বুধবার, নভেম্বর ৩০, ২০২২

যশোরে দুর্গোৎসবের বেচাকেনা জমেনি

জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক :

দুর্গাপূজা ঘিরে যশোরের বাজারে তেমন বেচাকেনা নেই। শপিংমলে নেই ক্রেতার ঠাসাঠাসি। কম দামের পোশাকের বাজার খ্যাত কালেক্টরেট দোকানপাটেও দিনভর দেখা মিলছে না ক্রেতার। বিকেলের পর যারা আসছেন, তারা কেনাকাটা করছেন শিশুদের জন্য। সন্তানদের আবদার মেটাতেই নাভিঃশ^াস উঠছে সীমিত আয়ের মানুষের। এই মন্দা বাজারে হতাশায় ফেলেছে তৈরি পোশাক বিক্রেতাদের। তবে শেষ মুহূর্তে জমে উঠেছে পাদুকার বেচাকেনা। নারী ও শিশুর সু-স্যান্ডেল বেচাবিক্রি শীর্ষে রয়েছে।

যশোর শহরের হাজী মুহাম্মদ মহসিন রোডে রয়েছে বেশকিছু ব্রান্ডের পাদুকা বিক্রির প্রতিষ্ঠান। সড়কের দু’পাশ ঘিরে নানা নামের সু বিক্রেতা প্রতিষ্ঠানে দুদিন ধরে ক্রেতাদের উপচেপড়া ভিড় দেখা গেছে। সু-স্যান্ডেলের প্রতিষ্ঠানের মতো ভিড় জমছে না ছিট কাপড় ও তৈরি পোশাকের দোকানে।

লিবার্টি সু বিক্রেতা প্রতিষ্ঠানে কথা হয় রেলস্টেশন সংলগ্ন সুইপার কলোনীর বাসিন্দা সুমন দাসের সাথে। তিনি বলেন, করোনার ধাক্কা সামলে উঠতে পারিনি। এরমধ্যে নিত্যপণ্যের দাম হু-হু করে বেড়ে গেছে। সেই তুলনায় বাড়েনি রোজগার। সংসার চালাতে নাভিঃশ^াস উঠেছে দাবি করে সুমন বলেন, স্ত্রী মুক্তা রায়ের জন্য স্যান্ডেল কিনেছি ৭৫০ টাকায়। নিজের স্যান্ডেলের দাম পড়েছে ৪শ টাকা। পূজা উপলক্ষে আর কিছু কেনা হবে না বলে জানান এই পরিচ্ছন্ন কর্মী।
প্রতিষ্ঠানটির ম্যানেজার প্রবীর কুমার মজুমদার কল্যাণকে বলেন, সার্বিক পরিস্থিতি বিবেচনায় রেখে এবছর কোনো সু-স্যান্ডেলের দাম বাড়ানো হয়নি। বেচাকেনা ভালই হচ্ছে বলে মন্তব্য তার। এ সময় স¤্রাট, প্রাইম ও বাটাসহ অধিকাংশ সু বিক্রেতা প্রতিষ্ঠানে নারী-শিশুর ভিড় দেখা যায়।
সড়কের দু’পাশ জুড়ে রয়েছে তৈরি পোশাক ও ছিট কাপড়ের ব্যবসা প্রতিষ্ঠান। মামনি ফ্যাশনে কথা হয় কলেজ প্রভাষক নিখিল বিশ^াসের সাথে। দৈনিক কল্যাণকে তিনি বলেন, অভাব বোঝে না শিশু। তাই বাধ্য হয়ে শিশুদের জন্য কিছু রেডিমেন্ট পোশাক কিনতে এসেছি। তিনি বলেন, করোনার দাপট বিশে^র অর্থনীতির বাজারকে অসহায় করে তুলেছে। গত ৩ বছর ধরে হালহকিকত খুব খারাপ। বহু মানুষ বেকার হয়ে পড়েছে। টিউশনি করাই। কিন্তু অনেকেই সময় মতো বেতন দিতে পারছেন না। বেতনে সংসারের ঘানি টানতে হিমসিম খেতে হচ্ছে।
প্রতিষ্ঠানটির মালিক শিপলু মাদবর বলেন, দিনভর বেচাবিক্রি নেই। বিকেলের পর কিছু ক্রেতা আসছেন। তাদের কেনাকাটা চলছে শিশুদের ঘিরে। বড়দের পোশাক পড়ে আছে দোকানে। বেচাকেনায় এরকম মন্দা পরিস্থিতি নিকটাতীতে দেখি বলেও জানান এই পোশাক বিক্রেতা।
একই সড়কে জুয়েল, কুইন্স ও আয়েশা ফ্যাশানে যেন মাছি পড়ছে। এসব দোকানে দেখা মেলেনি কোনো ক্রেতার।

