Wednesday, July 6, 2022

বিআরডিবির পজীক প্রকল্প কর্মকর্তার বিরুদ্ধে বিভিন্ন অনিয়মের অভিযোগ 

নিজস্ব প্রতিবেদক: বাংলাদেশ পল্লী উন্নয়ন বোর্ড (বিআরডিবি)’র পল্লী জীবিকায়ন কর্মসূচির (পজীপ) অভয়নগর উপজেলা প্রকল্প কর্মকর্তার বিরুদ্ধে বিভিন্ন অনিয়মের অভিযোগ উঠেছে। তার বিরুদ্ধে কর্তৃপক্ষের আদেশ অমান্য, স্বেচ্ছাচারিতা ও কর্তব্য অবহেলা করার অভিযোগ উঠেছে। শুধু তাই নয়; অর্থ বছর শেষ হতে চললেও সোয়া এক কোটি টাকার ঋণ বিতরণের বিপরীতে মাত্র ১৭ লক্ষ ১০ হাজার বিতরণ করেছেন। শেয়ার সঞ্চয় আদায়েও নেই অগ্রগতি নেই। এসব অভিযোগের বিষয়ে তার বিরুদ্ধে প্রশাসনিক ব্যবস্থা নেওয়া হতে পারে বলে জেলা অফিসের একাধিক সূত্র জানিয়েছে।

প্রাপ্ত তথ্য মতে, পল্লী জীবিকায়ন কর্মসূচির অভয়নগর উপজেলা কর্মকর্তা আমিনুর রহমান দাপ্তরিক কাজ না করে খেয়াল খুশি মতো চলেন। তিনি জেলার কর্মকর্তাদের নির্দেশ মেনে চলেন না। গত ৮ জুন জেলা দপ্তরের মাসিক সমন্বয় সভা ও ইন হাউজ প্রশিক্ষণে উপস্থিত হওয়ার জন্য তাকে চিঠি দেওয়া হলেও তিনি অনুপস্থিত ছিলেন। এজন্য কোন প্রকার অনুমতিও নেননি। এ বিষয়ে জেলা দপ্তরে কর্মরত উপপ্রকল্প পরিচালক জহুরুল ইসলাম তাকে ফোন করলেও তিনি রিসিভ করেননি। এমনকি পরবর্তীতে তার সাথে কোন প্রকার যোগাযোগও করেননি। এছাড়া উপপরিচালকের অনুমতি না নিয়ে অভয়নগর উপজেলা উপপ্রকল্প কর্মকর্তা শাহ আলমকে মাসিক সমন্বয় সভায় ও ইনহাউজ প্রশিক্ষণে মনোনয়ন দিয়েছেন। যা কর্তৃপক্ষের আদেশ অমান্য, স্বেচ্ছাচারিতা ও কর্তব্যে অবহেলা বলছেন উর্ধ্বতন কর্মকর্তারা।

সূত্র মতে, তার দায়িত্বহীনতার কারণেই ২০২১-২২ অর্থ বছর শেষ হতে চললেও পল্লী জীবিকায়ন কর্মসূচির জন্য বরাদ্দ এক কোটি ২৫ লক্ষ টাকার ঋণের বিপরীতে বিতরণ করা হয়েছে মাত্র ১৭ লক্ষ ১০ হাজার টাকা। এছাড়া শেয়ার সঞ্চয় আদায়েও অগ্রগতি নেই বরং ঋণে সমন্বয়ের মাধ্যমে গত বছরের তুলনায় ক্রমপুঞ্জিত শেয়ার হ্রাস পেয়েছে।

এদিকে আমিনুর রহমানের কর্তব্যে অবহেলা ও অফিস ফাঁকি নিয়ে বিষয়ে ক্ষুব্ধ জেলা দাপ্তরের কর্মকর্তারাও। বিআরডিবির যশোরের উপপরিচালক মো. কামরুজ্জামান নিজে ৬ জুন অভয়নগর উপজেলা আকস্মিক ভ্রমণকালে তাকে অফিসে পাননি। উপজেলা অফিসের অন্যান্যরাও তার প্রকৃত অবস্থান সম্পর্কে তথ্য প্রদান করতে পারেননি। অন্যদিকে গত ১৩ জুন উপপ্রকল্প পরিচালক জহুরুল ইসলাম অভয়নগর পল্লী উন্নয়ন দপ্তর পরিদর্শনকালে আমিনুর রহমানকে অনুপস্থিত পান। এমনকি তিনি বিকাল ৪ টায় পরিদর্শন সম্পন্ন করে ফেরার পূর্ব পর্যন্তও তার সাক্ষাত পাননি। তার অনুপস্থিতির বিষয়ে অফিসের কেউ জানেন না এবং ফোন দিয়েও তাকে পাওয়া যায়নি। এ সব অভিযোগ বিষয়ে ভুক্তভোগী অভয়নগর উপজেলা প্রকল্প কর্মকর্তা আমিনুর রহমানকে ব্যাখ্যা দিতে গত ১৬ জুন জেলা দপ্তর থেকে চিঠি দেওয়া হয়েছে। কর্তৃপক্ষ ও সহকর্মীগণকে না জানিয়ে অফিসে অনুপস্থিত চাকরির বিধিমালা পরিপন্থি ও অসদাচরণের শামিল বলে চিঠিতে উল্লেখ করা হয়েছে। অভিযোগের বিষয়ে আমিনুর রহমানের মুঠোফোনে দিলেও তিনি রিসিভ করেননি।

জানতে চাইলে বিআরডিবির যশোরের উপপরিচালক মো. কামরুজ্জামান বলেন, দপ্তারিক বিষয়। আমরা খোঁজ রাখছি। কেউ নিয়ম না মানলে তার বিরুদ্ধে প্রশাসনিক ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

সর্বশেষ

পিঠে ছুরিবিদ্ধ খোকন নিজেই গাড়ি ভাড়া করে আসেন যশোর হাসপাতালে

নিজস্ব প্রতিবেদক : পিঠে বিদ্ধ হওয়া ছুরি নিয়ে নিজেই যশোর জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসা নিতে এসেছেন...

নায়কদের নামে কোরবানির গরু, আপত্তি জানালেন ওমর সানি

কল্যাণ ডেস্ক : আগামী ১০ জুলাই পবিত্র ঈদুল আজহা। মুসলিম সম্প্রদায় এই ঈদে পশু কোরবানির...

এশিয়ার বাইরের উইকেটের যে কারণে অসহায় মোস্তাফিজ

ক্রীড়া ডেস্ক : মোস্তাফিজুর রহমানের বোলিং দেখে ক্যারিয়ারের শুরুতে অনেকে তাকে বলতেন, 'জোর বল করা...

নতুন ২৭১৬ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান এমপিওভুক্ত

কল্যাণ ডেস্ক : শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের উভয় বিভাগের আওতায় আরও ২ হাজার ৭১৬টি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান এমপিওভুক্ত করার...

নওয়াপাড়া বন্দরে অবৈধ তালিকায় ৬০ ঘাট

অবৈধভাবে গড়ে উঠা ঘাটের কারণে কমছে নদীর নাব্যতা ৫ বছরে অর্ধশত জাহাজ ডুবিতে ক্ষতিগ্রস্ত...

মণিরামপুরে জমজমাট কোরবানির পশু হাট

আব্দুল্লাহ সোহান, মণিরামপুর : দক্ষিণবঙ্গের অন্যতম হাট মণিরামপুরের গরু-ছাগলের হাট। প্রতি শনি ও মঙ্গলবার এখানে...