Sunday, May 29, 2022

ব্যর্থ হওয়ার স্থান বলতে বললেন শেখ হাসিনা

কল্যাণ ডেস্ক: কারও নাম উল্লেখ না করে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, অনেকে অতিজ্ঞানী হলেও তাঁরা কম বোঝেন, তাকিয়ে থাকেন কখন তাঁরা ক্ষমতায় যেতে পারবেন। এ প্রসঙ্গে প্রশ্ন ছুড়ে সরকারপ্রধান বলেছেন, ‘সরকার উৎখাত করতে চায়, আমাদের অপরাধটা কী? কোথায় ব্যর্থ হয়েছি?’

শনিবার গণভবনে আওয়ামী লীগের কার্যনির্বাহী সংসদের বৈঠকের সূচনা বক্তব্যে প্রধানমন্ত্রী এসব কথা বলেন। পরে দলের কেন্দ্রীয় নেতাদের নিয়ে বৈঠক করেন তিনি। করোনা মহামারির কারণে আওয়ামী লীগের নীতিনির্ধারণী এ ফোরামের বৈঠক কমে গেছে। গত বছর একটি বৈঠক হলেও সেখানে সীমিতসংখ্যক নেতা অংশ নিয়েছিলেন।

‘অতিজ্ঞানীদের’ নিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘তারা বসে থাকে, কখন সিগন্যাল আসবে। বিদেশে দেশের বিরুদ্ধে বদনাম করে, বিদেশ থেকে যেন তাদের ক্ষমতায় বসাবে।’

সামনে এগিয়ে যাওয়ার জন্য দলকে শক্তিশালী করার তাগাদা দেন আওয়ামী লীগের সভাপতি শেখ হাসিনা। তিনি বলেন, ‘সংগঠনকে আরও শক্তিশালী করতে হবে। তাদের (বিএনপি) কুকর্ম মানুষকে মনে করিয়ে দিতে হবে।’
আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় সম্মেলনের সময় এগিয়ে এসেছে বলে উল্লেখ করেন শেখ হাসিনা। তবে সম্মেলনের আগের কিছু কাজ থাকার কথাও উল্লেখ করেছেন তিনি।

শেখ হাসিনা বলেন, আওয়ামী লীগ কখনো পেছনের দরজা দিয়ে ক্ষমতায় আসেনি। আওয়ামী লীগ মাটি ও মানুষের দল। আওয়ামী লীগ ভোটের মাধ্যমে ক্ষমতায় এসেছে।

জিয়াউর রহমান নির্বাচনে প্রহসন ও ভোট কারচুপির সংস্কৃতি চালু করেন বলে মন্তব্য করেন প্রধানমন্ত্রী। তিনি বলেন, আওয়ামী লীগ কখনো ভোটে পেছনে ছিল না। নানা ষড়যন্ত্র করে ভোটে পিছিয়ে রাখা হয়েছে। নানা ষড়যন্ত্রের মধ্যেও তাঁরা এগিয়েছেন।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘জিয়া, এরশাদ, খালেদা, তারেক সবাই মানুষ হত্যা করেছে। জীবন্ত মানুষ পুড়িয়ে মেরেছে। তাদের সময় ক্ষমতা ছিল ক্যান্টনমেন্টে। পাকিস্তানি স্টাইলে মিলিটারি ডিকটেটরশিপ চালু করেছিল।’

বিএনপির নেতৃত্ব কোথায়—প্রশ্ন করে আওয়ামী লীগ সভাপতি বলেন, ‘দুজনই (খালেদা জিয়া ও তারেক রহমান) সাজাপ্রাপ্ত। এদের সঙ্গে ডান, বাম, অতি বাম এসে যুক্ত হয়েছে।’

বক্তব্যে ১৯৭৫ সালে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে সপরিবার হত্যার পরের ইতিহাস তুলে ধরে দলের সংহতির ওপর গুরুত্ব আরোপ করেন আওয়ামী লীগের সভাপতি শেখ হাসিনা। তিনি বলেন, ‘পঁচাত্তর–পরবর্তী আওয়ামী লীগ আমি দেখেছি। শত্রুরা কখনো ক্ষতি করতে পারে না, যদি ঘরের শত্রু বিভীষণ না হয়। আওয়ামী লীগের মধ্যে সব সময় এটি দেখা গেছে। আর এটি হচ্ছে সবচেয়ে দুর্ভাগ্যের বিষয়। অত্যন্ত দুঃখজনক।’

এসবের মধ্যেই আওয়ামী লীগের এগিয়ে চলার কথা তুলে ধরে শেখ হাসিনা বলেন, ‘সংগঠনকে সুসংগঠিত করা এবং সেই সঙ্গে ক্ষমতায় গেলে দেশের জন্য আমরা কী করব, সুনির্দিষ্ট লক্ষ্য স্থির করে আমরা কাজ করেছি।’

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

সর্বশেষ

খুলনা-কলকাতা রুটে বন্ধন এক্সপ্রেস আজ ফের চালু

নিজস্ব প্রতিবেদক: আজ রোববার থেকে ফের কলকাতা-খুলনা রুটে ‘বন্ধন এক্সপ্রেস’ রেল চলাচল শুরু হবে।...

রসুনের গায়ে আগুন!

সপ্তাহের ব্যবধানে কেজিতে বেড়েছে ৫০ টাকা ক্ষুব্ধ ক্রেতা, স্বস্তিতে নেই কিছু বিক্রেতাও জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক: এবার ভোক্তার...

আনারসের পাতা থেকে সুতা সৃজনশীল কাজে পৃষ্ঠপোষকতা প্রয়োজন

অপার সম্ভাবনার দেশ বাংলাদেশ। কিন্তু হলে কি হবে। সম্ভবনা থাকলেই তো আর আপনা আপনি...

দড়াটানার ভৈরব পাড়ে মাদকসেবীদের নিরাপদ আঁখড়া

নিজস্ব প্রতিবেদক: যশোর শহরের ঘোপ জেলরোড কুইন্স হাসপাতালের পূর্ব পাশে ভৈরব নদের পাড়ে মাদকসেবীদের...

আজকের মধ্যে অবৈধ ক্লিনিক-ডায়াগনস্টিক বন্ধ না হলে ব্যবস্থা

কল্যাণ ডেস্ক: দেশে অনিবন্ধিত ও নবায়নহীন অবস্থায় পরিচালিত অবৈধ বেসরকারি ক্লিনিক ও ডায়াগনস্টিক সেন্টার...

নিরপেক্ষ সরকারের কাছে ক্ষমতা হস্তান্তর করতে হবে : মির্জা ফখরুল

ঝিনাইদহ প্রতিনিধি: বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, দেশে আওয়ামী লীগের অধীনে আর...