Wednesday, May 25, 2022

ডা. আব্দুর রাজ্জাক কলেজ
বিধিবহির্ভূত আর্থিক সুবিধা নিচ্ছেন অধ্যক্ষ ও উপাধ্যক্ষ

কল্যাণ রিপোর্ট
যশোর শহরের ডাক্তার আব্দুর রাজ্জাক মিউনিসিপ্যাল কলেজের অধ্যক্ষ ও উপাধ্যক্ষ বিধি উপেক্ষা করে আর্থিক সুবিধা ভোগ করেছেন।

কলেজ গভর্নিং বডির সভাপতি যশোরের জেলা প্রশাসক বরাবর তিনজন শিক্ষকের দেয়া অভিযোগে উল্লেখ করা হয়েছে, অধ্যক্ষ জেএম ইকবাল হোসেন সমাজকর্ম বিষয়ের এমপিওভুক্ত প্রভাষক ছিলেন। তিনি তার ওই বিষয়ের এমপিও বহাল রেখে অনৈতিক পন্থায় উপাধ্যক্ষ পদে নিয়োগ নেন। সমাজকর্ম বিষয়ের প্রভাষক পদ থেকে পদত্যাগ না করে একইসাথে ওই পদের সরকারি বেতনভাতা গ্রহণ করতে থাকেন। এরপর ফের অনৈতিক পন্থায় তিনি অধ্যক্ষ পদ বাগিয়ে নেন। এই পদে এমপিওভুক্তির পূর্ব পর্যন্ত সমাজকর্ম বিষয়ের এমপিও পদের সমস্ত বেতন-ভাতা উত্তোলন করেন। যা রীতিমতো আর্থিক অনিয়ম। এছাড়া, যখন তিনি অধ্যক্ষ পদে নিয়োগ পান তখন তার অভিজ্ঞতা বিধি মোতাবেক পূরণ ছিল না।

জেএম ইকবাল হোসেন অধ্যক্ষ হওয়ার পর উপাধ্যক্ষ হিসেবে ইংরেজির এমপিওভুক্ত প্রভাষক মনজুরুল ইসলামকে নিয়োগ দেন। ২০১৫ সালের ১০ মে উপাধ্যক্ষ পদে যোগদান করলেও অদ্যাবধি তিনি ইংরেজি বিষয়ের প্রভাষকের পদ ত্যাগ না করে সরকারি বেতনভাতা গ্রহণ করে যাচ্ছেন। একইসাথে উপাধ্যক্ষ হিসেবে কলেজের সকল সুযোগ সুবিধা ভোগ করে আসছেন তিনি। অথচ ইংরেজি বিষয়ের এমপিও পদও জনবল কাঠামোর বাইরে। কারণ এইচএসসি এমপিওভুক্ত কলেজে একটি বিষয়ে একজন শিক্ষক এমপিওভুক্ত হতে পারবেন। তার নিয়োগের পূর্বেই ইংরেজি বিষয়ে একজন শিক্ষক এমপিওভুক্ত ছিলেন। এই অবস্থায় মনজুরুল ইসলাম নিয়মনীতি উপেক্ষা কওে সম্পূর্ণ অনৈতিক পন্থায় তার এমপিও করান।

বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের (স্কুল ও কলেজ) জনবলকাঠামো ও এমপিও নীতিমালা-২০২১ এর ১১.১৭ ধারায় উল্লেখ রয়েছে, ‘এমপিওভুক্ত কোনো শিক্ষক-কর্মচারী একইসাথে একাধিক কোনো পদে/চাকরিতে বা আর্থিক লাভজনক কোনো পদে নিয়োজিত থাকতে পারবেন না। এটি তদন্তে প্রমাণিত হলে সরকার এমপিও বাতিলসহ দায়ী ব্যক্তি/ব্যক্তিবর্গের বিরুদ্ধে বিধিমোতাবেক শাস্তিমূলক ব্যবস্থা গ্রহণ করতে পারবে।’

১১.১৮ ধারায় উল্লেখ রয়েছে, ‘এমপিওভুক্ত কোনো শিক্ষক-কর্মচারী প্রতিষ্ঠান পরিবর্তন বা উচ্চতর পদে যোগদান করলে যোগদানের তারিখ থেকে পূর্ববর্তী পদের বেতন-ভাতা উত্তোলন করতে পারবেন না।’ অথচ উপাধ্যক্ষ এসব বিধি লঙ্ঘন করে সরকারি বেতন-ভাতা উত্তোলন করেই যাচ্ছেন। তিনি সর্বশেষ গত পহেলা নভেম্বর রূপালী ব্যাংক. এমকে রোড শাখা, যশোর থেকে ৩৩ হাজার দুশ’ ৩৪ টাকা উত্তোলন করেছেন। যার বেতন বিলের ক্রমিক নম্বর ২০। একইসাথে তিনি কলেজের অভ্যন্তরীণ আয় থেকে নিয়মিত আর্থিক সুবিধা নিচ্ছেন, যেখানে তার ক্রমিক নম্বর ২।

কলেজের পদার্থবিদ্যার প্রভাষক আব্দুল গফুর ও ম্যানেজমেন্টের প্রভাষক রফিকুল ইসলামকে নিয়োগ দেয়া হয়েছে অনৈতিক পন্থায়। শিক্ষক নিবন্ধন সনদ ছাড়াই নিয়োগ দেয়া হয়েছে রসায়ন বিষয়ের প্রভাষক মুশফিকুর রহমানকে। এসব বিষয়ে প্রতিকারের জন্য গত ৮ নভেম্বর কলেজের ইংরেজির প্রভাষক আমিনুর রহমান, ইতিহাসের প্রভাষক মনিরুজ্জামান ও হিসাববিজ্ঞানের প্রভাষক জয়দেব কুমার মজুমদার জেলা প্রশাসক বরাবর আবেদন করেছেন।

এ বিষয়ে উপাধ্যক্ষ মনজুরুল ইসলাম বলেন, আপনি কলেজে আসেন। এটি গভর্নিং বডির ডিসিশন। অভিযোগ সঠিক না।

অধ্যক্ষ জেএম ইকবাল হোসেনকে এ বিষয়ে জানতে ফোন করলেও তিনি তা রিসিভ করেননি।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

সর্বশেষ

চুকনগর গণহত্যা জেনোসাইড হিসাবে জাতিসংঘের স্বীকৃতি চাই

কাজী বর্ণ উত্তম: চলুন ফিরে যাই সেই ১৯৭১ সালে। চারিদিকে অন্ধকার অনিশ্চয়তা, নিজের বসত...

যশোরে দিবালোকে ব্যবসায়ীর আড়াই লক্ষাধিক টাকা ছিনতাই

নিজস্ব প্রতিবেদক: যশোর শহরের মুজিব সড়কে দুই নম্বর আইনজীবী ভবনের সামনে গতকাল দুপুর পৌনে...

মিথিলার প্রেমে পড়ার ‘গুঞ্জন’!

বিনোদন ডেস্ক: গায়ক ও অভিনেতা তাহসান খানের সঙ্গে বিবাহ বিচ্ছেদের পর একসঙ্গে কাজ করতে...

খুলনায় ধর্ষণ মামলা আসামি ২ দিনের রিমান্ডে

খুলনা ব্যুরো: খুলনার বটিয়াঘাটায় নারীকে ধর্ষণের অভিযোগে গ্রেপ্তার বাবুল আলীকে ২ দিনের রিমান্ডে নিয়েছে...

যুদ্ধাপরাধী আমজাজ হোসেন মোল্লার বিরুদ্ধে সাক্ষ্য দিলেন তদন্ত কর্মকর্তা

নিজস্ব প্রতিবেদক: আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালে আইসিটি বিডি কেস নং - ১০/২০১৮ সংক্রান্তে যশোর জেলার...

যশোরে পৃথক সড়ক দুর্ঘটনায় ভারতীয় কিশোরসহ নিহত ৩

নিজস্ব প্রতিবেদক: ভারত থেকে যশোরের কেশবপুরে মামা বাড়িতে বেড়াতে আসার সময় ট্রাক চাপায় এক...