Sunday, May 29, 2022

ভবদহ : অর্ধ শতাব্দির কান্নায়ও কারো মন গলেনি

ভবদহ পানি নিষ্কাশন সংগ্রাম কমিটি ৭ মে ভবদহ স্লুইস গেটের সামনে সংবাদ সম্মেলন করে তাদের ক্ষেভের কথা প্রকাশ করেছে। যশোর-খুলনার দুঃখ, দুর্যোগ কবলিত ভবদহ এলাকার দু’শতাধিক গ্রামের ১০ লক্ষাধিক মানুষ ক্ষোভের সাথে লক্ষ্য করেছেন টিআরএম বাতিল করে কোটি কোটি টাকা তছরূপ ও জনপদের মানুষের শত শত কোটি টাকার ফসল বসতবাড়ি নষ্ট এবং মানুবক বিপর্যয়ের ব্যবস্থা করে চলেছে সরকারের সংশ্লিষ্ট বিভাগ। সংবাদ সম্মেলনে বলা হয়েছে, জরুরি ভিত্তিতে টিআরএম চালু করে নদী রক্ষা ও জলাবদ্ধতা নিরসন করতে হবে। একই সাথে আমডাঙ্গা খাল সংস্কার ও মানুষের ক্ষতিপূরণ দিতে হবে।

ভবদহ সমস্যা মূলত ১৯৬০ এর দশক থেকে শুরু। সেই থেকে অর্ধ শতাব্দিরও বেশি সময় ধরে এলাকার মানুষ দুর্ভোগ পোহাচ্ছেন। এককালের সম্পদশালীরা এখন পথের মানুষে পরিণত হয়েছে। দরিদ্ররা পরিণত হয়েছে ছিন্নমূলে। এলাকাবাসী ভবদহ পানি নিষ্কাশন সংগ্রাম কমিটিসহ বিভিন্ন উপায়ে ঐক্যবদ্ধভাবে এই সমস্যার সমাধানের জন্য সরকারের দৃষ্টি আকর্ষণ করে আসছেন। এ জন্য জীবনও গেছে এলাকার একাধিক মানুষের। কিন্তু দুঃখজনক হলেও সত্যি যে একটি গণতান্ত্রিক রাষ্ট্রে গণমানুষের এই প্রাণের দাবিটির প্রতি কোনো সরকারেরই কানে পানি ঢোকানো যায়নি।

