Friday, August 12, 2022

মই দিয়ে উঠতে হয় সেতুতে!

বাগেরহাট প্রতিনিধি: বাগেরহাটের রামপাল উপজেলার হুড়কা ইউনিয়নের বগুড়া নদীর ওপর নির্মাণাধীন খেয়াঘাট সেতুটির কাজ শেষ হয়নি গত ৪ বছরেও। ফলে অনেকটা বাধ্য হয়েই জীবনের ঝুঁকি নিয়ে মই বেয়ে ওই সেতুর ওপর দিয়ে পারাপার হচ্ছেন ১০ গ্রামের প্রায় ৭ হাজার মানুষ। স্থানীয়দের দাবি, হুড়কা ইউনিয়ন থেকে রামপাল সদরের সঙ্গে যোগাযোগের একমাত্র মাধ্যম গুরুত্বপূর্ণ এই সেতুটি জনসাধারণের জন্য দ্রুত যেন খুলে দেয়া হয়।

এদিকে, রামপাল উপজেলা এলজিইডি’র প্রকৌশলী দাবি করেছেন, করোনা মহামারি এবং সেতুর সংযোগ সড়কের জায়গা নিয়ে স্থানীয় দুই ব্যক্তির করা মামলার কারণে দুই দফায় নির্মাণ কাজের সময় বাড়ানো হয়েছে। তাই সময়মতো খুলে দে

এলজিইডি’র অর্থায়নে ২০১৮ সালের ডিসেম্বরে নির্মাণ কাজ শুরু হয় বগুড়া খেয়াঘাট সেতুটির। ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান আইটি অ্যান্ড জেই এই সেতুর নির্মাণ কাজ শুরু করে। ৬০ মিটার দৈর্ঘ্যের সেতুর নির্মাণ ব্যয় ধরা হয়েছে ৩ কোটি ৯২ লাখ ৫১ হাজার ১৩৩ টাকা। ইতোমধ্যে সেতুর ৯৫ ভাগ কাজ শেষ হয়েছে।
রামপাল উপজেলা এলজিইডি’র অফিস সূত্রে জানা গেছে, গত বছরের ডিসেম্বর মাসে জনসাধারণের চলাচলের জন্য সেতুটি উন্মুক্ত করে দেয়ার কথা বলা হলেও সেটি সম্ভব হয়নি। নতুন করে মেয়াদ বাড়িয়ে আগামী জুন মাসে উদ্বোধন করা হবে। বর্তমানে সেতুর সংযোগ সড়কের কাজ চলমান রয়েছে।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, হুড়কা ইউনিয়নের বেলাই, ভেকটমারী, গাজিখালী, কাঠামারী, নলবুনিয়া, গজগজিয়া, হুড়কা, চাড়াখালী-১, চাড়াখালী-২ ও ছিদামখালী গ্রামের প্রায় ৭ হাজার মানুষের যাতায়াতের একমাত্র সহজ মাধ্যম এই সেতু। এর একপাশের সংযোগ সড়কের কাজ শেষের পথে। কাজ চলছে অপর পাশের সংযোগ সড়কে। যে পাশের সড়কের কাজ চলছে, সেই পাশে বাঁশের মই দিয়ে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে যাতায়াত করছেন স্থানীয়রা।

স্থানীয় বাসিন্দা আনন্দ দাস বলেন, ‘কয়েক বছর ধইরে দেখতিছি এই সেতুটার কাজ হচ্ছে, কাজ কবে যে শেষ হবে তার তো ঠিক ঠিকানা নেই। রামপাল সদর, মোংলা ও বাগেরহাট যাওয়ার জন্যই আমাগো এই নদী পার হয়ে যেতে হয়। আমাগো তো আর কোনো উপায় নেই, তাই বাধ্য হয়ে ওই মই বেয়ে যাতি হয়।’

আরেকজন সুবল মজুমদার বলেন, ‘হুড়কা ইউনিয়নের অধিকাংশ মানুষ দরিদ্র। তারা কৃষিকাজ, মৎস্য ও মোংলা ইপিজেডে শ্রমিক হিসাবে কাজ করেন। বগুড়া নদী পার হয়ে, তাদের শহরের যাতায়াত করতে হয়। এ ছাড়া, যাতায়াতের বিকল্প যে পথটি রয়েছে, সেটি প্রায় ১০ কিলোমিটার ঘুরে যেতে হয়। তাই হাজারো মানুষের যাতায়াতের সহজ মাধ্যম সেতুটি দ্রুত মানুষের চলাচলের জন্য উন্মুক্ত করার দাবি জানাই।’

হুড়কা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান তপন কুমার গোলদার বলেন, ‘২০১৮ সালের শেষের দিকে বগুড়া খেয়াঘাট সেতুটির নির্মাণ কাজ শুরু হয়। প্রথম দিকে এর নির্মাণ কাজ দ্রুতগতিতে চললেও একটা সময় করোনা মহামারি ও জমি অধিগ্রহণ সংক্রান্ত মামলার কারণে কাজ থেমে যায়।’

তিনি আরও বলেন, ‘মূল সেতুর নির্মাণ কাজ শেষ হয় অনেক আগেই। সমস্যা হলো এক অংশের সংযোগ সড়ক নিয়ে। সংযোগ সড়কটির কিছু অংশে ব্যক্তিমালিকানাধীন জমি থাকায় তারা মামলা করেন। এজন্য কাজ বন্ধ হয়ে যায়। তবে বিষয়টি সমাধান করা হয়েছে। আশা করছি দ্রুত কাজ শেষ করে জনগণের জন্য সেতুটি উন্মুক্ত করে দেয়া হবে।’

রামপাল উপজেলা এলজিইডি’র প্রকৌশলী গোলজার হোসেন বলেন, ‘করোনা মাহামারি ও সীমানা জটিলতায় মামলার কারণে সেতুর কাজ দুই দফা পেছানো হয়েছে। ইতোমধ্যে এর ৯৫ শতাংস কাজ সম্পন্ন হয়েছে, এখন সংযোগ সড়কের কাজ চলছে। আশা করছি আগামী জুন মাসে চলাচলের জন্য উন্মুক্ত করে দেয়া হবে।’

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

সর্বশেষ

বার বার ঘুম ভেঙে গেলে শরীরের যেসব মারাত্মক ক্ষতি

কল্যাণ ডেস্ক : শরীরের জন্য ঘুম খুব প্রয়োজনীয় একটি বিষয়। তবে এ ঘুম যদি কম...

আগামী মাসেই দুটি ম্যাচ খেলবে বাংলাদেশ

ক্রীড়া ডেস্ক : ফিফা আন্তর্জাতিক প্রীতি ম্যাচের সেপ্টেম্বর উইন্ডোতে দুটি দেশের বিপক্ষে প্রীতি ম্যাচ খেলবে...

‘হাওয়া’য় আইন লঙ্ঘনের প্রমাণ মিলল

কল্যাণ ডেস্ক : ‘হাওয়া’ সিনেমার বিরুদ্ধে বন্যপ্রাণী সংরক্ষণ ও নিরাপত্তা আইন -২০১২ লঙ্ঘনের অভিযোগ তুলেছিল...

এবার প্রেমের টানে দিনাজপুরে অস্ট্রিয়ান যুবক, বিয়েও করলেন

কল্যাণ ডেস্ক : প্রেমের টানে বাংলাদেশে দিনাজপুর শহরের আব্দুল রাজ্জাকের মেয়ে রুম্পার কাছে ছুটে এসেছেন...

কাতার বিশ্বকাপ এক দিন এগিয়ে এনেছে ফিফা

কল্যাণ ডেস্ক : দুই দিন আগেই আভাস মিলেছিল বদলে যেতে পারে কাতার বিশ্বকাপের সূচি। স্বাগতিক...

এটিএম বুথে ব্যবসায়ীকে হত্যা, ছিনতাইকারীকে পুলিশে দিল জনতা

কল্যাণ ডেস্ক : রাজধানীর উত্তরায় একটি বেসরকারি ব্যাংকের এটিএম বুথে মো. শরিফ উল্লাহ (৪৪) নামের...