বুধবার, নভেম্বর ৩০, ২০২২

যশোরে গৃহকর নির্ধারণে স্বেচ্ছাচারিতা

আবদুল কাদের :

যশোর পৌরসভার কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে জোরপূর্বক গৃহকর আদায়ের অভিযোগ উঠেছে। তাদের ইচ্ছায় নাগরিকদের গৃহকর দিতে হচ্ছে। এতে বৈষম্যের শিকার হচ্ছেন পৌরবাসী। যাদের বহুতল ভবন তারা কম কর দিচ্ছেন, আবার যাদের কম দেওয়ার নিয়ম তারা বেশি কর দিচ্ছেন। এতে অসন্তোষ বাড়ছে তাদের মধ্যে। ইতিমধ্যে আবুল হোসেন নামে এক নাগরিক পৌরকর বেশি আদায়ের অভিযোগে আদালতের দ্বারস্থ হয়েছেন। তিনি পৌরসভার বিরুদ্ধে মামলা করেছেন। নাগরিকরা বলছে, একেতো করোনার ধকল শেষে বর্তমানে বৈশ্যিক সংকট চলছে। মানুষের আয় কমছে। সেখানে করের বোঝা বাড়লে তাদেরকে আরও বেশি কষ্ট পেতে হবে।

যশোর পৌরসভা ১৮৬৭ সালে গঠিত হয়। বর্তমানে এটি ‘ক’ শ্রেণির পৌরসভা। পৌরসভার আয়তন ১৪ দশমিক ৭২ বর্গকিলোমিটার। লোকসংখ্যা এক লাখ ৪৫ হাজার ৫৯৮। প্রতিনিয়ত হোল্ডিংধারীর সংখ্যা বাড়ছে। এর মধ্যে এ পর্যন্ত হোল্ডিং করের ব্যাপারে আপত্তি দিয়েছেন ২ হাজার ৪০০ হোল্ডিংধারী ব্যক্তি।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, পৌর এলাকার বাসিন্দা জিয়াউল হাসানের বাড়ির হোল্ডিং নাম্বর হলো ০৩৯১০০ ও ০৩৯১০১। ৫ম তলার এই বাড়ির প্রতি ফ্লোর ২৮শ বর্গফুট। তিনি বছরে কর দেন ৬ হাজার টাকা। আবার ৫৫৫ নং হোল্ডিংয়ের মালিক নজরুল ইসলাম ৭ম তলা জন্য কর দেন বছরে ৫৯ হাজার টাকা। ১০০৮ নং হোল্ডিং মালিক ফজলুর রহমান কর দিচ্ছেন ২০ হাজার টাকা। ৫ নম্বর ওয়ার্ডের বান্দিা নূরুল ইসলাম (হোল্ডিং নম্বর ১০১৫) বছরে পৌরকর দেন ৩৬ হাজার টাকা। অথচ একই ওয়ার্ডের সাইদুল বাশারের ৬তলা ও তরিকুল ইসলামের ৪ তলা ভবনের কর তার চেয়েও কম। ৪ নম্বর ওয়ার্ডের পুরতান কসবা ঘোষপাড়ার বাসিন্দা আবুল হোসেন (হোল্ডিং নম্বর-১৬২০) জানান, ২০১৮ সালে আমার পৌরকর ধার্য্য করা হয়েছিল এক হাজার ৭৫৫ টাকা। সেখানে কোন ধরণের পূর্ব নোটিশ বা শুনানি ছাড়াই এখন পৌরকর ধার্য্য করা হয়েছে ৯ হাজার ২৬১ টাকা। যেকারণে তিনি পৌরসভার মেয়রের বিরুদ্ধে আদালতে মামলা করেছেন।

পৌরবাসী অভিযোগ করে বলেছেন, বর্তমান মেয়র যোগদানের পর কোন নিয়মনীতি মানছে না। যেকারণে দুর্নীতিবাজ কিছু কর্মকর্তা বেপরোয়া হয়ে উঠেছেন। বিশেষ করে পৌরকর শাখার কর্মকর্তারা নিজেদের ইচ্ছামত বিভিন্ন ওয়ার্ডে বাড়ির কর নির্ধারণ করছেন। টাকার বিনিময়ে যাদের বহুতল ভবন তাদের কর ধরা হচ্ছে কম, আর যারা টাকা দিচ্ছেনা তাদের বাড়িয়ে দেয়া হচ্ছে। এতে ক্ষোভ বাড়ছে নাগরিকদের মধ্যে।

শহরের বেজপার্ড়া আরশাদ আলী বলেন, পৌরসভার কোন কোন নোটিশ বা শুনানি ছাড়াই নির্ধারণ করা হচ্ছে। ২ বছর আগে যেখানে ৯ হাজার টাকা দিতাম, সেখানে নির্ধারণ করা হয়েছে ৩৪ হাজার টাকা। একবারে এত বেশি কর দেয়া সম্ভব হবেনা। এজন্য শুনানির জন্য আবেদন করেছি।

