Wednesday, July 6, 2022

শিল্পায়নের উপর পদ্মা সেতুর প্রভাব…..

ছোলজার রহমান: শিল্প স্থাপনের জন্য যেমন উদ্যোক্তা, মূলধন, শক্তিসম্পদ, কারিগরী জ্ঞান-প্রযুক্তি ও যন্ত্রপাতি প্রয়োজন তেমনি প্রয়োজন কাঁচামাল, সহজলভ্য ও দক্ষ শ্রমিক, চাহিদা ও দেশী-বিদেশী বাজার, সমতল ভূমি, পরিবহণ ব্যবস্থা, পানি সরবরাহ এবং সরকারি নীতি ও পৃষ্টপোষকতা। পরিবহণ সুবিধা সম্বলিত সমতল এলাকায় সকল উপাদান বিভিন্ন স্থান থেকে বহণ করে এনেও শিল্প স্থাপন করা যায়। মুনাফা নির্ভর করবে দ্রব্যের চাহিদা ও সহজলভ্য পরিবহণ ব্যবস্থার উপর। বিপুল পরিমাণে ভারী কাঁচামাল নির্ভর এবং উৎপাদিত পণ্যদ্রব্যও ভারী ও পর্যাপ্ত উৎপাদন বিশিষ্ট-এরূপ বৃহদাকৃতির শিল্প স্থাপনের জন্য সর্বপ্রথমেই বিবেচনা করতে হয় উন্নত ও সহজতর পরিবহণ ব্যবস্থা, কাঁচামালের উৎস এবং বাজারের দূরত্ব। এসব প্রয়োজনীয় ও বিবেচ্য বিষয়ের মধ্যে শক্তি সম্পদ, দক্ষ শ্রমিক, কাঁচামাল, কারিগরী ও প্রযুক্তিগত জ্ঞান ও দক্ষতা এবং উন্নত পরিবহণ ব্যবস্থার ক্ষেত্রে বাংলাদেশে এখনও ঘাটতি রয়েছে। বিগত এক দশক থেকে শক্তি উৎপাদন, শ্রমিকের দক্ষতা বৃদ্ধি এবং পরিবহণ ব্যবস্থায় উন্নয়ন ঘটানোর জন্য বাংলাদেশ ব্যাপক প্রচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে। ছোট বড় অনেক নদীর কারণে সড়ক ও রেলপথের নেটওয়ার্ক খন্ড-বিখন্ড ও বিভক্ত ছিল। ছোট ছোট ব্রিজ ও কালভার্টসমূহ দেশীয়ভাবে নির্মাণ করা হলেও বড় নদীসমূহের ক্ষেত্রে মূলধন, সুদের হার, প্রযুক্তিগত জ্ঞান ও কারিগরী সহায়তার জন্য বৈদেশিক সাহায্য-সহযোগিতার উপর নির্ভর করতে হতো। ফলে রাতারাতি বা তাড়াতাড়ি পরিবহণ ব্যবস্থা উন্নত করা সম্ভব হয়ে ওঠেনি। বঙ্গবন্ধু সেতু, খানজাহান আলী সেতু, লালন শাহ্ সেতু, কর্ণফুলি সেতু, তিস্তা সেতু, ভৈরব সেতু, ব্রহ্মপুত্র সেতু, দড়াটানা সেতু, বরিশাল ও পটুয়াখালিতে পাঁচটি সেতু পরিবহণ ও যোগাযোগ ব্যবস্থার জন্য সময় ক্ষেপনের প্রাকৃতিক প্রতিবন্ধকতাকে অনেকটাই দূর করে শিল্প স্থাপনের জন্য পরিবেশ সৃষ্টি করতে সক্ষম হয়েছে। নবীন পলি সঞ্চিত গাঙ্গেয় ব-দ্বীপ, মৃতপ্রায় ও সক্রিয় বদ্বীপ এবং উপকূলীয় অবস্থান হওয়ায় দক্ষিণ-পশ্চিমাংশের ২১ জেলায় পরিবহণ ব্যবস্থাকে নিরবিচ্ছিন্নভাবে গড়ে তোলা সম্ভব হয়নি। পদ্মা সেতুর মাধ্যমে মোংলা ও পায়রা সমুদ্রবন্দরের সাথে সংযোগ ব্যবস্থা উন্নয়নের মাধ্যমে দেশি-বিদেশি কাঁচামাল আমদানি এবং শিল্প কারখানাতে পৌঁছানো সহজতর হবে। উৎপাদিত পণ্যদ্রব্য সমূহও গুদামজাতকরণ, দেশীয় বাজারে বিপনন ও বন্টন এবং আন্তর্জাতিক বাজারে পৌঁছানোর জন্য এ সেতু ইতিবাচক ভূমিকা পালন করবে। দেশের সকল অংশের কাঁচামালের ব্যবহার নিশ্চিতকরণ কিংবা শ্রমিকের কর্মসংস্থান সৃষ্টির লক্ষ্যে শিল্প স্থাপনে বিকেন্দ্রীকরণ প্রয়োজন। ২০ টি জেলার ক্ষেত্রে এরূপ সুযোগ ও ব্যবস্থা সম্প্রসারণের অনুকূল পরিবেশ সৃষ্টি করতে পদ্মা সেতু যথেষ্ঠ ভূমিকা পালন করবে। অন্যান্য জেলায় বিদ্যমান শিল্পসমূহ ও নতুন নতুন শিল্পের জন্য কাঁচামাল সরবরাহ এবং উৎপাদিত পণ্যের বন্টন ও বাজার সম্প্রসারণ দ্রুততর করে শিল্প স্থাপনে এ সেতু ব্যাপক ভূমিকা রাখবে। ( লেখক: সহযোগী অধ্যাপক, ভূগোল ও পরিবেশ, সরকারি মাইকেল মধুসূদন কলেজ)

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

সর্বশেষ

পিঠে ছুরিবিদ্ধ খোকন নিজেই গাড়ি ভাড়া করে আসেন যশোর হাসপাতালে

নিজস্ব প্রতিবেদক : পিঠে বিদ্ধ হওয়া ছুরি নিয়ে নিজেই যশোর জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসা নিতে এসেছেন...

নায়কদের নামে কোরবানির গরু, আপত্তি জানালেন ওমর সানি

কল্যাণ ডেস্ক : আগামী ১০ জুলাই পবিত্র ঈদুল আজহা। মুসলিম সম্প্রদায় এই ঈদে পশু কোরবানির...

এশিয়ার বাইরের উইকেটের যে কারণে অসহায় মোস্তাফিজ

ক্রীড়া ডেস্ক : মোস্তাফিজুর রহমানের বোলিং দেখে ক্যারিয়ারের শুরুতে অনেকে তাকে বলতেন, 'জোর বল করা...

নতুন ২৭১৬ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান এমপিওভুক্ত

কল্যাণ ডেস্ক : শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের উভয় বিভাগের আওতায় আরও ২ হাজার ৭১৬টি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান এমপিওভুক্ত করার...

নওয়াপাড়া বন্দরে অবৈধ তালিকায় ৬০ ঘাট

অবৈধভাবে গড়ে উঠা ঘাটের কারণে কমছে নদীর নাব্যতা ৫ বছরে অর্ধশত জাহাজ ডুবিতে ক্ষতিগ্রস্ত...

মণিরামপুরে জমজমাট কোরবানির পশু হাট

আব্দুল্লাহ সোহান, মণিরামপুর : দক্ষিণবঙ্গের অন্যতম হাট মণিরামপুরের গরু-ছাগলের হাট। প্রতি শনি ও মঙ্গলবার এখানে...