Sunday, May 29, 2022

ফেলো কড়ি মাখো তেল
যশোর পৌরসভার জন্মনিবন্ধন সনদ : অর্থ বাণিজ্য তুঙ্গে

সালমান হাসান/রায়হান সিদ্দিকী: যশোরে আরও বেড়েছে জন্মনিবন্ধনের ডিজিটাল বিড়ম্বনা। দুর্ভোগ ও হয়রানি এখন মাত্রা ছাড়িয়েছে। ভোগান্তি হ্রাসে নিয়ন্ত্রক কর্তৃপক্ষের পদক্ষেপের ঘোষণা প্রহসনে পরিণত হয়েছে। উল্টো ‘ফেলো কড়ি মাখো তেল’ পদ্ধতিতে চলছে যশোর পৌরসভায় জন্মনিবন্ধন প্রক্রিয়া। সার্ভার সমস্যা, ইন্টারনেটের গতি কমসহ নান অজুহাতে ভোগান্তিতে ফেলা হচ্ছে সেবাপ্রত্যাশীদের। আর নামে ভুল হলেতো দুর্গতির শেষ নেই। তিন পুরুষের ‘ঠিকুজি’ সংশোধণে অন্তহীন জটিলতা। তবে টাকায় মেলে এসব কিছুর সমাধান।

‘গরিবের টাকা চুষে খাচ্ছে। টাকা ছাড়া কোন কথা নাই’-ক্ষোভের সুরে বলছিলেন ইয়াসমিন খাতুন। নির্ধারিত ফি’র অতিরিক্ত গুনেও জন্মনিবন্ধন সনদ হাতে এখনও পাননি। ১২০০ টাকার উপর খরচের পরও সনদ নিতে দফায় দফায় পৌরসভায় আসতে হচ্ছে তাকে। সন্তানদের জন্মনিবন্ধনের জন্য দেড় মাস ধরে তিনি যশোর পৌরসভায় ছুটোছুটি করছেন। কিন্তু এখনও সুরাহা হয়নি।

ইয়াসমিন বলেন, ধাপে ধাপে টাকা গুণেছেন। চার সন্তানের জন্মনিবন্ধন সনদ অনলাইন কিনা সেটি জানতে গুনেছেন ৮০ টাকা। একেকটির জন্য নেয়া হয়েছে ২০ টাকা। এছাড়া সনদের আবেদন ফরম লিখতে প্রতিটির জন্য ৫০ টাকা করে গুনেছেন ২০০ টাকা। আর চারটি জন্মসনদের নিবন্ধ ফি-বাবদ খরচ করেছেন ৮০০ টাকা। প্রতিটি সনদের জন্য ২০০ টাকা করে দিতে হয়েছে। এছাড়াও যেদিনই সনদের নিবন্ধন সম্পন্ন হয়েছে কিনা খোঁজ নিতে আসেন রিক্সা ভাড়ায় ব্যয় হয় ৬০ টাকা। বুধবার (২৬ জানুয়ারি) পৌরসভায় সন্তানদের জন্মনিবন্ধন সনদ নিতে এসেও হাতে না পেয়ে এমন হতাশার কথা জানান ওই নারী। তিনি জানান-সনদ পেতে দেড় মাস ধরে এভাবে ঘুরছেন। মোল্লা পাড়া আমতলা থেকে যতবার পৌরসভায় আসেন ৬০ টাকারও বেশি রিক্সা ভাড়া খরচ হয়।

