রবিবার, সেপ্টেম্বর ২৫, ২০২২

বিচার বিভাগের সমস্যা সমাধানে আটটি বিভাগেই মনিটরিং কমিটি

নিজস্ব প্রতবেদক :

রোববার দুপুরে যশোর জেলা ও দায়রা জজ আদালতের সভাকক্ষে সাংবাদিকসহ জেলার বিচারকদের সাথে মতবিনিময় করেছেন খুলনা বিভাগের অধঃস্তন দায়িত্বপ্রাপ্ত হাইকোর্টের বিচারপতি জাহাঙ্গীর হোসেন। এর আগে তিনি জেলা ও দায়রা জজ ভবন ও চিফ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালত ভবন পরিদর্শন করেন।

মতবিনিময় সভায় বিচারপতি জাহাঙ্গীর হোসেন বলেন, বিচার বিভাগকে আধুনিকায়ন করা হচ্ছে। এর জন্য সকল সমস্যা চিহ্নিত করে সেগুলো নিরসনের ব্যবস্থা গ্রহণ করছেন সুপ্রিমকোর্ট। বাংলাদেশের প্রধান বিচারপতি আটটি বিভাগের জন্য ৮টি মনিটরিং কমিটি গঠন করে সমস্যাবলী চিহ্নিত করে সমাধানের উদ্যোগ নিয়েছেন। আমাদের অঙ্গিকার সাধারণ মানুষের মাঝে বিচার ব্যবস্থা নিয়ে যাতে কোন প্রশ্ন না ওঠে সেই চেষ্টা করা। এবং সাধারণ মানুষ বিচার ব্যবস্থার উপর সর্বোচ্চ বিশ্বাস রাখবে এবং বিচারকদের প্রতি সম্মান আরও বেড়ে যাবে।

তিনি বলেন, জুডিসিয়াল ক্ষেত্রে বিচারের জন্য জনসাধারণসহ সকল নাগরিক বিশেষ ক্ষেত্রে নারী ও শিশু এবং দরিদ্র জনগোষ্ঠী যেন হয়রানি না হয় সেদিকে খেয়াল রেখে দ্রুত ও সঠিক বিচার ব্যবস্থার প্রয়োগ করতে হবে। পুরাতন মামলা যেগুলা বিচারাধীন সেগুলো কেন দ্রুত বিচার হচ্ছে না এগুলো আমরা চিহ্নিত করছি। কি করলে সেগুলো দূর হবে এবং কি করলে মানুষের দোরগোড়ায় সেবা পৌঁছাবে এবং মানুষ ন্যায়বিচার পেতে পারবে তা তদারকি করা হচ্ছে। পুলিশ ও বিচার বিভাগ প্রশাসন যার যতটুকু দায়িত্ব আছে সেগুলো করা হচ্ছে কিনা এসব বিষয়গুলো দেখা হচ্ছে। সকল সমস্যা নিরসন করে বিচার বিভাগকে আধুনিকায়ন করতে যে পদক্ষেপ নেয়ার দরকার সেগুলো আমরা করবো।

বিচারপতি মো. জাহাঙ্গীর হোসেন আরও বলেন, আপনারা জানেন প্রত্যেক আদালতে নেজারত, নকল খানাসহ অনেক সেকশন রয়েছে। নোটিশ জারির ক্ষেত্রে কেন দেরি হবে, সেগুলো দ্রুতকরণ করা হবে, রায় যেগুলো দেয়া হয় সেগুলো যেন সাধারণ মানুষ বুঝতে পারেন, জানতে পারেন। এজন্য আমাদের এই পরিক্রমা কাজের শুরু।

মানুষ যেন রায়ের ভাষা সঠিকভাবে বুঝতে পারে সেজন্য বাংলায় রায় লেখার উদ্যোগ নিয়েছে বিচার বিভাগ। রেফারেন্স ও আইনগুলো ইংরেজি থেকে বাংলায় রুপান্তরিত করা হচ্ছে। আদালতে বিচার প্রক্রিয়া নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে সম্পন্ন করা হলে বিচারপ্রার্থীদের মাঝে আস্থা ও বিচারকদের প্রতি সম্মান বেড়ে যাবে। তাই বিচার প্রক্রিয়া যাতে কোনভাবেই বিলম্বিত না হয়, সেজন্য বিচার বিভাগীয় কর্মকর্তা ও আইনজীবীদের সচেতন হতে হবে।

মতবিনিময় সভায় উপস্থিত ছিলেন সিনিয়র জেলা ও দায়রা জজ ইখতিয়ারুল ইসলাম মল্লিক, জেলা প্রশাসক তমিজুল ইসলাম খান, পুলিশ সুপার প্রলয় কুমার জোয়ারদার, নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালের বিচারক (জেলা জজ) নিলুফার শিরিন, স্পেশাল জেলা জজ শামসুল হক, জেলা জজ নারী ও শিশু ট্রাইব্যুনাল গোলাম কবীর, ভারপ্রাপ্ত চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মারুফ আহম্মেদ প্রমুখ।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

সর্বশেষ

editorial

যানজটের শহর যশোর

আ.লীগ কখনো কারচুপির মাধ্যমে ক্ষমতয় আসেনি : প্রধানমন্ত্রী

কল‌্যাণ ডেস্ক : প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আওয়ামী লীগ সরকারের মেয়াদে নির্বাচন প্রক্রিয়া স্বচ্ছ হওয়ার কথা...

কোটচাঁদপুরে সক্রিয় অপরাধী ও প্রতারক চক্র

কামাল হাওলাদার, কোটচাঁদপুর : ঝিনাইদহের কোটচাঁদপুরে দিনে দুপুরে চুরি ছিনতাইসহ প্রতারক চক্রের প্রতারণার মাত্রা বেড়ে...

যানজটের শহর যশোর

যশোর ২৫০ শয্যা জেনারেল হাসপাতাল ঘেঁষে ১৬টি বেসরকারি চিকিৎসাসেবা প্রতিষ্ঠানের নেই পার্কিং ব্যবস্থা। হাসপাতালের...

রাজপথে আছি, রাজপথেই থাকবো : নার্গিস বেগম (ভিডিওসহ)

নিজস্ব প্রতিবেদক : যশোর জেলা বিএনপির আহ্বায়ক অধ্যাপক নার্গিস বেগম বলেছেন, সরকার তার মসনদ টিকিয়ে...

বাঁকড়ায় সরকারি গাছ কাটার অভিযোগ

নিজস্ব প্রতিবেদক : ঝিকরগাছার বাঁকড়ায় সরকারি খাস জমি থেকে কয়েক লক্ষাধিক টাকার রেইনট্রি গাছ কাটার...

পহেলা অক্টোবর থেকে যশোরে পরিবহন চলাচল বন্ধ !

শনিবার যশোর জেলা পরিবহন সংস্থা শ্রমিক ইউনিয়নের নিজস্ব কার্যালয়ে সংগঠনের সভাপতি আজিজুল আলম মিন্টুর...