নির্বাচনী সহিংসতা : বাঘারপাড়ার রায়পুরে বঙ্গবন্ধু ও প্রধানমন্ত্রীর ছবি ভাংচুর ঘটনায় মামলা

ভাংচুর ঘটনায় মামলা

কল্যাণ রিপোর্ট
নির্বাচনী সহিংসতায় বাঘারপাড়ার রায়পুরে নৌকার অফিসে হামলা, বঙ্গবন্ধু ও প্রধানমন্ত্রীর ছবি ভাংচুরের অভিযোগে নবনির্বাচিত চেয়ারম্যান মঞ্জুর রশীদ স্বপনসহ ১৯ জনকে আসামি করে আদালতে একটি মামলা হয়েছে।

বৃহস্পতিবার রায়পুর গ্রামের মৃত হাজী মোহাম্মদ আলী মোল্লার ছেলে পরাজিত চেয়ারম্যান প্রার্থী ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারন সম্পাদক বিল্লাল হোসেন এ মামলা করেছেন। সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতের বিচারক গৌতম মল্লিক অভিযোগটি গ্রহণ করে বাঘারপাড়া থানার ওসিকে তদন্ত করে প্রতিবেদন জমা দেয়ার আদেশ দিয়েছেন।

আসামিরা হলেন নজরুল ইসলাম, ইউনুচ আলী শেখ, মুজাহার আলী, রিপন হোসেন, সোহেল শেখ, কাদের শেখ, পলাশ হোসেন, মোস্তফা শেখ, টোকন শেখ, টিপু শেখ, আয়ুব হোসেন, আজগর আলী, বাবলুর রহমান, আলম খা, ছবুর হোসেন, কামাল হোসেন, কামরুল ইসলাম ও সবুজসহ অপরিচিত আরও ৫০-৬০ জন।

মামলার অভিযোগে জানা গেছে, গত ২৮ নভেম্বর রায়পুর ইউপি নির্বাচনে নৌকা প্রতিকের প্রার্থী বিল্লাল হোসেন নেতা কর্মীদের নিয়ে তার বাড়ির নিচতলায় নির্বাচনী অফিসে বসে ফলাফল সংগ্রহ করছিলেন। সন্ধ্যায় নির্বাচনের চূড়ান্ত ফলাফল ঘোষণার আগমুহূর্তে স্বতন্ত্র প্রার্থী মঞ্জুর রশীদ স্বপন গলায় ফুলের মালা নিয়ে বিজয় মিছিল বের করেন। একপর্যায় মিছিল সহকারে আসামিরা পাইপগান, হকিস্টিক, লোহার রড ও লাঠি নিয়ে রায়পুর বাজারে নৌকার নির্বাচনী অফিস ও ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে হামলা চালায়। এ সময় নৌকা বিরোধী শ্লোগান দিয়ে বঙ্গবন্ধু এবং প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ছবি, আসবাবপত্র ভাংচুর করে। একই সাথে প্রধানমন্ত্রীকে নিয়ে অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করতে থাকে আসামিরা। এর মধ্যে বিল্লালকে নেতা কর্মীরা উদ্ধার করে বাড়ির তিনতলায় নিয়ে যায়। আসামিরা বিল্লালের অফিসের পাঁচ লাখ টাকার মালামাল ভাংচুর করে ক্ষতি ও ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের টেবিল বক্সে রাখা ৩ লাখ ২৫ হাজার টাকা নিয়ে যায়। এ ব্যাপারে থানায় মামলা করতে গেলে পুলিশ মামলা নিতে তালবাহানা করায় তিনি আদালতে এ মামলা করেছেন।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে