সোমবার, অক্টোবর ৩, ২০২২

যশোর আদালতে বিচারাধীন মামলা ৮২ হাজার

নিজস্ব প্রতিবেদক :

যশোর আদালতে বিচারাধীন মামলার জট বেধেছে। পুরনো মামলার সাথে প্রতি বছর নতুন নতুন মামলা যুক্ত হয়ে সেটা এখন পৌছেছে ৮২ হাজার ৩৪৩টিতে। মামলার এ জট খুলতে চেষ্টা করছে বিচার বিভাগ। বছরের পর বছর যেন বিচার প্রার্থীদের অপেক্ষা করতে না হয় সেজন্য ইতোমধ্যে নানান উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। বাংলাদেশের প্রধান বিচারপতি আটটি বিভাগের জন্য ৮টি মনিটরিং কমিটি গঠন করে সমস্যাবলী চিহ্নিত করে সমাধানের উদ্যোগ নিয়েছেন। সেই উদ্যোগের অংশ হিসেবে রোববার যশোর জেলা ও দায়রা জজ আদালতের সভাকক্ষে জেলার বিচারকদের সাথে মতবিনিময় করেছেন খুলনা বিভাগের অধঃস্তন দায়িত্বপ্রাপ্ত হাইকোর্টের বিচারপতি জাহাঙ্গীর হোসেন।

অনুষ্ঠানের শুরুতে আদালতের বিভিন্ন ধরণের উন্নয়নমূলক কার্যক্রম তুলে ধরে নানা সমস্যার বিষয়টি বিচারপতিকে অবগত করা হয়। যশোরের আদালতে মামলার পরিসংখ্যান তুলে ধরা হয় প্রধান অতিথির সামনে। সেই পরিসংখ্যান অনুযায়ী যশোর আদালতে চলতি বছরে ২৬ হাজার ৪০৬টি মামলা নিষ্পত্তি হয়েছে। আদালতে চলতি বছরে মামলা দাখিল হয়েছে ২৭ হাজার ৭৩৯টি। বর্তমানে চিফ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে ২৬ হাজার ৮১৩, নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল আদালত ও স্পেশাল জজ আদালতে তিন হাজার ৩৭৬ এবং জেলা ও দায়রা জজ আদালতে ৫২ হাজার ১৫৪টিসহ আদালতে বিচারাধীন মামলার সংখ্যা ৮২ হাজার ৩৪৩টি।

অতিথিদের সামনে উপস্থাপন করা তথ্য মতে, যশোর জেলা ও দায়রা জজ আদালতে গত বছরের ৩১ ডিসেম্বর পর্যন্ত মামলা ছিল ৫৪ হাজার ৪৩৭টি। চলতি বছরে মামলা হয়েছে ১১ হাজার ১৩০ টি। চলতি বছরে ১৩ হাজার ৩৭২টি মামলা নিষ্পত্তি হয়েছে। তারমধ্যে ৪ হাজার ২০৮টি দেওয়ানি মামলা এবং ৯ হাজার ১৬৪ টি ফৌজদারি মামলা। বর্তমানে জেলা ও দায়রা জজ আদালতে ৫২ হাজার ১৫৪টি বিচারাধীন মামলা রয়েছে। তার মধ্যে দেওয়ানি রয়েছে ৩৩ হাজার ৯৪১টি ও ফৌজদারি রয়েছে ১৮ হাজার ২১৩টি মামলা। নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালের দুই আদালত ও স্পেশাল জজ আদালতে গত বছরের ৩১ ডিসেম্বর পর্যন্ত মামলা ছিলো ২ হাজার ৩৩২টি। চলতি বছরে মামলা দায়ের হয়েছে ১ হাজার ৮৫৫টি। এ দুই আদালতে ৮১১ মামলা নিষ্পত্তি হয়েছে। বর্তমানে বিচারাধীন রয়েছে ৩ হাজার ৩৭৬টি। এছাড়া চিফ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে গত বছরের ৩১ ডিসেম্বর পর্যন্ত মামলা ছিলো ২৪ হাজার ২৮২ টি। মামলা হয়েছে ১৪ হাজার ৭৫৪ টি। নিষ্পত্তি হয়েছে ১২ হাজার ২২৩টি। বর্তমানে বিচারাধীন রয়েছে ২৬ হাজার ৮১৩ টি।

মতবিনিময় সভায় বিচারপতি জাহাঙ্গীর হোসেন বলেন, বিচার বিভাগকে আধুনিকায়ন করা হচ্ছে। এর জন্য সকল সমস্যা চিহ্নিত করে সেগুলো নিরসনের ব্যবস্থা গ্রহণ করছেন সুপ্রিমকোর্ট। বাংলাদেশের প্রধান বিচারপতি আটটি বিভাগের জন্য ৮টি মনিটরিং কমিটি গঠন করে সমস্যাবলী চিহ্নিত করে সমাধানের উদ্যোগ নিয়েছেন। আমাদের অঙ্গিকার সাধারণ মানুষের মাঝে বিচার ব্যবস্থা নিয়ে যাতে কোন প্রশ্ন না ওঠে সেই চেষ্টা করা। এবং সাধারণ মানুষ বিচার ব্যবস্থার উপর সর্বোচ্চ বিশ্বাস রাখবে এবং বিচারকদের প্রতি সম্মান আরও বেড়ে যাবে।

