরিকল্পনা অনুযায়ী ২৫ জুন ওই ছাত্র ক্রিকেট স্টাম্প নিয়ে স্কুলে আসে। শ্রেণিকক্ষের পেছনে সেটি লুকিয়ে রাখে। কলেজের মাঠে ছাত্রীদের ক্রিকেট টুর্নামেন্ট চলাকালে শিক্ষক উৎপল কুমারকে মাঠের এক কোণে একা দাঁড়িয়ে থাকতে দেখে স্টাম্প দিয়ে অতর্কিতভাবে বেধড়ক আঘাত করে। ওই ছাত্র শিক্ষক উৎপলকে প্রথমে পেছন থেকে মাথায় আঘাত করে। পরে শরীরের বিভিন্ন স্থানে আঘাত করে। হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় পরদিন উৎপল কুমার মারা যান।

র‍্যাবের এই কর্মকর্তা বলেন, ঘটনার দিন সন্ধ্যা পর্যন্ত ওই ছাত্র এলাকায় অবস্থান করে। পরবর্তী সময়ে গ্রেপ্তারের আশঙ্কায় এলাকা ছাড়ে। প্রথমে বাসযোগে মানিকগঞ্জে তার এক আত্মীয়ের বাড়িতে গিয়ে রাত্রিযাপন করে। পরদিন সে তার অবস্থান পরিবর্তন করে আরিচা ফেরিঘাটে পৌঁছায় এবং ট্রলারযোগে নদী পার হয়ে পাবনার আতাইকুলাতে তার এক পরিচিতের বাড়িতে আত্মগোপন করে।

পরদিন ভোরে সে আবারও তার অবস্থান পরিবর্তন করার জন্য আতাইকুলা থেকে বাসে কাজিরহাট লঞ্চ টার্মিনালে যায়। এরপর লঞ্চে আরিচাঘাট পৌঁছায়। সেখান থেকে বাসে গাজীপুরের শ্রীপুরে ধনুয়া গ্রামে এক বন্ধুর বাড়িতে আত্মগোপন করে। সেখান থেকেই ওই ছাত্রকে গ্রেপ্তার করে র‍্যাব।

ওই ছাত্র শিক্ষাজীবনে বিরতি দিয়ে প্রথমে স্কুল, পরে মাদ্রাসা ও সর্বশেষ পুনরায় স্কুলে ভর্তি হয় বলে সংবাদ সম্মেলনে জানান র‍্যাব কর্মকর্তা। তিনি বলেন, ওই ছাত্র স্কুলে নবম শ্রেণিতে ভর্তি হয়। তার বিরুদ্ধে বিভিন্ন সময় শৃঙ্খলাভঙ্গ, মারামারিসহ স্কুলের পরিবেশ নষ্ট করার অভিযোগ রয়েছে।

র‍্যাব কর্মকর্তা বলেন, ‘স্কুলে যাওয়া-আসার পথে ও স্কুল চলাকালে ছাত্রীদের ইভ টিজিং ও বিরক্ত করত ওই ছাত্র। স্কুল প্রাঙ্গণে সবার সামনে ধূমপান, ইউনিফর্ম ছাড়া স্কুলে আসা-যাওয়া, মোটরসাইকেল নিয়ে বেপরোয়াভাবে চলাফেরা করত।’

ওই ছাত্রের নেতৃত্বে ‘দাদা’ নামে একটি কিশোর গ্যাং গড়ে ওঠে বলে সংবাদ সম্মেলনে জানায় র‍্যাব। র‍্যাব বলেছে, গ্যাং সদস্যদের নিয়ে মাইক্রোবাসে করে ওই ছাত্র যত্রতত্র আধিপত্য বিস্তার করত। পরিবারের কাছে তার বিরুদ্ধে কেউ অভিযোগ করলে গ্যাং সদস্যদের সঙ্গে নিয়ে তাদের ওপর চড়াও হতো।