যশোর পৌরসভায় অবস্থান করলে দেখা যায়, বহু মানুষের ভিড়। ভবনের বাইরে, ডিজিটাল সেন্টারের সামনে ও জন্মমৃত্যু নিবন্ধন শাখা জুড়ে মানুষের জটলা লেগেই থাকে। কাগজপত্র হাতে তাদের ছোটাছুটি করতে দেখা যায়। বুধবার পৌরসভায় কয়েক ঘন্টা অবস্থান করলে সনদ নিতে আসা মানুষেরা তাদের দুর্ভোগ-ভোগান্তির কথা জানায়। আলাপচারিতায় তাদের কাছ থেকে প্রাপ্ত তথ্য বলে দেয় জন্মনিবন্ধন ঘিরে প্রতিষ্ঠানটি পরিণত হয়েছে অনিয়ম-দুর্নীতির আঁখড়ায়।

মাধ্যমিক পড়ুয়া এক শিক্ষার্থীর ১০ বছর বয়স বিড়ম্বনা :
যশোর সরকারি মাইকেল মধুসূদন কলেজের উচ্চ মাধ্যমিকের শিক্ষার্থী মাহিম মোস্তফা। ২০০৪ সাল জন্ম হলেও নিবন্ধন সনদে উল্লেখ আছে ২০১০ সাল। ওই বছরের ১৫ আগস্ট তার জন্মতারিখ নিবন্ধন হয়েছে তার জন্মসনদে। ভুল লিপিবদ্ধ করায় ভোগান্তি পোহাচ্ছেন এই শিক্ষার্থী ও তার অভিভাবকরা। আলাপচারিতায় ফাহিমের মা রোকেয়া খাতুন জানান, হাতে লেখা নিবন্ধনে তার ছেলের নাম ও বয়স ভুল ছিলো। আর এটি সংশোধণ করতে সীমাহীন দুর্ভোগ পোহাচ্ছেন। তিনি বলেন, সংশোধিত সনদ পেতে এপর্যন্ত বিভিন্ন টেবিলে ৮৫০ টাকার উপর দিয়েছেন। এছাড়া সনদ সংশোধন হয়েছে কিনা খোঁজ নিতে যতবার আসছেন ততবার রিক্সা ভাড়া গুনছেন। আড়াই মাস ধরে পৌরসভায় ঘোরাঘুরি করেও এখনও নিবন্ধন সদন পাননি। রোকেয়া বলেন, বয়স সংক্রান্ত জটিলতার কারণে তার ছেলে এখনও করোনার ভ্যাক্সিন নিতে পারেনি। উচ্চমাধ্যমিকে পড়া একটা ছেলের বয়স ১২। নিবন্ধনে এমন ভুলের কারণে সহপাঠীরা টিকা পেলেও সে পায়নি। যার জন্য ছেলেটা একধরণের ‘ডিপ্রেশন’ (বিষন্নতায়) ভুগছে।

যত খুশি তত আদায় রশিদ পঞ্চাশের :
যশোর সরকারি কলেজের (সাবেক কর্মাশিয়াল কলেজ) উচ্চমাধ্যমিকের শিক্ষার্থী সুমাইয়া খাতুন বলেন, তার মা শাহানা বেগমের জন্ম নিবন্ধনের জন্য আবেদন ফরম জমা দিয়েছেন। ফরম নেয়ার সময় তার কাছ থেকে ১০০ টাকা নিয়েছেন পৌরসভার জন্মমৃত্যৃ নিবন্ধন শাখা। কিন্তু রশিদ দিয়েছে ৫০ টাকার। তিনি বলেন, রশিদের ৫০ কিন্তু নেয়া হলো ১০০ টাকা এটির কারণে জানতে চাইলে তাকে কথা বলারই কোন সুযোগ দেয়া হয়নি। জহিরুল হক নামে বারান্দী পাড়ার আরেক বাসিন্দা জানান, তার ভাইয়ের জন্মনিবন্ধন সনদের ভুল সংশোধন করতে ২০০ টাকা ফি নেয়া হয়েছে। কিন্তু তাকে ১০০ টাকার রশিদ দেয়া হয়েছে।

সনদ সংগ্রহে আরো যত অভিযোগ :
শংকরপুর জমাদ্দার পাড়া বাসিন্দা ধলু মিয়া হাওলাদার জন্মনিবন্ধন সনদ করতে এসে বিপাকে পড়েন। সকাল ১০ থেকে ১১ টা পর্যন্ত পৌরসভায় অবস্থান করার পরও তিনি বুঝে উঠতে পারেননি কিভাবে কোন প্রক্রিয়ায় সনদের আবেদন করতে হবে। তিনি বলেন, অফিসে (জন্ম-মৃত্যু নিবন্ধন শাখায়) জিজ্ঞেস করলাম কিভাবে জন্মনিবন্ধন নিতে হবে। কেউ কোন কথা বলল না। তবে একজনকে বলতে শুনলাম ৩০০ টাকা খরচ পড়বে।
সনদ নিতে আসা মানুষজনের অনেকে জানিয়েছেন, তাদের অনেকে নিবন্ধন সনদের আবেদন ফরম পূরণ করতে পারেন না। এক্ষেত্রে তার ফরম প্রতি ১০০ টাকা করে দিয়ে সেটি পূরণ করে নিয়েছেন। পৌরসভার স্টাফরা একেকটি ফরম পূরণে ১০০ টাকা নিচ্ছেন বলে-তাদের দাবি।

চলতি মাসের ১৩ জানুয়ারি বৃহস্পতিবার প্রেসক্লাব যশোরে জন্মনিবন্ধনের সমস্যা নিয়ে একটি মিডিয়া ক্যাম্পেইন অনুষ্ঠিত হয়। সেখানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে, জন্মনিবন্ধন ও এর সংশোধণ সনদের কন্ট্রোলিং অথরিটি (নিয়ন্ত্রক কর্তৃপক্ষ) স্থানীয় সরকার বিভাগের যশোর উপপরিচালক হুসাইন শওকত বলেন, আজ থেকে জন্মনিবন্ধনের ক্ষেত্রে ভোগান্তি কমবে। কিন্তু যশোর পৌরসভায় তার এমন ঘোষণার উল্টোটা চলছে।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

সর্বশেষ

খুলনা-কলকাতা রুটে বন্ধন এক্সপ্রেস আজ ফের চালু

নিজস্ব প্রতিবেদক: আজ রোববার থেকে ফের কলকাতা-খুলনা রুটে ‘বন্ধন এক্সপ্রেস’ রেল চলাচল শুরু হবে।...

রসুনের গায়ে আগুন!

সপ্তাহের ব্যবধানে কেজিতে বেড়েছে ৫০ টাকা ক্ষুব্ধ ক্রেতা, স্বস্তিতে নেই কিছু বিক্রেতাও জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক: এবার ভোক্তার...

আনারসের পাতা থেকে সুতা সৃজনশীল কাজে পৃষ্ঠপোষকতা প্রয়োজন

অপার সম্ভাবনার দেশ বাংলাদেশ। কিন্তু হলে কি হবে। সম্ভবনা থাকলেই তো আর আপনা আপনি...

দড়াটানার ভৈরব পাড়ে মাদকসেবীদের নিরাপদ আঁখড়া

নিজস্ব প্রতিবেদক: যশোর শহরের ঘোপ জেলরোড কুইন্স হাসপাতালের পূর্ব পাশে ভৈরব নদের পাড়ে মাদকসেবীদের...

আজকের মধ্যে অবৈধ ক্লিনিক-ডায়াগনস্টিক বন্ধ না হলে ব্যবস্থা

কল্যাণ ডেস্ক: দেশে অনিবন্ধিত ও নবায়নহীন অবস্থায় পরিচালিত অবৈধ বেসরকারি ক্লিনিক ও ডায়াগনস্টিক সেন্টার...

নিরপেক্ষ সরকারের কাছে ক্ষমতা হস্তান্তর করতে হবে : মির্জা ফখরুল

ঝিনাইদহ প্রতিনিধি: বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, দেশে আওয়ামী লীগের অধীনে আর...