তিনি বলেন, জুডিসিয়াল ক্ষেত্রে বিচারের জন্য জনসাধারণসহ সকল নাগরিক বিশেষ ক্ষেত্রে নারী ও শিশু এবং দরিদ্র জনগোষ্ঠী যেন হয়রানি না হয় সেদিকে খেয়াল রেখে দ্রুত ও সঠিক বিচার ব্যবস্থার প্রয়োগ করতে হবে। পুরাতন মামলা যেগুলা বিচারাধীন সেগুলো কেন দ্রুত বিচার হচ্ছে না এগুলো আমরা চিহ্নিত করছি। কি করলে সেগুলো দূর হবে এবং কি করলে মানুষের দোরগোড়ায় সেবা পৌঁছাবে এবং মানুষ ন্যায়বিচার পেতে পারবে তা তদারকি করা হচ্ছে। পুলিশ ও বিচার বিভাগ প্রশাসন যার যতটুকু দায়িত্ব আছে সেগুলো করা হচ্ছে কিনা এসব বিষয়গুলো দেখা হচ্ছে। সকল সমস্যা নিরসন করে বিচার বিভাগকে আধুনিকায়ন করতে যে পদক্ষেপ নেয়ার দরকার সেগুলো আমরা করবো।

বিচারপতি মো. জাহাঙ্গীর হোসেন আরও বলেন, প্রত্যেক আদালতে নেজারত, নকল খানাসহ অনেক সেকশন রয়েছে। নোটিশ জারির ক্ষেত্রে কেন দেরি হবে, সেগুলো দ্রুতকরণ করা হবে, রায় যেগুলো দেয়া হয় সেগুলো যেন সাধারণ মানুষ বুঝতে পারেন, জানতে পারেন।

তিনি বলেন, আদালতে বিচার প্রক্রিয়া নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে সম্পন্ন করা হলে বিচারপ্রার্থীদের মাঝে আস্থা ও বিচারকদের প্রতি সম্মান বেড়ে যাবে। তাই বিচার প্রক্রিয়া যাতে কোনভাবেই বিলম্বিত না হয়, সেজন্য বিচার বিভাগীয় কর্মকর্তা ও আইনজীবীদের সচেতন হতে হবে।

যশোর জেলা ও দায়রা জজ ইখতিয়ারুল ইসলাম মল্লিকের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বক্তব্য দেন জেলা প্রশাসক তমিজুল ইসলাম খান, পুলিশ সুপার প্রলয় কুমার জোয়ারদার, প্রেসক্লাব যশোরের সভাপতি জাহিদ হাসান টুকুন, যশোর সাংবাদিক ইউনিয়নের সভাপতি ফারাজী আহমেদ সাঈদ বুলবুল প্রমুখ।

অনুষ্ঠানে বিচারকদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল-২ এর বিচারক নিলুফার শিরীন, স্পেশাল জেলা ও দায়রা জজ সামসুল হক, নারী ও শিশু নির্যাতন দমন-১ এর বিচারক গোলাম কবির, ভারপ্রাপ্ত চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মারুফ আহম্মেদসহ জজশীপ ও ম্যাজেস্ট্রিসির বিচারকবৃন্দ। অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মঞ্জুরুল ইসলাম। অনুষ্ঠান শেষে জেলা ও দায়রা জজ আদালতের পক্ষ থেকে ক্রেস্ট প্রদান করা হয়।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

সর্বশেষ

চিকিৎসায় নোবেল পেলেন সুইডেনের জিনবিজ্ঞানী সান্তে প্যাবো

কল্যাণ ডেস্ক : চিকিৎসা বিজ্ঞানে এ বছর নোবেল পুরস্কার পেয়েছেন সুইডেনের জিনবিজ্ঞানী সান্তে প্যাবো। আজ...

সয়াবিন তেলের দাম কমল লিটারে ১৪ টাকা

কল্যাণ ডেস্ক : আন্তর্জাতিক বাজারে দাম কমায় অবশেষে দেশের বাজারেও কমল সয়াবিন তেলের দাম। এর...

কুয়েত সরকারের পদত্যাগ

কল্যাণ ডেস্ক: সংসদ নির্বাচনে বিরোধীরা সংখ্যাগরিষ্ঠতা পাওয়ায় উপসাগরীয় দেশ কুয়েতে সরকার পদত্যাগ করেছে। রোববার...

শাকিব এই দেশ ছেড়ে চলে যাক: ডিপজল

বিনোদন ডেস্ক: ঢালিউডে এই সময়ের সমালোচিত নাম শাকিব। ঢাকাই সিনেমার জনপ্রিয় এই অভিনেতা ও...

বউকে ফিরিয়ে নিতে যুবকের অভিনব নাটক

কল্যাণ ডেস্ক : বউকে সংসারে ফিরিয়ে নিতে অভিনব কৌশলের আশ্রয় নিয়েছেন এক যুবক। কৌশলের আদ্যপান্ত...

লোহাগড়ায় সড়ক দুর্ঘটনায় বিএনপি নেতা আহত

নড়াইল প্রতিনিধি : নড়াইলের লোহাগড়া উপজেলা বিএনপির সদস্য সচিব কাজী সুলতানুজ্জামান সেলিম সড়ক দুর্ঘটনায় মারাত্বক...