তবে এসব অভিযোগ অস্বীকার করে যশোর পৌরসভার কর নির্ধারিক মোকসেদ আলী বলেন, আমাদের পৌরসভায় হোল্ডিংয়ের সংখ্যা ২৪ হাজারের কিছু বেশি। পৌর আইন অনুযায়ী কর নির্ধারণ করা হয়ে থাকে। এখানে অনিয়মের কোন সুযোগ নেই। একটি ভবনের ১০ মাসের বাড়ি ভাড়ার ২৭ শতাংশ কর নির্ধারণ করা হয়ে থাকে। অন্যান্য কর সেবার বিনিময়ে নেয়া থাকে। যাদের কম কর নির্ধারণ রয়েছে তাদেরকে সমন্বয় করা হচ্ছে। পাঁচ বছর পরপর গৃহকর বাড়ানো হয়। আগে যেসব হোল্ডিংগ্রহীতার টিনের ঘর ছিল, বর্তমানে সেখানে পাকা ইমারত করেছেন। তাঁদের ক্ষেত্রে কর বেশি বেড়েছে। যাদের অবকাঠামোগত পরিবর্তন হয়নি, তাঁদের ক্ষেত্রে কর তেমন বাড়েনি। সামনে কর বাড়ার ইঙ্গিত দেন এই কর্মকর্তা।

এ ব্যাপারে প্রেসক্লাব যশোরের সম্পাদক এসএম তৌহিদুর রহমান বলেন, যশোর পৌসসভায় সেবারমান কমলেও করের বোঝা বাড়ছে। একেতো নাগরিকরা আর্থিক সংকটে রয়েছে নানা কারণে, সেখানে করের অতিরিক্ত বোঝা তাদেরকে ভাবাচ্ছে। বর্তমান পৌর পরিষদ নাগরিকদের কাছে কতটা দায়বদ্ধ তা নিয়ে আমার প্রশ্ন রয়েছে।

আইডি’র কেন্দ্রীয় কমিটির সাবেক সভাপতি খায়রুল উমাম বলেন, পৌরসভা ২৭ ভাগ পর্যন্ত কর বাড়াতে পারে। এর মানে এই নয় যে ২৭ ভাগই কর বাড়াতে হবে। পৌরসভা হোল্ডিং গ্রাহকদের আয় এবং গত দুই বছর ধরে চলমান করোনা পরিস্থিতি ও বৈশ্বিক অর্থনৈতিক সংকটের কথা বিবেচনা করে গৃহকর বাড়ানো থেকে বিরত থাকতে পারে কর্তৃপক্ষ। তিনি বলেন, গত কয়েক বছর ধরে নাগরিকরা পৌরসভা থেকে কোন সেবা পাচ্ছেনা। নিয়মিত ড্রেন পরিস্কার করা হয়না, দেয়া হয়না মশার ওষুধ। বিভিন্ন সমস্যা নিয়ে মেয়রের সাথে কেউ কথা বলতে পারেনা। আগের ও বর্তমান মেয়র তাদের রুমের দরজা দিয়ে রাখেন।

যশোর পৌরসভার মেয়র হায়দার গণি খান পলাশ বলেন, হোল্ডিংগ্রহীতা যে বাড়িতে বসবাস করেন, সেই বাড়ি ভাড়া দিলে মাসে কত টাকা দিতে হবে, তার ১০ মাসের ভাড়ার ২৭ ভাগ পর্যন্ত কর হিসেবে ধার্য করা হয়। আমরা কোন কর বৃদ্ধি করেনি। সরকার ১৭ শতাংশ পর্যন্ত কর বাড়িয়েছে। নিয়ম মেনেই কর আরোপ করা হয়। এ ক্ষেত্রে আইনের বরখেলাপ কিংবা গ্রাহকদের ওপর জুলুম করা হয়নি।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

সর্বশেষ

মহেশপুরে একাধিক মামলার আসামি টিটনকে কুপিয়ে হত্যা

মহেশপুর প্রতিনিধি: মহেশপুর উপজেলার ধানহাড়িয়া গ্রামে জীবন চৌধুরী ওরফে টিটন (৩০) নামে একজনকে কুপিয়ে...

অভয়নগরে দুই মাদক বিক্রেতা আটক

অভয়নগর প্রতিনিধি: অভয়নগরে এপিবিএন পুলিশের অভিযানে ৫শ’ গ্রাম গাঁজা ও এক বোতল ফেনসিডিল ও...

জীবননগরের ২৫ দিনেও সন্ধান মেলেনি মানসিক প্রতিবন্ধী জসিমের

জীবননগর প্রতিনিধি: চুয়াডাঙ্গার জীবননগর উপজেলার প্রতাপপুর গ্রামের মাননিক প্রতিবন্ধি জসিম উদ্দিন (৩৭) দীর্ঘ ২৬...

দ্রুত এগোচ্ছে যশোর-ঢাকা রেলপথ নির্মাণ

নিজস্ব প্রতিবেদক: কোটি কোটি বাঙালির স্বপ্ন বাস্তবে ধরা দিয়ে গত ২৫ জুন ঘটা করে...

রাতভর অভিযানে ডাকাত চক্রের ১০ সদস্য গ্রেফতার

নিজস্ব প্রতিবেদক :  রাতভর অভিযান চালিয়ে যশোরের পুলিশ ডাকাত চক্রের ১০ সদস্যকে গ্রেফতার করেছে। এসময়...

তাঁর প্রতিদিনের আয় বাংলাদেশি মুদ্রায় প্রায় ৩৭ লাখ টাকা

বিনোদন ডেস্ক: এই সময়ের আলোচিত সুপারমডেল কারা ডেলেভিন। মডেলিংয়ের সঙ্গে অভিনয়টাও ভালো পারেন। আলোচিত...