যশোর শাখার একাবিংশ সম্মেলন উদ্বোধন
সাংস্কৃতিক অবক্ষয় প্রতিরোধে কাজ করে যাচ্ছে উদীচী

রায়হান সিদ্দিক: উদীচী জন্মলগ্ন থেকেই সাম্প্রদায়িকতার বিরুদ্ধে সাংস্কৃতিক লড়াই করে আসছে। অসাম্প্রদায়িক চেতনায় বিশ্বাসী উদীচী শিক্ষা ও সাংস্কৃতিক ক্ষেত্রে পতাকা উঁচিয়ে রেখেছে। বর্তমানে সারাদেশে যে সাংস্কৃতিক অবক্ষয় চলছে উদীচী তার কর্মকা ণ্ডের মধ্য দিয়ে সেই অবক্ষয়কে প্রতিরোধ করার চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে। সাংস্কৃতিক অঙ্গণে একমাত্র উদীচী মহান স্বাধীনতা যুদ্ধের সময় সশস্ত্র এবং শৈল্পিক কণ্ঠ দিয়ে যুদ্ধ করেছে এমন গৌরব উজ্জ্বল ইতিহাস পৃথিবীতে আর দ্বিতীয়টি নেই।

শ্রেণিভেদ ভাঙি শোষিতের রোষে, সম্প্রতির মালা গাঁথি ভেদাভেদ নাশে- স্লোগান নিয়ে বাংলাদেশ উদীচী শিল্পীগোষ্ঠী যশোর জেলা সংসদের একাবিংশ সম্মেলনের উদ্বোধনী পর্বে বক্তারা এসব কথা বলেন।
বৃহস্পতিবার উদীচী কার্যালয়ে এ সম্মেলনের উদ্বোধন করেন চুকনগর গণহত্যা ঘটনার প্রত্যক্ষ স্বাক্ষী এরশাদ আলী মোড়ল।

উদ্বোধনী পর্বে উদীচী জেলা সংসদের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি মাহবুবুর রহমান মজনুর সভাপতিত্বে শুভেচ্ছা বক্তব্য দেন সম্মেলন প্রস্তুতি পরিষদের চেয়ারম্যান ও দৈনিক কল্যাণ সম্পাদক বীরমুক্তিযোদ্ধা একরাম-উদ-দ্দৌলা ও উদীচী কেন্দ্রীয় কমিটির সহসভাপতি হাবিবুল আলম।

একরাম-উদ-দ্দৌলা বলেন, উদীচী তার জন্মলগ্ন থেকেই দেশের মানুষকে ঘোর আঁধারে আলোর পথ দেখিয়ে আসছে। শত প্রতিকূল পরিস্থিতিতে উদীচী কখনও তার লক্ষ্য থেকে বিন্দুমাত্র বিচ্যুত হয়নি। এই বাংলাদেশ সাম্প্রদায়িকতা, গণতন্ত্রহীনতা আর শোষণ-বৈষম্যের যাঁতাকলে পিষ্ট। এই অবরুদ্ধতার বিরুদ্ধে উদীচী তার আদর্শের সংগ্রাম, গণতন্ত্রের জন্য লড়াই অব্যাহত রাখবে। অসাম্প্রদায়িক বাংলাদেশ গড়তে উদীচীর সাংস্কৃতিক লড়াই চলছে চলবে।

হাবিবুল আলম বলেন, কেন্দ্রীয় কমিটির সিদ্ধান্ত অনুযায়ী সারাদেশে উদীচীর সম্মেলন চলমান। তারই প্রেক্ষিতে উদীচী যশোর জেলা সংসদের একাবিংশ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হচ্ছে। এবারের সম্মেলন সারাদেশে সাংস্কৃতিক অবক্ষয় রোধে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করবে।

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানের শুরুতে জাতীয় সংগীতের মধ্য দিয়ে জাতীয় পতাকা ও সংগঠনের উত্তোলন করা হয়। পরে উদীচীর নিজস্ব সংগীত পরিবেশন করেন উদীচীর শিল্পীরা। এরপর বেলুন উড়িয়ে আনুষ্ঠানিকভাবে তিনদিন ব্যাপি এই সম্মেলনের উদ্বোধন করা হয়। এদিন সম্মেলনে উদীচী কার্যালয়ে বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়, উপজেলা শাখা ও যশোরের বিভিন্ন সাংস্কৃতিক, সামাজিক সংগঠনের নেতৃবৃন্দের উপস্থিতিতে মিলনমেলায় রূপ নেয়। উদ্বোধনী পর্ব শেষে অসাম্প্রদায়িক বাংলাদেশ গড়ার প্রত্যয়ে আনন্দ র‌্যালি বের করা হয়। র‌্যালিতে দেখা যায় হিন্দু, বৌদ্ধ, খ্রিস্টান, মুসলিম হাতে হাত রেখে কাধে কাধ মিলিয়ে একসাথে হাঁটছেন।

এসময় উপস্থিত ছিলেন, উদীচী কেন্দ্রীয় কমিটির সংগঠন সম্পাদক কংকন নাথ, মুজিব বাহিনীর বৃহত্তর যশোর জেলার উপঅধিনায়ক রবিউল আলম, বীরমুক্তিযোদ্ধা রুকুনদ্দৌলাহ, বীরমুক্তিযোদ্ধা অশোক রায়, বাংলাদেশের ওয়ার্কাস পার্টির (মার্কসবাদি) সাধারণ সম্পাদক ইকবাল কবির জাহিদ, জেলা শিল্পকলা একাডেমীর সাবেক সাধারণ সম্পাদক মাহমুদ হাসান বুলু, সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোটের সহসভাপতি দীপংকর দাস রতন, বাংলাদেশ মহিলা পরিষদ জেলা শাখার সাধারণ সম্পাদক তন্দ্রা ভট্টাচার্য্য, সাংগঠনিক সম্পাদক ফারদিনা রহমান এ্যানি প্রমুখ।

উল্লেখ্য তিনদিনের কর্মসূচিতে আজ দ্বিতীয় দিনে খুলনার চুকনগরে পৃথিবীর ইতিহাসে স্বল্প সময়ে সর্বোচ্চ হত্যাকা-কে জেনোসাইড হিসেবে আন্তর্জাতিক স্বীকৃতির দাবিতে উদীচী যশোরের সমাবেশ ও শ্রদ্ধাঞ্জলি ও স্মরণানুষ্ঠান হবে। তৃতীয় দিন শনিবার যশোর শিল্পকলা মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত হবে সাংগঠনিক অধিবেশন।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে