Thursday, June 30, 2022

শুভ বড়দিন: মানবপ্রেম ও মানব সেবাই হোক আজকের প্রত্যয়

জেমস রহিম রানা: আজ ২৫ ডিসেম্বর, শুভ বড়দিন। খ্রিস্টান ধর্মাবলম্বীদের সবচাইতে বড় ধর্মীয় উৎসব। এই দিনে কুমারী মরিয়মের (মরিয়ম আ.) গর্ভে জন্মগ্রহণ করেন খ্রিস্টধর্মের প্রবর্তক যিশুখ্রিস্ট (ঈসা আ.)। খ্রিস্ট ধর্মাবলম্বীরা বিশ্বাস করেন, পৃথিবীতে শান্তির ললিত বাণী ছড়িয়ে দিতে এবং মানবজাতিকে সত্য ও ন্যায়ের পথে পরিচালিত করার জন্য এই ধরাধামে আগমন ঘটেছিল মহান যিশুর। তিনি প্রচার করেন সৃষ্টিকর্তার অপার মহিমা। খ্রিস্টানদের বিশ্বাস অনুসারে, ডিসেম্বরের ২৫ তারিখের ঠিক নয় মাস আগে মেরির গর্ভে প্রবেশ করেন যিশু। সম্ভবত, এই হিসাব অনুসারেই ২৫ ডিসেম্বর তারিখটিকে যিশুর জন্ম তারিখ ধরা হয়।

যিশু খ্রিষ্টের জন্মোৎসবকে বাংলায় বড়দিন নামকরণ প্রসঙ্গে রবীন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়ের ভাইস চ্যান্সেলর অধ্যাপক ড. বিশ্বজিৎ ঘোষ বলেন, মর্যাদার দিক থেকে এটি একটি বড়দিন। যিশু যেহেতু বিশাল জনগোষ্ঠীর জন্য ধর্ম ও দর্শন দিয়ে গেছেন, বিশ্বব্যাপী বিশাল অংশের মানুষ তার দেয়া ধর্ম ও দর্শনের অনুসারী। যিনি এত বড় ধর্ম ও দর্শন দিলেন ২৫ ডিসেম্বর তার জন্মদিন। সে কারণেই এটিকে বড়দিন হিসেবে বিবেচনা করে খ্রিস্টান সম্প্রদায়ের মানুষ।

বিখ্যাত লেখক হোমার স্মিথ তার ম্যান অ্যান্ড হিজ গডস গ্রন্থে লেখেন, ২৫ ডিসেম্বরের এই স্থানীয় উৎসব গ্রিক সৌর উৎসব ‘হেলিয়া’র সঙ্গে মিশিয়ে রয়েছে। ডিসেম্বরের ২১-২২ তারিখে সূর্যের উত্তরায়ণ শুরু হয়, ঠাণ্ডায় জমে যাওয়া ইউরোপের মানুষের নিকট বছরের কঠিনতম সময়ের অবসান ঘটে, বাকি শীতটা পার করিয়ে দেয়া যাবে এই স্বস্তি হতেই শীতের উৎসব শুরু হয়েছিল” যা বড়দিনের মাধ্যমে নবরূপ লাভ করে।

খ্রিস্টধর্ম মতে, যিশু খ্রিস্ট এই পুণ্যময় দিনে ফিলিস্তিনের পশ্চিম তীরে বেথলেহেমে জন্মগ্রহণ করেন। তাঁর অনুসারীরা মনে করেন যে, দুই সহস্রাধিক বছর পূর্বে এই পৃথিবী যখন তমসাচ্ছন্ন ছিল, তখনই মহামতি যিশু আলোর দিশারী হয়ে পথ দেখিয়েছেন মানবজাতিকে। অত্যন্ত দীনবেশে, একটি গো-শালায় জন্মগ্রহণ করেন তিনি। আজীবন দীনবেশে জীবনাচরণ করে তিনি দুঃখী দরিদ্র মানুষের পক্ষে এবং সত্য ও ন্যায় প্রতিষ্ঠায় কাজ করে গেছেন ।

বড়দিন খ্রিস্টীয় ধর্মানুষ্ঠান হওয়া সত্ত্বেও, বিশ্বময় একাধিক অ-খ্রিস্টান সম্প্রদায়ও বড়দিন উৎসব পালন করে। বড়দিন উদযাপনে উপহার দেয়া, সংগীত, বড়দিনের কার্ড বিনিময়, গির্জায় ধর্মোপাসনা, ভোজ, এবং বড়দিনের বৃক্ষ, আলোকসজ্জা, যিশুর জন্মদৃশ্যসহ হলি সমন্বিত এক বিশেষ ধরনের সাজসজ্জার আয়োজন করা হয়।
জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম তার কবিতায় মহান যিশুর সেই দারিদ্র্যের সেই দীনতার কথা উল্লেখ করে বলেন, হে দারিদ্র্য, তুমি মোরে করেছ মহান। তুমি মোরে দানিয়াছ খ্রিস্টের সম্মান।

বলার অপেক্ষা রাখে না যে, খ্রিস্টধর্মের মধ্যে প্রকাশিত হয়েছে গভীর ভালোবাসা। ঈশ্বর ও ভালোবাসা মহান যিশুর কর্মকাণ্ডের জন্য পরিপূরক হয়ে উঠেছে। বিশ্বের কোটি কোটি খ্রিস্টান ধর্মানুসারীর নিকট যিশু হলেন ঈশ্বরপুত্র। মাত্র ৩৩ বছর বয়সে তিনি ক্রুশবিদ্ধ হন। কিন্তু ক্রুশে বিদ্ধ অবস্থাতেও তিনি ছিলেন ক্ষমাশীলতায় উদ্ভাসিত। এটিও অত্যন্ত তাৎপর্যপূর্ণ যে, যে সাতটি বাণী ক্রুশবিদ্ধ অবস্থায় মহাত্মা যিশু উচ্চারণ করেছিলেন, তার প্রথম কথাটিই হল ক্ষমা। জীবনাচরণে তিনি প্রেম, সেবা ও সৌহার্দ্যের প্রতীক হয়ে উঠেছিলেন। যিশুর ধর্ম-কর্ম-জীবন যুগ যুগ ধরে পৃথিবীর বিপুল সংখ্যক মানুষকে অন্ধকার হতে আলোর পথে পরিচালিত করেছে, অসত্য হতে সত্য পথের দিশা দিয়েছে যা আজও প্রবহমান। আমরা জানি, সকল ধর্মের মৌলিক সত্য ও সারসত্য হল মানবকল্যাণ। খ্রিষ্টধর্মও তার ব্যতিক্রম নয়। বর্তমানে সারা পৃথিবীতে প্রায় সোয়া দুই শতাধিক কোটি মানুষ খ্রিষ্টধর্মের অনুসারী। বাংলাদেশে রয়েছে সকল ধর্মের-সম্প্রদায়ের মানুষের অপূর্ব সহাবস্থান। যদিও প্রায় ১৭ কোটি জনসংখ্যার এই দেশে খ্রিষ্টধর্মাবলম্বীদের সংখ্যা খুব বেশি নয়। তবে এই উপমহাদেশে খ্রিষ্টান সমপ্রদায়ের ইতিহাস চারশত বছরের অধিক। বাংলাদেশে খ্রিস্টান সম্প্রদায় সংখ্যায় কম হলেও তাদের শান্তিপূর্ণ সহ-অবস্খান আমাদের জন্য দৃষ্টান্ত। এদেশে পতুর্গীজদের আগমনের পরপরই খ্রিস্টান সম্প্রদায়ের বসবাস শুরু হয়। যশোরের শিমুলিয়া, বেনিয়ালী, নাভারণ, ঝিকরগাছা, গদখালি, মণিরামপুর, কেশবপুর, নওয়াপাড়া, রাজঘাট, খুলনার খালিশপুর, দৌলতপুর, বটিয়াঘাটার বাজুয়া, পাইকগাছা, সাতক্ষীরার তালা, বরিশালের সাগরদি, গৌরনদী, বাকেরগঞ্জ, পাদ্রী শিবপুর, দেশান্তরকাঠি, পটুয়াখালীর মাটিভাঙ্গা, ঢাকার নাগরী, তুমিলিয়া, ভাদুন, মিরপুর, চট্টগ্রামের ফিরিঙ্গীবাজার, পাথরঘাটা, এনায়েত বাজার, জামালখান, আনোয়ারা দেয়াংপাহাড়সহ দেশের বিভিন্ন স্থানে তাদের বসতিসহ বড় বড় শিক্ষা-সংস্কৃতির কেন্দ্র রয়েছে। বিশেষ করে, দেখার বিষয় যে, যেখানে খ্রিস্টান সম্প্রদায় তাদের বসতি ও গীর্জা গড়ে তুলেছে, সেখানে তারা ন্যুনতমপক্ষে একটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান গড়ে তুলেছে। যে প্রতিষ্ঠানগুলো দেশের শিক্ষা প্রসারে ব্যাপক ভূমিকা রেখে যাচ্ছে।

বিশ্বের অধিকাংশ রাষ্ট্রেই বড়দিন একটি প্রধান ধর্মীয় উৎসব এবং সরকারি ছুটির দিন হিসেবে পালিত হয়। তবে চীন (হংকং ও ম্যাকাও বাদে), জাপান, সৌদি আরব, আলজেরিয়া, থাইল্যান্ড, নেপাল, ইরান, তুরস্ক ও উত্তর কোরিয়ার মতো কয়েকটি উল্লেখযোগ্য দেশে বড়দিন সরকারি ছুটির দিন হিসেবে পালিত হয় না।
সাংস্কৃতিক ও জাতীয় ঐতিহ্যগত পার্থক্যের কারণে, দেশ ভেদে বড়দিন উৎসব উদযাপনের রূপটিও ভিন্ন হয়ে থাকে। জাপান ও কোরিয়ার মতো দেশে খ্রিষ্টানদের সংখ্যা আনুপাতিকভাবে কম হলেও বড়দিন এদের একটি জনপ্রিয় উৎসব। বড়দিন উপলক্ষে এসব দেশে উপহার প্রদান, সাজসজ্জা, ও বড়দিনের বৃক্ষের মতো বড়দিনের ধর্মনিরপেক্ষ দিকগুলো গৃহীত হয়।

বিশ্বব্যাপী খ্রিস্টান সম্প্রদায় নানাভাবে বড়দিন উদযাপন করে থাকে। গির্জার উপাসনায় যোগ দেয়া সর্বাধিক গুরুত্বপূর্ণ ও জনপ্রিয় প্রথা বলে মনে করেন তারা। বড়দিন উৎসব পর্বের অন্যতম অঙ্গ হল গৃহসজ্জা ও উপহার আদান-প্রদান। কোনো কোনো খ্রিষ্টীয় সম্প্রদায়ে ছোটো ছেলে-মেয়েদের দ্বারা খ্রিষ্টের জন্মসংক্রান্ত নাটক অভিনয় করানো হয়। আবার খ্রিস্টানদের কেউ কেউ তাদের গৃহে পুতুল সাজিয়ে খ্রিস্টের জন্মদৃশ্যের ছোটো প্রদর্শনীও করে থাকেন।

২৫ ডিসেম্বর অধিকাংশ দেশে, প্রতি বছর বড়দিন পালিত হলেও রাশিয়া, জর্জিয়া, মিশর, আর্মেনিয়া, ইউক্রেন ও সার্বিয়ার মতো কয়েকটি ইস্টার্ন ন্যাশানাল চার্চ ৭ জানুয়ারি তারিখে বড়দিন পালন করে থাকে।
বড়দিনে দেশের সব গীর্জায় ধর্মপ্রাণ খ্রিস্টানসম্প্রদায় প্রার্থনা ও মানবের কল্যাণ কামনায় নিজেদের আত্মনিয়োগ করবেন। বড়দিনের বড় মাহাত্ম্য হতে হবে অসাম্প্রদায়িক চেতনায় মানবপ্রেম ও মানবসেবায় ব্রত হওয়া। আজকের এ শুভদিনে খ্রিষ্টান ধর্মাবলম্বীদের জন্য রইল প্রীতি-শুভেচ্ছা। শুভ বড়দিন।
শুভ বড়দিন এলো কিভাবে

বাইবেলে যিশুর জন্ম তারিখের কোনও উল্লেখ না থাকলেও, প্রতি বছর ২৫ ডিসেম্বর দিনটি যিশুর জন্মদিন হিসেবেই পালন করা হয়। ইতিহাস বলে ২৪ ডিসেম্বর রাতে বেথেলহেমের এক গোশালায় কুমারী মা মেরীর কোলে জন্ম হয় যিশুর। বলা হয় বিশ্ব থেকে হিংসা ভেদাভেদ মুছে ফেলতেই জন্ম হয় তাঁর। এমনকী অনেকেই যিশুকে সূর্যের সন্তানও মনে করেন। তবে প্রথম কবে বড়দিন পালন করা হয়েছিল সেই নিয়ে দ্বিমত রয়েছে। যিশুর জন্মধরেই খ্রিস্টাব্দের হিসেব করা হয়। কিš‘ অনেকেই মনে করেন, তার একবছর আগে জন্মেছিলেন যিশু। তবে অনুমান, ৩৩৬ খ্রিস্টাব্দে প্রথম বড়দিন পালন করা হয়, ক্যাথলিক রাজা কনস্ট্যানটাইনের আমলে। এর কয়েক বছর পর পোপ জুলিয়াস ঘোষণা করেন ২৫ ডিসেম্বর উদযাপন হবে বড়দিন হিসেবে। বড়দিন ঘিরে দ্বিমত রয়েছে জুলিয়ান ও গ্রেগরিয়ান দিনপঞ্জিতেও। অনেক অর্থোডক্স ও কপ্টিক চার্চ এখনো গ্রেগরিয়ান ক্যালেন্ডারের বদলে জুলিয়ান দিনপঞ্জি অনুসারে ৭ জানুয়ারি বড়দিন পালন করে।

প্রাচীন রোমানরা ছিল প্রকৃতির পূজারি। তাই অনেকেই ভাবেন এই রোমান প্যাগনরাও যাতে উৎসবে মেতে উঠতে পারেন সেই কথা ভেবেই ২৫ ডিসেম্বর পালন করা হয় বড়দিন। কিন্তু এই তথ্যের স্বীকৃতি দেয় না ইতিহাস। ইতিহাস বলে, খ্রিস্টানরা প্যাগন ধর্মকে বিশেষ গুরুত্ব দিতে চায়নি। বরং সবসময়ই একটু দূরত্বে থাকার চেষ্টা করেছে।

আবার রোমান পঞ্জিকা অনুসারে, ২৫ মার্চ মেরী জানতে পারেন তিনি সন্তান সম্ভবা। সেইদিনই আবার ক্রুশবিদ্ধ করে যিশুকে হত্যা করা হয়। এর থেকে ৯ মাস পরই আসে ২৫ ডিসেম্বর। হিসেব মেলানো খুব একটা কঠিন নয়।

কেন খ্রিসমাস পালন করা হয়
ভারতবর্ষে প্রথম ক্রিসমাস পালন করা হয় ১৬৬৮ সালে। জব চার্ণক প্রথম বড়দিন পালন শুরু করেছিলেন বলে শোনা যায়। সূর্যের উত্তরায়ণ শেষ হয়ে শুরু হয় দক্ষিণায়ন। এদিন থেকে বেলা একটু একটু করে বড় হয়। সেই সঙ্গে শীতের প্রকোপও কমতে শুরু করে। এছাড়াও বিশ্বাস এই দিনেই যাবতীয় দুঃখ থেকে মুক্তি পেয়েছিল বিশ্ব। যে কারণে সবাই একে অপরকে উপহার দিয়ে আনন্দের সঙ্গে দিনটি পালন করেন। বিশ্বের অধিকাংশ দেশে ২৫ ডিসেম্বর বড়দিন পালন করা হলেও ব্যতিক্রম রাশিয়া, জর্জিয়া, মিশর, আর্মেনিয়া। জুলিয়ান ক্যালেন্ডার অনুসারে ৭ জানুয়ারি এখানে বড়দিন পালন করা হয়। প্রায় ২০০০ বছর আগে পৃথিবীর মানুষকে মুক্তি ও কল্যাণের পথ দেখিয়েছিলেন যিশু। বড়দিনে তাই খ্রিসমাস ক্যারল, মোমবাতি, উপহারে তাঁকেই স্মরণ করে খ্রিষ্ট ধর্মাবলম্বীরা।

☆ লেখক : গণমাধ্যমকর্মী ও জাতীয় পরিচালক, রূহানী চার্চ বাংলাদেশ ট্রাস্ট, যশোর।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

সর্বশেষ

ষড়যন্ত্রের কারণে পদ্মা সেতু নির্মাণে দুই বছর দেরি হয়েছে : প্রধানমন্ত্রী

কল্যাণ ডেস্ক: দেশি-বিদেশি নানা ষড়যন্ত্রের কারণে পদ্মা সেতু নির্মাণে দুই বছর দেরি হয়েছে বলে...

কালীগঞ্জের ব্যবসায়ী মফিজুর খুন পঙ্গু হাসপাতালের আব্দুর রউফের বিরুদ্ধে এবার আদালতে মামলা

থানায় দায়ের করা মামলার তদন্ত প্রতিবেদনের কপি আদালতে জমা দেয়ার আদেশ লাবুয়াল হক রিপন: ঝিনাইদহের...

যশোর পৌরসভার ৭ নম্বর ওয়ার্ড : বিএনপির কমিটি গঠন নিয়ে নয়-ছয়ের অভিযোগ

নিজস্ব প্রতিবেদক: যশোর পৌসভার ৭ নম্বর ওয়ার্ড বিএনপির কমিটি গঠন নিয়ে নয়-ছয়ের অভিযোগ উঠেছে।...

নতুনরূপে ধরা দিচ্ছেন ক্যাটরিনা

বিনোদন ডেস্ক: গত বছরের ৯ ডিসেম্বর ভিকি কৌশলকে বিয়ে করে জীবনের দ্বিতীয় ইনিংস শুরু...

‘প্লিজ আমার অপরাধ ক্ষমা করে দিন’

বিনোদন ডেস্ক: অভিনয়ে নিয়মিত সাদিয়া জাহান প্রভা। নিয়মিত সাামজিক যোগাযোগ মাধ্যম ইনস্টগ্রামেও। প্রায় ইনস্টগ্রাম...

গ্রামীণফোনের সিম বিক্রি নিষিদ্ধ

কল্যাণ ডেস্ক : মানসম্মত সেবা (ভয়েস কল ও ইন্টারনেট) দিতে না পারায় দেশের শীর্ষ মোবাইল...