শৈলকুপায় সন্ত্রাসী হামলায় যুবলীগ কর্মীর মৃত্যু

Jhinaidah

ঝিনাইদহ প্রতিনিধি: ঝিনাইদহ জেলার শৈলকুপা উপজেলায় যুবলীগ কর্মী স্বপন শেখকে প্রকাশ্যে অস্ত্রধারী সন্ত্রাসীদের সশস্ত্র হামলায় গুরুতর আহত হওয়ার ১৪ দিন পর শুক্রবার ভোরে মারা গেছেন। তিনি চিকিৎসাধীন অবস্থায় বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয় হাসপাতালে ভর্তি ছিলেন।

তার এই মৃত্যুর এলাকায় জানাজানি হয়ে গেলে শৈলকুপা পৌরসভা এলাকায় তাৎক্ষণিক অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়। মৃত স্বপন ছিলেন শ্রমিক নেতা ও বর্তমানে যুবলীগের রাজনীতির সাথে যুক্ত বলে তার পরিবার জানিয়েছে। নিহত স্বপন শেখ (৩৫) শৈলকুপা উপজেলার কবিরপুর গ্রামের বাসিন্দা।

গত ১৭ ডিসেম্বর সন্ধ্যায় শৈলকুপা উপজেলা হাসপাতালের সামনে চায়ের দোকানে স্বপন (৩৫) ও রাব্বি (৩০) বসে ছিলেন এ সময় সংঘবদ্ধ ও শহরের চিহ্নিত একটি সন্ত্রাসী দল রামদা, চাইনিজ কুড়াল, ডাসাসহ দেশীয় অস্ত্র-শস্ত্র নিয়ে তাদের ওপর হামলা চালায়। এক পর্যায়ে স্বপন দৌড়ে শৈলকুপা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের জরুরী বিভাগ ও করিডোরে ঢুকে পড়লে সেখানে তাকে এলোপাতাড়ি কুপিয়ে মুমূর্ষ অবস্থায় ফেলে যায় তারা।
গুরুতর অবস্থায় স্বপনকে প্রথমে শৈলকুপা হাসপাতালে পরে কুষ্টিয়া মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে নেয়া হয়। অবস্থার আরো অবনতি হলে ঢাকায় বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয় হাসপাতালে রেফার করেন চিকিৎসক। সেখানে ১৪ দিন আইসিইউতে থাকার পর শুক্রবার ভোর ৫টার দিকে তার মৃত্যু হয়।
ওই হামলার পর ১৮ ডিসেম্বর স্বপনের চাচা ফরিদুল ইসলাম ৩৩ জনের নামে শৈলকুপা থানায় একটি হত্যা প্রচেষ্টার মামলা দায়ের করেন।

শৈলকুপা থানার ওসি রফিকুল ইসলাম বলেন, আহত স্বপন ঢাকায় চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা গেছে। আগের মামলাটি হত্যা মামলায় রূপান্তরিত হবে। পরিস্থিতি শান্ত রাখতে শহরে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে বলেও জানান তিনি।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে