Sunday, July 3, 2022

যশোর এলজিইডি
১০ বছরে এক হাজার ৩৭৩ কোটি টাকা ব্যয়ে ১২৪ দশমিক ৯৬৬ কিলোমিটার রাস্তা নির্মাণ

কল্যাণ রিপোর্ট
গত ১০ বছরে স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তর (এলজিইডি) যশোর জেলায় এক হাজার ৩৭৩ কোটি ৪৩ লাখ টাকা ব্যয়ে এক হাজার ১২৪ দশমিক ৯৬৬ কিলোমিটার রাস্তা নির্মাণ করেছে। একই সাথে ১৬১ কোটি ৯৪ লাখ টাকা ব্যয়ে ২ হাজার ১২৩ দশমিক ৫৫ মিটার ব্রিজ করেছে। এসময় এক হাজার ৪১৩ কিলোমিটার সড়ক এবং ৯৩ মিটার ব্রিজ-কালভার্ট রক্ষণাবেক্ষণে ব্যয় করেছে ৫৪০ কোটি টাকা।

শার্শা উপজেলার বেনাপোল ডিসি সড়ক থেকে বাহাদুরপুর ইউপি হেডকোয়াটার হয়ে ঘিবা পর্যন্ত ৪ দশমিক ৪৫৫ কিলোমিটার ২ কোটি ৬৫ লাখ ৭ হাজার টাকা ব্যয়ে নির্মাণ করে সরকারের সেবাদানকারী প্রতিষ্ঠানটি। এতে করে সড়কটি দিয়ে ৮-১০টি গ্রামের মানুষ সহজে বেনাপোল বন্দর পর্যন্ত যাতায়াত করতে পারছে।
যশোর সদরের বসুন্দিয়া থেকে বাঘারপাড়া উপজেলার ধলগাঁ সড়ক ১০ কোটি টাকা নতুন করে নির্মাণ করে যশোর এলজিইডি। এতে অন্তত ১০টি গ্রামের মানুষের ভোগান্তি লাঘব হয়েছে।

শার্শা উপজেলা প্রকৌশলী এমএম মামুন হাসান জানান, আমাদের অধীন গ্রামের তৃণমূল পর্যন্ত সড়ক রয়েছে এক হাজার ১৮২ কিলোমিটার। যার মধ্যে ৭১২ কিলোমিটার সড়ক কাঁচা। মানুষের উন্নত যেগাযোগ ব্যবস্থার সুবিধা দিতে আমরা কাজ করে যাচ্ছি। সরকারের বরাদ্দ সাপেক্ষে প্রতিবছর নতুন সড়ক নির্মিত হচ্ছে। আবার পুনঃনির্মাণ কাজ চলছে প্রতিনিয়ত।

সদর উপজেলা প্রকৌশলী নাজমুল হুদা জানান, গ্রামীণ সড়ক রক্ষণ-বেক্ষণ হলো এলজিইডি’র কাজ। সরকারের নির্দেশনা অনুযায়ি আমরা সড়ক নির্মাণে নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছি।

যশোর স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তরের অধীন জেলায় মোট সড়ক রয়েছে ৯ হাজার ২৪০ দশমিক ৪ কিলোমিটার। জেলার ৮টি উপজেলার মধ্যে সবচেয়ে বেশি সড়ক রয়েছে মণিরামপুর উপজেলায় ৩৫৪ দশমিক ৬ কিলোমিটার সড়ক। আর কম রয়েছে কেশবপুরে ১৭৫ দশমিক ১১ কিলোমিটার। এছাড়া অভয়নগরে সড়ক রয়েছে ১৭৭ দশমিক ৪ কিলোমিটার, বাঘারপাড়ায় ২০৫ দশমিক ৭ কিলোমিটার, চৌগাছায় ২১৪ দশমিক ১০ কিলোমিটার, ঝিকরগাছায় ২৯৮ দশমিক ৬ কিলোমিটার, সদরে ৩১৭ দশমিক ৭ কিলোমিটার এবং শার্শা উপজেলায় সড়ক রয়েছে এক হাজার ১৮২ কিলোমিটার।

শার্শা উপজেলা প্রকৌশলী এম মামুন হাসান জানান, আমাদের অধীন গ্রামের তৃণমূল পর্যন্ত সড়ক রয়েছে এক হাজার ১৮২ কিলোমিটার। আমরা গ্রামীণ সড়ক নির্মাণে কাজ করে যাচ্ছি। কেননা বর্তমান সরকার গ্রামীণ অবকাঠামো উন্নয়নে জোর দিয়েছেন। সড়ক উন্নয়ন না হলে মানুষের জীবনমান উন্নয়ন সম্ভব নয়, যে কারণে সরকারের নির্দেশনা অনুযায়ি সড়ক ও ব্রিজ নির্মাণ করা হচ্ছে।

যশোর এলজিইডির নির্বাহী প্রকৌশলী একেএম আনিছুজ্জামান জানান, জেলার অর্থনৈতিক উন্নয়নে সবার আগে প্রয়োজন সড়ক উন্নয়ন। সড়ক উন্নয়নের কারণে গ্রামীণ মানুষের জীবনে উন্নয়ন হচ্ছে। সরকারের নির্দেশনা মেনে এলজিইডি সড়ক ও ব্রিজ নির্মাণে নিরলসভাবে কাজ করছে। করা হচ্ছে সড়ক রক্ষণাবেক্ষণের কাজ। একই সাথে আমরা বাজার উন্নয়ন ও সড়কের পাশে গাছ রোপণ করেছি। চলতি বছর ৭৩ কোটি ৫০ লাখ টাকার সড়ক ও কালভার্ট মেরামত করা হবে।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

সর্বশেষ

রাজপথে নেই যশোর জাতীয় পার্টি 

এক বছর আগে হয়েছে সম্মেলন প্রস্তুতি কমিটি দিনে দলীয় কার্যালয় থাকে বন্ধ, মাঝে মধ্যে সন্ধ্যায়...

যশোরে দৈনিক ২০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ ঘাটতি, লোডশেডিংয়ে অতিষ্ঠ জনগণ

নিজস্ব প্রতিবেদক :  ঋতুচক্রে এখন মধ্য আষাঢ়। কিন্তু ভ্যাপসা গরম কাটছে না। গরমে মানুষ অতিষ্ঠ...

ধর্ম-কর্মের খোঁজ নেই মসজিদ নিয়ে মারামারি

হাদিস শরিফে মসজিদকে সর্বোত্তম স্থান হিসেবে উল্লখ করা হয়েছে। এখানে মহান আল্লাহর এবাদতে যেভাবে...

সোনালি আঁশে সুদিনের স্বপ্ন দেখছেন নড়াইলের চাষিরা

নড়াইল প্রতিনিধি বোরো ধানের পর নড়াইলে পাট চাষে অর্থনৈতিক সচ্ছলতার স্বপ্ন দেখছেন কৃষাণ-কৃষাণীরা। উৎপাদন ভালো...

শিক্ষক হত্যা ও লাঞ্ছিতের প্রতিবাদে বাকবিশিস যশোরের মানববন্ধন

নিজস্ব প্রতিবেদক :  নড়াইলে কলেজ অধ্যক্ষের গলায় জুতার মালা পরানো ও সাভারে শিক্ষককে পিটিয়ে হত্যার...

বিল হরিণায় বিসিক-২ বাস্তবায়ন দাবিতে রাজপথে নেমেছেন এলাকাবাসী

নিজস্ব প্রতিবেদক : যশোর সদর উপজেলার রামনগর ইউনিয়নের বিল হরিণায় প্রস্তাবিত লাইট ইঞ্জিনিয়ারিং শিল্প পার্ক...