রবিবার, সেপ্টেম্বর ২৫, ২০২২

বাঘারপাড়ায় আ.লীগের দুই পক্ষের শোডাউন

বাঘারপাড়া প্রতিনিধি :

যশোরের বাঘারপাড়ায় আওয়ামী লীগের দুই পক্ষ শোডাউন দিয়েছে। এক পক্ষের নেতৃত্ব দেন এমপি রনজিৎ ও অপরপক্ষ স্থানীয় আওয়ামী লীগের ছোট ছোট তিন পক্ষের নেতৃবৃন্দ। সোমবার মাত্র ৫০ গজ দূরত্বে আলাদাভাবে তারা শোক দিবসের কর্মসূচি পালন করেছে। এ নিয়ে গত কয়েক দিন ধরেই দুই পক্ষের মধ্যে উত্তেজনা চলছিল। দুই পক্ষই চেষ্টা চালায় উপজেলা আওয়ামী লীগ কার্যালয়ের সামনে কর্মসূচি পালন করার। এজন্য মঞ্চও তৈরি করা হয়েছিল। বিষয়টি পুলিশ প্রশাসন জানতে পেরে উভয় পক্ষকে আলাদা স্থান নির্ধারণ করে দেয়। তবে টানটান উত্তেজনা ছিল পুরো উপজেলাজুড়ে। মানুষের মধ্যে আতংকও ছিল।

এদিন বিকালে বাঘারপাড়া উপজেলা পরিষদ চত্বরে সমাবেশ করে এমপি রনজিৎ রায়ের বিপক্ষের গ্রুপ। সমাবেশ ও আলোচনা সভার শুরুতে তারা শোক র‌্যালি বের করে। আলোচনা সভায় উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বীরমুক্তিযোদ্ধা হাসান আলী সভাপতিত্ব করেন। এতে প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন জেলা আওয়ামী লীগের সদস্য ও উপজেলা চেয়ারম্যান ভিক্টোরিয়া পারভীন সাথী। প্রধান বক্তা ছিলেন জেলা আওয়ামী লীগের প্রযুক্তি ও বিজ্ঞান বিষয়ক সম্পাদক ইঞ্জিনিয়ার আশরাফুল কবির বিপুল ফারাজী। সম্মানিত অতিথি ছিলেন উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক ও জেলা আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা সদস্য বীর মুক্তিযোদ্ধা সোলাইমান হোসেন বিশ্বাস।

অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন সাবেক অতিরিক্ত সচিব বীরমুক্তিযোদ্ধা সন্তোষ কুমার অধিকারী, উপজেলা যুবলীগের সাবেক সভাপতি ও বাঘারপাড়া উপজেলার ভাইস চেয়ারম্যান আব্দুর রউফ মোল্যা, যশোর মেডিকেল কলেজের সাবেক অধ্যাপক ডা. নিকুঞ্জ বিহারী গোলদার, দোহাকুলা ইউপি চেয়ারম্যান ওয়াহিদুর রহমান আবু ও মোতালেব তরফদার।

অনুষ্ঠানে অন্যান্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক নজরুল ইসলাম, জামদিয়া ইউপি চেয়ারম্যান শেখ আরিফুল ইসলাম তিব্বত, ধলগ্রাম ইউপি চেয়ারম্যান ও ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক রবিউল ইসলাম রবি, বন্দবিলা ইউপি চেয়াম্যান ও জেলা ওয়ার্কাস পার্টির সাধারণ সম্পাদক ছবদুল হোসেন, বাসুয়াড়ি ইউপির সাবেক চেয়ারম্যান আবু সাইদ সরদার, ইউনুস আলী শেখ, জামদিয়া ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান কামরুল ইসলাম টুটুল, নারিকেল বাড়িয়া ইউপি আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পদাক এমদাদ হোসেন, সেলিম রেজা বাদশা, উপজেলা যুবলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক নজরুল ইসলাম, নারিকেল বাড়িয়া ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সিনিয়নসহ-সভাপতি আসাদুজ্জামান চিসতি, নারিকেল বাড়িয়া ইউনিয়ন যুবলীগের সভাপতি গিয়াস উদ্দীন হীরা, যুবলীগ নেতা আফজাল হোসেন সঞ্জিব, বাঘারপাড়া পৌর যুবলীগ নেতা কৃষিবিদ এনায়েত হোসেন লিটন, রিয়াদ মোল্যা, বাঘারপাড়া উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি বায়েজিদ হোসেন। অনুষ্ঠানটি সঞ্চালন করেন অধ্যাপক নজরুল ইসলাম।

এসময় বক্তারা বর্তমান এমপি রনজিৎ কুমার রায়ের বিরুদ্ধে অভিযোগ করে বলেন, ‘আমরা তাকে বিশ্বাস করে তার কথামতো চলে বড় ভুল করেছি। এমপি সাহেব টাকা ছাড়া কিছুই চেনেন না। প্রতিটি স্কুল, কলেজে সে এবং তার পরিবারের সদস্যরা ম্যানেজিং কমিটির সভাপিত প্রতিটি প্রতিষ্ঠানে নিয়োগ বাণিজ্য হচ্ছে তার প্রধান আয়ের উৎস। প্রতিটি নিয়োগে তাকে মাথা প্রতি গুনে দিতে হয় ১০ থেকে ১৫ লাখ টাকা। দোহাকুল ইউপি চেয়ারম্যান ওয়াহিদুর রহমান আবু মোতালেব তরফদার তার বক্তব্য অভিযোগ করে বলেন, আমাদের এটি একটি অবহেলিত উপজেলা এমপি সাহেব এমপি হওয়ার পরে কোনদিন সরকারি কোন প্রোগগ্রামে হাজির হয় বলে জানা নেই। এমনকি আজ জাতীয় শোক দিবসে রাস্ট্রীয় অনুষ্ঠানেও তিনি হাজির হননি। বক্তারা বলেন, আল্লাহ আজ এখানে হাজারো মানুষের সামনে তোমার কাছে হাত তুলেছি তুমি এই এমপির হাত থেকে আমাদেরকে রক্ষা করো।

এদিকে সকালে বাঘারপাড়া আওয়ামী লীগের কার্যালয়ে উপজেলা আওয়ামী লীগের আয়োজনে আলোচনা সভার আয়োজন করা হয়।

এমপি রনজৎি রায়ের সভাপতিত্বে অন্যান্যোর মধ্যে বক্তব্য রাখেন- উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সহ সভাপতি হরিপদ রায়, সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক বিল্লাল হোসেন, উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক দপ্তর সম্পাদক শচীন বিশ্বাস, জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সদস্য অধ্যক্ষ আজগর আলী, দোহাকুলা ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক গোলাম ছরোয়ার, জামদিয়া ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি নিখিল আঢ্য, দরাজহাট ইউপি চেয়ারম্যান জাকির হোসেন, নারিকেলবাড়িয়া ইউপি চেয়ারম্যান বাবলু কুমার সাহা, জহুরপুর ইউপি চেয়ারম্যান আসাদুজ্জামান মিন্টু, বাসুয়াড়ী ইউপি চেয়ারম্যান আমিনুর সর্দার, তাঁতিলীগের সভাপতি ও সাবেক চেয়ারম্যান আবু তাহের আবুল সর্দার, উপজেলা যুবলীগের আহ্বায়ক ও এমপি পুত্র রাজীব কুমার রায়, উপজেলা যুবলীগের যুগ্ম আহ্বায়ক কামরুজ্জামান লিটন ও উপজেলা যুবলীগের সদস্য হাদিউজ্জামান হাদী। এ পক্ষের অনুষ্ঠান সঞ্চালন করেন মেয়র কামরুজ্জামান বাচ্চু।

যশোর-৪ আসনের সংসদ সদস্য ও বাঘারপাড়া উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি রণজিৎ কুমার রায় বলেন, যারা স্বাধীনতা বিশ্বাস করে না, তারাই বঙ্গবন্ধুকে হত্যা করেছেন। তারা শুধু বঙ্গবন্ধুকে হত্যা করেনি, পুরো বাঙালির অস্তিত্বকে হত্যা করেছে। বঙ্গবন্ধুর পলাতক আসামিদের বাংলার মাটিতে ফিরিয়ে এনে বিচার করা হবে। তিনি বলেন, শেখ হাসিনা উন্নয়ন অগ্রযাত্রার রোল মডেল। তাই আগামী সংসদ নির্বাচনে উন্নয়ন অগ্রযাত্রা অব্যাহত রাখতে নৌকার বিজয় নিশ্চিত করতে হবে। সর্বক্ষেত্রে আওয়াজ তুলতে হবে বার বার দরকার শেখ হাসিনা সরকার।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

সর্বশেষ

editorial

যানজটের শহর যশোর

মায়ের সন্ধানে পথে পথে ছেলে

যানজটের শহর যশোর

যশোর ২৫০ শয্যা জেনারেল হাসপাতাল ঘেঁষে ১৬টি বেসরকারি চিকিৎসাসেবা প্রতিষ্ঠানের নেই পার্কিং ব্যবস্থা। হাসপাতালের...

রাজপথে আছি, রাজপথেই থাকবো : নার্গিস বেগম (ভিডিওসহ)

নিজস্ব প্রতিবেদক : যশোর জেলা বিএনপির আহ্বায়ক অধ্যাপক নার্গিস বেগম বলেছেন, সরকার তার মসনদ টিকিয়ে...

বাঁকড়ায় সরকারি গাছ কাটার অভিযোগ

নিজস্ব প্রতিবেদক : ঝিকরগাছার বাঁকড়ায় সরকারি খাস জমি থেকে কয়েক লক্ষাধিক টাকার রেইনট্রি গাছ কাটার...

পহেলা অক্টোবর থেকে যশোরে পরিবহন চলাচল বন্ধ !

শনিবার যশোর জেলা পরিবহন সংস্থা শ্রমিক ইউনিয়নের নিজস্ব কার্যালয়ে সংগঠনের সভাপতি আজিজুল আলম মিন্টুর...

ঝিকরগাছায় অবৈধভাবে সার বিক্রিকালে ১৫ বস্তা উদ্ধার

নিজস্ব প্রতিবেদক : যশোরের ঝিকরগাছা উপজেলা বাজারে অবৈধভাবে সার বিক্রির সময় ১৪ বস্তা ইউরিয়া ও...

কেশবপুরে ভাটা মালিক ও সার ব্যবসায়ীকে জরিমানা

গৌরীঘোনা প্রতিনিধি : যশোরের কেশবপুরে ভাটা মালিক ও সার ব্যবসায়ীকে জরিমানা করা হয়েছে। চুকনগর-সোলঘাতিয়া সড়কের...