আল মঈন আরো বলেন, নিহত শিক্ষক উৎপল কুমার চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় থেকে রাষ্ট্রবিজ্ঞানে স্নাতকোত্তর সম্পন্ন করে ২০১৩ সালে আশুলিয়ার হাজী ইউনুছ আলী স্কুল অ্যান্ড কলেজের রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগের প্রভাষক হিসেবে যোগদান করেন।

উৎপল কুমার ওই কলেজের শৃঙ্খলা কমিটির সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব পালন করছিলেন। এর ফলে তিনি বিভিন্ন সময়ে শিক্ষার্থীদের স্কুল ইউনিফর্ম, চুল কাটা, ধূমপান করা, ইভ টিজিংসহ বিভিন্ন নিয়ম-শৃঙ্খলা ভঙ্গজনিত বিষয়ে পরামর্শ দিতেন। তিনি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের খেলাধুলা পরিচালনা করাসহ শিক্ষার্থীদের সুপরামর্শ, মোটিভেশন ও কাউন্সেলিংয়ের মাধ্যমে সৃজনশীলতা বিকাশে ভূমিকা রাখতেন।

ওই ছাত্রের বাবাকে গ্রেপ্তারের পর রিমান্ডে নেওয়া প্রসঙ্গে জানতে চাইলে আল মঈন বলেন, তদন্তের স্বার্থে তাঁকে রিমান্ডে নেওয়া প্রয়োজন।

ওই ছাত্রের পরিবার শিক্ষকের পরিবারকে হুমকিধমকি দিচ্ছে কি না, জানতে চাইলে আল মঈন বলেন, ‘আমরা উৎপলের পরিবারের সঙ্গে কথা বলেছি। কিন্তু এমন কোনো হুমকিধমকির বিষয়ে তথ্য পাইনি।’

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

সর্বশেষ

দেশের উন্নয়নে শেখ হাসিনার বিকল্প নেই : এমপি নাবিল

নিজস্ব প্রতিবেদক : যশোর-৩ আসনের সংসদ সদস্য কাজী নাবিল আহমেদ বলেছেন, দেশের মানুষের জন্য যা...

প্রেমবাগে শতাধিক নারীকে ফ্রি চিকিৎসা দিলেন ডা. নিকুঞ্জ

নিজস্ব প্রতিবেদক : যশোরের অভয়নগর উপজেলার প্রেমবাগ ইউনিয়নের দুস্থ ও অসহায় নারী রোগীদের বিনামূল্যে চিকিৎসাসেবা...

নওয়াপাড়ায় ৬০ অবৈধ ঘাটের মধ্যে উচ্ছেদ ৪৭

কামরুল ইসলাম, অভয়নগর : নওয়াপাড়া নৌবন্দরে অবৈধ ঘাট উচ্ছেদ অভিযানের তৃতীয় দিনে ১৮ টি অবৈধ...

যশোরে ১০ লাখ টাকা না দেয়ায় মামলা দিয়ে হয়রানি

নিজস্ব প্রতিবেদক : মঙ্গলবার প্রেসক্লাব যশোরে চাঁচড়া পুলিশ ফাঁড়ির সাবেক ইনচার্জ ইন্সপেক্টর রোকিবুজ্জামানের বিরুদ্ধে সংবাদ...

গার্ডার দুর্ঘটনা : চীনা ঠিকাদারের দায় মিলল তদন্তে, চুক্তি বাতিলের চিন্তা

কল্যাণ ডেস্ক : নিরাপত্তা নিশ্চিত না করা পর্যন্ত বাস র‌্যাপিড ট্রানজিট (বিআরটি) প্রকল্পের কাজ বন্ধ...

যশোরে মোটরসাইকেল থেকে ছিটকে পড়ে প্রাণ গেলো তরুণের

নিজস্ব প্রতিবেদক : যশোরের খাজুরায় চলন্ত মোটরসাইকেল থেকে ছিটকে পড়ে আরিফ হোসেন (১৮) নামে এক...