টিআরএম প্রকল্প স্থানীয় অভিজ্ঞতার আলোকে সমৃদ্ধ মানুষের পক্ষের প্রস্তাবনা। অভিশপ্ত জলাবদ্ধতা নিরসনে যখন কোনো টেকসই উপায় পাওয়া যাচ্ছিল না তখন টিআরএম পদ্ধতি এলাকার কয়েকটি বিলে কার্যকর করে তার সুফল পাওয়া যায়। কিন্তু কি জানি কোন হাতের ইশারায় এটির প্রতি সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়ের আগ্রহ সৃষ্টি করা যাচ্ছিল না। বহু কাঠখড় পুড়িয়ে যশোর জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ে তৎকালীন পানিসম্পদমন্ত্রী আনিসুল ইসলাম মাহমুদের উপস্থিতিতে জাতীয় কর্মশালায় বিলকপালিয়ায় টিআরএম ও পর্যায়ক্রমে অন্যান্য বিলে টিআরএম চালুর প্রকল্প গৃহীত হয়। কিন্তু টিআরএম প্রকল্পের প্রয়োজনীয় উদ্যোগ না নিয়ে থোক বরাদ্দে পাইলট চ্যানেল করে পানি নিষ্কাশনের পদক্ষেপ নেয়া হয় এবং অর্থ লোপাটের ও নদী মারার একটা রাস্তা করা হয়। ফলে সমস্যা আগে যা ছিল তাই থেকে গেল। এর প্রতিবাদে সংগ্রাম কমিটি আবারো আন্দোলনে নামে। ফলে এবারো সিদ্ধান্ত হয় টিআরএম’র পক্ষে। কিন্তু এ অবস্থায মন্ত্রী যেখানে টিআরএম’র পক্ষে সিদ্ধান্ত নিচ্ছেন সেখানে সচিব বলছেন, টিআরএম সমস্যা সমাধানের পথ নয়। অর্থাৎ জলাবদ্ধতা নিরসনের এই কার্যকর পদ্ধতিটি আমলাতান্ত্রিক জটিলতার নিগড়ে আটকে গিয়েছিল। আর শেষ পর্যন্ত গণদাবির বিপক্ষে সিদ্ধান্তটি হলো। তৎকালীন নৌপরিবহন মন্ত্রী শাজাহান খান স্পষ্ট করে বলেছিলেন, ভবদহ নিয়ে ব্যবসা করতে চাইলে যুগের পর যুগ এভাবেই এলাকার জনগণকে দুঃখ দুর্দশার মধ্যে কাটাতে হবে। এ সমস্যার সমাধান হবে না। যশোরের মণিরামপুর উপজেলার ভবদহ কলেজ মাঠে ভবদহ সমস্যা বিষয়ক ‘সাউথ এশিয়ান পিপলস্ কনফারেন্সে’ প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেছিলেন। তিনি আরো বলেছিলেন, টিআরএম বাস্তবায়ন ছাড়া ভবদহ সমস্যার সমাধান সম্ভব নয়। এলাকার সর্বসাধারণ ঐক্যবদ্ধ হয়ে চাইলে ভবদহ সমস্যার সমাধান সম্ভব।
আমরা চাই এলাকার প্রাকৃতিক পরিবেশকে আগের অবস্থায় ফিরিয়ে নিয়ে যেতে, যে অবস্থা ছাড়া এলাকার মানুষ বাঁচবে না। ‘মানুষের চেয়ে বড় কিছু নয়, নহে কিছু মহিয়ান’-এই মানুষ বাঁচানোর জন্য কর্মসূচি নিতে হবে। গাছে কাঁঠাল গোপে তেল দিয়ে লাভ নেই। উর্বর মস্তিষ্কের চিন্তা বাদ দিয়ে এলাকার অভিজ্ঞতা কাজে লাগিয়ে সমস্যা সমাধানে এগোতে হবে।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

সর্বশেষ

খুলনা-কলকাতা রুটে বন্ধন এক্সপ্রেস আজ ফের চালু

নিজস্ব প্রতিবেদক: আজ রোববার থেকে ফের কলকাতা-খুলনা রুটে ‘বন্ধন এক্সপ্রেস’ রেল চলাচল শুরু হবে।...

রসুনের গায়ে আগুন!

সপ্তাহের ব্যবধানে কেজিতে বেড়েছে ৫০ টাকা ক্ষুব্ধ ক্রেতা, স্বস্তিতে নেই কিছু বিক্রেতাও জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক: এবার ভোক্তার...

আনারসের পাতা থেকে সুতা সৃজনশীল কাজে পৃষ্ঠপোষকতা প্রয়োজন

অপার সম্ভাবনার দেশ বাংলাদেশ। কিন্তু হলে কি হবে। সম্ভবনা থাকলেই তো আর আপনা আপনি...

দড়াটানার ভৈরব পাড়ে মাদকসেবীদের নিরাপদ আঁখড়া

নিজস্ব প্রতিবেদক: যশোর শহরের ঘোপ জেলরোড কুইন্স হাসপাতালের পূর্ব পাশে ভৈরব নদের পাড়ে মাদকসেবীদের...

আজকের মধ্যে অবৈধ ক্লিনিক-ডায়াগনস্টিক বন্ধ না হলে ব্যবস্থা

কল্যাণ ডেস্ক: দেশে অনিবন্ধিত ও নবায়নহীন অবস্থায় পরিচালিত অবৈধ বেসরকারি ক্লিনিক ও ডায়াগনস্টিক সেন্টার...

নিরপেক্ষ সরকারের কাছে ক্ষমতা হস্তান্তর করতে হবে : মির্জা ফখরুল

ঝিনাইদহ প্রতিনিধি: বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, দেশে আওয়ামী লীগের অধীনে আর...