শনিবার, সেপ্টেম্বর ২৪, ২০২২

যশোরে ১০ লাখ টাকা না দেয়ায় মামলা দিয়ে হয়রানি

নিজস্ব প্রতিবেদক :

মঙ্গলবার প্রেসক্লাব যশোরে চাঁচড়া পুলিশ ফাঁড়ির সাবেক ইনচার্জ ইন্সপেক্টর রোকিবুজ্জামানের বিরুদ্ধে সংবাদ সম্মেলন করা হয়। ১০ লাখ টাকা না দেয়ায় রোকিবুজ্জামান মিথ্যা অভিযোগ এনে ষড়যন্ত্রমূলক মামলা দায়ের করেছেন বলে সংবাদ সম্মেলনে অভিযোগ করেন মাদকাসক্ত নিরাময় ও পুনর্বাসন কেন্দ্রের সাবেক পরিচালক ও ডেন্টিস্ট পয়েন্টের পরিচালক পূর্ববারান্দীপাড়ার বাসিন্দা মাসুম কবীর।

তবে রোকিবুজ্জামান মোবাইল ফোনে ষড়যন্ত্রের কথা অস্বীকার করে জানান, একটি হত্যা মামলার চার্জশিটভুক্ত আসামি মাসুম কবীর। হত্যা মামলাটি ভিন্ন খাতে নিতেই এ ধরণের অপপ্রচার চালাচ্ছে মাসুম।

সংবাদ সম্মেলনে বলা হয়, রোকিবুজ্জামানের নির্দেশেই গত ১২ আগস্ট কোতোয়ালি থানায় একটি প্রতারণা মামলা করেন মিহির নামের এক ব্যক্তি। মিহিরকে চেনেন না মাসুম। পরে পুলিশ তাকে আটক করে আদালতে সোপর্দ করে। ইন্সপেক্টর রোকিবুজ্জামান বর্তমানে খুলনাতে কর্মরত।

সংবাদ সম্মেলনে মাসুম আরও বলেন, ২০২১ সালের ২২ মে মাদকাসক্ত নিরাময় ও পুনর্বাসন কেন্দ্রে মাহাফুজুর রহমান নামে এক রোগীকে পিটিয়ে হত্যা করে অন্য রোগীরা। ঘটনার তদন্ত করেছিলেন রোকিবুজ্জামান। এ ঘটনার সিসি ফুটেজ দেখে অপরাধীদের সনাক্ত করা হয়।

তাদেরকে আটকও করা হয়। এরপর ওই মামলায় মাসুম কবীরকে জড়ানোর ভয় দেখিয়ে ১০ লাখ টাকা দাবি করেন রোকিবুজ্জামান। টাকা না দেয়ায় আটক আসামিদের মারপিট করে তাদের মুখ দিয়ে মাসুম কবীরের নাম বলানোর চেষ্টা করা হয়। এক পর্যায় তাকে ওই হত্যা মামলার আসামি করা হয়। তিনি জেল থেকে জামিনে বের হয়ে এ বিষয়ে দুদকে অভিযোগ ও আদালতে মামলা করেন। এরপর ওই মামলা তুলে নিতে নানা ধরণের ভয়ভীতি দেন রোকিব। মামলা তুলে না নিলে আরও মামলা দিয়ে হয়রানির ভয় দেখান তিনি। এক পর্যায় এ বিষয়ে মাসুম পুলিশ সদর দপ্তর ও ডিআইজি খুলনা রেঞ্জ বরাবর লিখিত অভিযোগ দেন।

মাসুম কবীর দাবি করেন, এর জেরেই গত ১২ আগস্ট তার বিরুদ্ধে মিহির মিত্র নামের একজন কোতোয়ালি থানায় একটি ষড়যন্ত্রমূলক মামলা দায়ের করেন। ওই মামলায় তাকে আটক করা হয়। যার নেপথ্যে রয়েছেন রোকিবুজ্জামান। সংবাদ সম্মেলনে মাসুম কবীরের স্ত্রী ফারজানা ইয়াসমিন ও দুই শিশু সন্তান উপস্থিত ছিলেন।

এ বিষয়ে মামলার বাদী মিহির মিত্র জানান, তার এক স্বজনকে মাদক নিরাময় কেন্দ্রে ভর্তির জন্য ২০২১ সালের ২২ মে ৩০ হাজার টাকা নেন মাসুম কবীর। কিন্তু হত্যার ঘটনার পর আর ভর্তি করা হয়নি বন্ধ হয়ে যায় ওই কেন্দ্র। পরে ওই টাকা ফেরত চাইলে নানা ভাবে ঘুরাতে থাকে। বাধ্য হয়ে তিনি মামলা করেন।

অভিযোগের বিষয়ে রোকিবুজ্জামান মোবাইল ফোনে জানান, একটি হত্যা মামলার চার্জশিটভুক্ত আসামি মাসুম কবীর। তার হুকুমেই রোগীকে হত্যা করা হয়েছিলো। যা অপর আসামি ও সাক্ষীদের দেয়া জবানবন্দিতে উঠে এসেছে। হত্যা মামলাটি ভিন্নখাতে নিতেই এ ধরণের অপপ্রচার চালাচ্ছে মাসুম। এছাড়া তিনি যশোর থেকে বদলি হয়ে অন্যাত্র কাজ করছেন। মাসুমের বিরুদ্ধে কি মামলা হয়েছে সে বিষয়ে জানা নেই।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

সর্বশেষ

মায়ের সন্ধানে পথে পথে ছেলে

রাজপথে আছি, রাজপথেই থাকবো : নার্গিস বেগম (ভিডিওসহ)

নিজস্ব প্রতিবেদক : যশোর জেলা বিএনপির আহ্বায়ক অধ্যাপক নার্গিস বেগম বলেছেন, সরকার তার মসনদ টিকিয়ে...

বাঁকড়ায় সরকারি গাছ কাটার অভিযোগ

নিজস্ব প্রতিবেদক : ঝিকরগাছার বাঁকড়ায় সরকারি খাস জমি থেকে কয়েক লক্ষাধিক টাকার রেইনট্রি গাছ কাটার...

পহেলা অক্টোবর থেকে যশোরে পরিবহন চলাচল বন্ধ !

শনিবার যশোর জেলা পরিবহন সংস্থা শ্রমিক ইউনিয়নের নিজস্ব কার্যালয়ে সংগঠনের সভাপতি আজিজুল আলম মিন্টুর...

ঝিকরগাছায় অবৈধভাবে সার বিক্রিকালে ১৫ বস্তা উদ্ধার

নিজস্ব প্রতিবেদক : যশোরের ঝিকরগাছা উপজেলা বাজারে অবৈধভাবে সার বিক্রির সময় ১৪ বস্তা ইউরিয়া ও...

কেশবপুরে ভাটা মালিক ও সার ব্যবসায়ীকে জরিমানা

গৌরীঘোনা প্রতিনিধি : যশোরের কেশবপুরে ভাটা মালিক ও সার ব্যবসায়ীকে জরিমানা করা হয়েছে। চুকনগর-সোলঘাতিয়া সড়কের...

প্রেসক্লাব যশোরের সভাপতির ভগ্নিপতির ইন্তেকাল, শোক

প্রেসক্লাব যশোরের সভাপতি জাহিদ হাসান টুকুনের ভগ্নিপতি শামীম উদ্দীন (৭৩) আর নেই। শনিবার বাংলাদেশ...