রাতুল হত্যা মামলায় ৩ জনকে নামে চার্জশিট

jessore map

কল্যাণ রিপোর্ট
স্কুল ছাত্র এহতেশাম মাহমুদ রাতুল হত্যা মামলায় বোন-দুলাভাইসহ তিনজকে অভিযুক্ত চার্জশিট দিয়েছে যশোরের ডিবি পুলিশ। হত্যা মামলার তদন্ত শেষে আদালতে এ চার্জশিট জমা দিয়েছেন ডিবি পুলিশের এসআই শামীম হোসেন। রাতুল ঝিনাইদহের মহেশপুরের বাজিপোতা গ্রামের মহিউদ্দিনের ছেলে ও সামবাজার এমপিবি মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের ১০ম শ্রেণির ছাত্র।

অভিযুক্ত আসামিরা হলো কোটচাঁদপুরের কাশিপুর গ্রামের শিশির আহমেদ, তার স্ত্রী ও নিহতের বোন মাহমুদা মমতাজ মীম ও বন্ধু একই গ্রামের শাওন।

মামলার অভিযোগে জানা গেছে, চলতি বছরের ১১ জুলাই দুপুরে রাতুল বাড়ি থেকে বের আর ফেরেনি। পরদিন বিকেলে যশোরের চৌগাছার লস্করপুর শ্মশান মাঠের একটি পাটক্ষেত থেকে মুখে স্কচটেপ দিয়ে মোড়ানো অবস্থায় রাতুলের লাশ উদ্ধার করা হয়। সংবাদ পেয়ে নিখোঁজ রাতুলের পিতা শনাক্ত করেন। ১৩ জুলাই নিহতের পিতা মহিউদ্দিন চৌগাছা থানায় হত্যা মামলা করেন। মামলাটি প্রথমে থানা পুলিশ পরে ডিবি পুলিশ তদন্তের দায়িত্ব পায়। আসামি করে ১৩ জুলাই চৌগাছা থানায় মামলা করেন।

মামলার তদন্ত সূত্রে জানা গেছে, রাতুলের বোন মীমের সাথে শিশিরের প্রেমের সম্পর্ক ছিল। তারা পালিয়ে বিয়ে করে। প্রথমে মীমের পিতা মেনে না নিলেও পরে মেনে নেন। জামাই শিশিরকে তার বাড়িতে ডেকে এনে অপমান অপদস্ত করেন। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে শিশির ও তার স্ত্রী পরিকল্পনা করে ঘটনার দিন রাতুলকে ডেকে এনে চৌগাছা মাঠের পাট ক্ষেতে নিয়ে বন্ধুর সহযোগিতায় নেশাজাতীয় দ্রব্য খাওয়ায়ে মুখে টেপ পেচিয়ে হত্যা করে ফেলে রেখে যায়। এ মামলার তদন্তকালে ঘটনার সাথে জড়িত থাকার অভিযোগে দুলাভাই শিশিরকে আটক করা হয়। আটক শিশির হত্যার কথা স্বীকার করে আদালতে জবানন্দি দেয়। আসামির দেয়া তথ্য ও স্বাক্ষীদের বক্তব্যে হত্যার সাথে জড়িত থাকায় ওই তিনজনকে অভিযুক্ত করে আদালতে এ চার্জশিট জমা দিয়েছেন তদন্তকারী কর্মকর্তা।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে