Sunday, May 29, 2022

পিঠা-পুলি
শীত এলেই পিঠার ব্যবসা জমজমাট

আব্দুল্লাহ সোহান, মণিরামপুর: মাটির চুলা জ্বলছে, চুলার ওপরে বসানো হয়েছে খোলা। একটু পরপর খোলার ঢাকনা তুলে কড়াইতে তুলে দিচ্ছেন চালের গুড়ার গোলা। কয়েক মিনিট রেখেই গরম গরম চিতই পিঠা নামিয়ে প্লেট ধরিয়ে ক্রেতাদের হাতে দিচ্ছেন। প্লেটের এক পাশে দেয়া হচ্ছে পছন্দ মতো সরিষা ভর্তা, ধনে পাতা ভর্তা, মরিচ ভর্তা ও চিংড়ি মাছের ভর্তা। এমন দৃশ্য মিললো মণিরামপুর পৌরসভার মোহনপুর পোস্ট অফিস পাড়ায়।

মোহনপুরে শীত এলেই যেন আয়ের পথ খুলে যায় এ মৌসুমি পিঠা বিক্রেতাদের। প্রতিদিন বিকেল থেকে রাত অবধী চলে পিঠা তৈরির কাজ। পিঠা তৈরি করে বিক্রি থেকে আয় হয় ৪০০ টাকা থেকে ৫০০ টাকা।

পিঠা বিক্রেতা রুকসানা বলেন, আমরা নিম্ন আয়ের মানুষ, আর্থিকভাবে তেমন স্বচ্ছল নই। শীত মৌসুম এলেই স্বল্প পুঁজি নিয়ে বাড়তি আয়ের আশায় পিঠা বিক্রি করি। এই পিঠা বিক্রি করি শীতের তিন থেকে চার মাস যাবত। এ কাজে আমার স্বামী আমাকে সহযোগিতা করে। সেও মাঝে মধ্যে আমাকে পিঠা বিক্রি করতে সাহায্য করে।
একাধিক পিঠা বিক্রেতার সাথে আলাপ করে জানা গেছে, শীতের রাতে গরম গরম পিঠার সাথে পরিচিত মণিরামপুরের সবাই। এখানে চিতই পিঠা খুবই জনপ্রিয়। সন্ধ্যা হওয়ার সাথে সাথে পিঠাপ্রেমীরা ভিড় জমায় পিঠার দোকানে। লাইন দিয়ে পিঠা খায় তারা। কেউ কেউ খেয়ে আবার বাসার লোকজনের জন্য নিয়েও যায়। প্রতিবছর পিঠার দোকান যা শুধু শীত মৌসুমেই বসে। এছাড়াও পৌরশহরের মহিলা কলেজ রোড, বাসস্ট্যান্ডসহ নানা জায়গায় ভ্রাম্যমাণ পিঠা বিক্রির দোকান রয়েছে। এখানে প্রতি পিস চিতই পিঠা বিক্রি হয় ৫, ১০ ও ১৫ টাকা দরে। বিকেল থেকে শুরু হয়ে রাত ১০টা পর্যন্ত চলে পিঠা বিক্রি।

কলেজ ছাত্রী তাসনিয়া রহমান বলেন, বাসায় পিঠা তৈরি করা এখন অনেক কষ্ট। তাই বাজারের পিঠা তার পরিবারের সদস্যদের জন্য কিনে নিয়ে বাসায় যাচ্ছি। খরচও খুব বেশি না। বাড়িতে বানাতে যে কষ্ট আর আর্থিক খরচ, তারচেয়ে এটাই বেস্ট।’

আরেক ক্রেতা আবু মুছা বলেন, ‘সন্ধ্যার পরে হালকা কুয়াশায় প্রচ- ঠান্ডা অনুভব হয়, তখন ভ্রাম্যমাণ এ পিঠার দোকান থেকে আমি পিঠা খেয়ে থাকি। চিতই পিঠা আমার খুব পছন্দ। শীতের সময় দোকানে পাশে দাঁড়িয়ে পিঠা খাওয়ার মজাই আলাদা।’

পিঠা বিক্রেতা রেজাউল করিম বলেন, পেশায় আমি পল্লী বিদ্যুতের মিটার রিডার। অফিসের কাজ শেষে শীতের মৌসুমে প্রতিদিন সন্ধ্যার পরপরই পিঠা বিক্রি করে থাকি। সন্ধ্যা থেকে রাত অবধী ক্রেতা থাকে।

এ ব্যাপারে মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তা মৌসুমি আক্তার বলেন, স্বল্প আয়ের মানুষের শীত এলে কিছু মানুষের আয়ের পথ খোলে। তাই তারা যাতে নির্বিঘেœ ব্যবসা করতে পারে, সে বিষয়ে সকলের সহযোগিতা করা উচিত। আমাদের পক্ষ থেকে সার্বিক সহযোগিতা করা হবে।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

সর্বশেষ

ছাত্রনেতা শাহীর মুক্তির দাবিতে প্রধানমন্ত্রীর কাছে খোলা চিঠি 

নিজস্ব প্রতিবেদক: প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে একটি খোলা চিঠি লিখেছেন যশোর...

খুলনা-কলকাতা রুটে বন্ধন এক্সপ্রেস আজ ফের চালু

নিজস্ব প্রতিবেদক: আজ রোববার থেকে ফের কলকাতা-খুলনা রুটে ‘বন্ধন এক্সপ্রেস’ রেল চলাচল শুরু হবে।...

রসুনের গায়ে আগুন!

সপ্তাহের ব্যবধানে কেজিতে বেড়েছে ৫০ টাকা ক্ষুব্ধ ক্রেতা, স্বস্তিতে নেই কিছু বিক্রেতাও জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক: এবার ভোক্তার...

আনারসের পাতা থেকে সুতা সৃজনশীল কাজে পৃষ্ঠপোষকতা প্রয়োজন

অপার সম্ভাবনার দেশ বাংলাদেশ। কিন্তু হলে কি হবে। সম্ভবনা থাকলেই তো আর আপনা আপনি...

দড়াটানার ভৈরব পাড়ে মাদকসেবীদের নিরাপদ আঁখড়া

নিজস্ব প্রতিবেদক: যশোর শহরের ঘোপ জেলরোড কুইন্স হাসপাতালের পূর্ব পাশে ভৈরব নদের পাড়ে মাদকসেবীদের...

আজকের মধ্যে অবৈধ ক্লিনিক-ডায়াগনস্টিক বন্ধ না হলে ব্যবস্থা

কল্যাণ ডেস্ক: দেশে অনিবন্ধিত ও নবায়নহীন অবস্থায় পরিচালিত অবৈধ বেসরকারি ক্লিনিক ও ডায়াগনস্টিক সেন্টার...