কালেক্টরেট মার্কেটে কথা হয় রমেন দাস নামে এক স্কুল শিক্ষকের সাথে। তিনি বলেন, নিজের ও ভাইদের ছেলে-মেয়ের জন্য পোশাক কিনতে ৯ হাজার টাকা নিয়ে এসেছিলাম। কিন্তু সবার জন্য কেনা হলো না। এখনো হাজার দশেক টাকা লাগবে জানিয়ে তিনি বলেন, তুলনামূলকভাবে পোশাকের দাম খুব বেশি বাড়েনি। বেতনের টাকায় সংসার চলছে না মন্তব্য করে তিনি বলেন, এখন বাচ্চাদের মন রক্ষায় ধারদেনা করে ফের বাজারে আসতে হবে।

গার্মেন্টস দোকানি রমেন রায় জানান, করোনার ভেতরেও দিনভর কিছু বেচাবিক্রি ছিল কিন্তু বর্তমান অবস্থা খুব খারাপ। তিনি বলেন, হিন্দু সম্প্রদায়ের সর্ববৃহৎ ধর্মীয় উৎসব শারদীয় দুর্গাপূজায় প্রতিবছর ভালোই বিক্রি হয়। এবারই প্রথম ক্রেতা শূন্য অবস্থা বিরাজ করছে মার্কেটজুড়ে। তিনি বলেন, আমার মতো অধিকাংশ দোকানি চরম হতাশায় ভুগছেন।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

সর্বশেষ

আর্জেন্টিনা বিশ্বকাপ থেকে বাদ পড়লে ব্রাজিলকে সমর্থন দেবেন স্কালোনি!

ক্রীড়া ডেস্ক: আর্জেন্টিনার কোচ লিওনেল স্কালোনি বলেছেন, আর্জেন্টিনা কাতার বিশ্বকাপ থেকে বাদ পড়ে গেলে...

মাগুরায় স্কুলছাত্রীর আত্মহত্যা

মাগুরা প্রতিনিধি : মাগুরা শহরের পশু হাসপাতাল পাড়ায় মিম (১৩) নামের এক স্কুলছাত্রী গলায়...

শতভাগ পাস ঝিকরগাছায় শীর্ষে বিএম হাইস্কুল

নিজস্ব প্রতিবেদক: যশোরের ঝিকরগাছা বদরুদ্দীন মুসলিম হাইস্কুলের শতভাগ পাসের সাফল্য এবারও উপজেলার শীর্ষে রয়েছে।...

শ্রীপুরে বীরমুক্তিযোদ্ধার বাড়ি ভাঙচুরের অভিযোগ

মাগুরা প্রতিনিধি: মাগুরা শ্রীপুর প্রেস ক্লাবের সাবেক সভাপতি ও বীর মুক্তিযোদ্ধা মরহুম মিয়া মাজেদুর...

পাইকগাছায় আইন শৃংখলা কমিটির সভা অনুষ্ঠিত

পাইকগাছা প্রতিনিধি :পাইকগাছা উপজেলা আইন শৃংখলা ও মাসিক সাধারণ সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। মঙ্গলবার সকালে...

মোরেলগঞ্জে শেখ রাসেল শিশু পার্ক উদ্বোধন

মোরেলগঞ্জ প্রতিনিধি: বাগেরহাটের মোরেলগঞ্জে শিশু বিনোদনের শেখ রাসেল শিশু পার্কের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করেছেন বাগেরহাট...