Thursday, June 30, 2022

সংবাদপত্রের পাতা থেকে

সাজেদ রহমান : ১২ ডিসেম্বর যুগান্তর পত্রিকায় সেকেন্ড লিড ছিল যশোরের খবর। অনিল ভট্রচার্যের পাঠানো সংবাদটির শিরোনাম ছিল ‘যশোরের সভায় অস্থায়ী প্রেসিডেন্টের ঘোষণা’ বাংলাদেশে সাম্প্রদায়িক দল নিষিদ্ধ হবে, শরণার্থী জমি সম্পর্কে নির্দেশ।’ বিশেষ প্রতিনিধি অনিল ভট্টচার্য লেখেন-‘বাংলাদেশ সরকারের অস্থায়ী প্রেসিডেন্ট সৈয়দ নজরুল ইসলাম আজ এখানে এক বিরাট জনসভায় ঘোষণা করেন, তার সরকার ধর্মনিরপেক্ষ, গণতান্ত্রিক এবং সামাজতান্ত্রিক সরকার হবে। অস্থায়ী প্রেসিডেন্ট মুক্ত যশোরে তার প্রথম বক্তৃতায় বলেন, ২৫ মার্চের পর যারা বাস্তুত্যাগীদের জমি-দোকানপাট দখল করেছেন, তাদের সে সব প্রকৃত মালিকদের ফিরিয়ে দিতে হবে। স্বেচ্ছায় ফিরিয়ে দিলে শাস্তি কম হবে। অন্যথায় মুক্তি বাহিনী এগুলো দখল নিয়ে মালিকদের ফিরিয়ে দেবে।

এই জনসভায় প্রধানমন্ত্রী তাজউদ্দিন আহমেদ বিশে^র অন্যান্য রাষ্ট্রগুলিকে বাংলাদেশ রাষ্ট্রকে স্বীকার করে নেয়ার জন্য আবেদন জানান। তিনি দুঃখ করে বলেন, আমেরিকা সমেত কয়েকটি রাষ্ট্র নিজেদের স্বার্থে এখনও পশ্চিম পাকিস্তানকে সাহায্য করছে। তাজউদ্দিন আহমেদ বলেন, বাংলাদেশের পররাষ্ট্রনীতি হবে স্বাধীন জোটনিরপেক্ষতা। ভারতের সঙ্গে বাংলাদেশের মৈত্রীর সর্ম্পক হবে একটি স্থায়ী সম্পর্ক।

বাংলাদেশ সরকার স্বীকৃত হবার পর দুই নেতার এই প্রথম বক্তৃতায় বহু গুরুত্বপূর্ণ ঘোষণা করা হয়। দুই নেতা যশোর রোড দিয়ে বাংলাদেশে প্রবেশ করার পর তুমুলভাবে অভিনন্দিত হন। পথে জনসভায় জনতা ‘জয়বাংলা’ শেখ মুজিবুর রহমান, জিন্দাবাদ, বাংলাদেশ ভারত মৈত্রী জিন্দাবাদ ধ্বনিতে মুখর হয়ে উঠে। ঝিকরগাছায় দুই নেতাকে এক রকম জোর করে নামানো হয় এবং এখানে তারা এক পথ সভায় বক্তৃতা করেন।

দুপুরে যশোর শহরের জনসভায় পৌঁছালে বিরাট জনতা জয়ধ্বনিতে ফেটে পড়েন। সভাপতিত্ব করেন যশোর আওয়ামীলীগের সভাপতি সোহরাব হোসেন। কয়েকজন বিশিষ্ট আওয়ামীলীগ নেতা উপস্থিত ছিলেন। কোরাণ এবং গীতা পাঠের পর অনুষ্ঠান শুরু হয়।

অস্থায়ী প্রেসিডেন্ট সৈয়দ নজরুল ইসলাম প্রথমে বাংলাদেশের মানুষকে অভিনন্দন জানিয়ে ঘোষণা করেন বাঙালি দেখিয়েছে যে, তারা লড়াই করতে জানে।

মুক্তিবাহিনীকে অভিনন্দন:
মুক্তিবাহিনীকে অভিনন্দন জানিয়ে তিনি বলেন, মুক্তি বাহিনীর রক্তের সঙ্গে ভারতীয় জোওয়ানদের রক্ত মিশে যে সম্পর্ক গড়ে উঠেছে তা স্থায়ী সম্পর্ক হবে। ভারতের সঙ্গে বাংলাদেশের সম্পর্ক হবে পারস্পারিক সার্বভৌম রক্ষা এবং দুই দেশের মৈত্রী ও শ্রদ্ধার সম্পর্ক। এর মধ্যে ভুল বোঝাবুঝির কোন সম্পর্ক নেই। ভারতের বিরুদ্ধে যুদ্ধ আমাদের বিরুদ্ধে যুদ্ধ। কোন দালাল যদি ভুল প্রচার করতে চান, তবে বাংলাদেশ সরকার তার সহ্য করবে না।
অস্থায়ী প্রেসিডেন্ট বলেন, বাংলাদেশ হবে ধর্মনিরপেক্ষ সরকার। প্রত্যেকের ধর্মীয় মত অনুসরণের স্বাধীনতা থাকবে। কিন্তু সরকারে সাথে ধর্মের কোন সম্পর্ক থাকবে না। কোন সাম্প্রদায়িক দল থাকবে না এবং বাংলাদেশে মুসলিম লীগ, নেজামী ইসলাম, পাকিস্তান ডেমোক্রেটিক পার্টি ও জামায়াতে ইসলাম নিষিদ্ধ হবে। সরকারি কর্মচারিদের সম্পর্কে তিনি বলেন, যারা পালিয়ে গিয়েছিলেন তারা এবং যে সরকারি কর্মচারিরা কোন অত্যাচার করেনি তারা নির্ভয়ে কাজে যোগ দিতে পারেন। কিন্তু যারা অত্যাচার করেছিলেন তাদের সম্পর্কে অনুসন্ধান করে প্রয়োজনীয় শাস্তির ব্যবস্থা হবে। যে সব ব্যবসায়ী দোকান পাট ছেড়ে গিয়েছিলেন, তাদের দোকান পাট খোলবার জন্য তিনি অনুরোধ করেছেন। যারা ২৫ মার্চের পর জোর করে দোকান পাট ছিনিয়ে নিয়েছিল, তারা যদি স্বেচ্ছায় দোকান পাট মালিকদের ফিরিয়ে দেন তবে বিচারের পর তাদের কম শাস্তি দেয়া হবে। অন্যথায় বিপর্যয় হবে। স্কুল কলেজের যে সব শিক্ষকরা পাকিস্তানের দালালি করেছেন তারা বাদে আর সাবাইকে কাজে যোগ দিতে অনুরোধ করেছেন। দালালরা যদি স্বেচ্ছায় আত্মসমপর্ণ করেন তবে বিচার করে কম শাস্তি দেয়া যেতে পারে। কিন্তু এখনও যারা দালালী করছে তারা শাস্তি পাবেই। যেসব চাষী বাস্তুত্যাগীদের জমি জোর করে দখল করেছেন তাদের আজ থেকেই জেলা প্রশাসকের কাছে রিপোর্ট করতে হবে। এইসব জমি মালিকদের ফিরিয়ে দেয়া হবেই। তবে জমিতে যদি চাষ করে থাকেন এবং স্বেচ্ছায় যদি সেই জমি সমপর্ণ করেন তবে বর্গাদারদের মতো অর্থেক শস্য পাবেন। যদি তা না করেন তবে মুক্তি বাহিনী ওই সব জমি দখল করে মালিকদে দেবে। বাংলাদেশে মানুষকে মনে রাখতে হবে যুদ্ধকালীন অবস্থায় সরকার অনেক কিছু করবেন এবং আবার সোনার বাংলা গড়ে তুলবেন। আবার বাংলাদেশের মসজিদে আজান, মন্দিরে কাঁসার ঘন্টা বাজবে।
বিষাদের ছায়া:

প্রধানমন্ত্রী তাজউদ্দিন আহমেদ প্রারম্ভে মুক্তি সংগ্রামে শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন করে বলেন, বাংলাদেশ যখন স্বাধীন হতে চলেছে তখন সকলেরই মনে বিষাদের ছায়া। তার কারণ বঙ্গবন্ধুকে আজও আমরা পায়নি। তিনি এখন পশ্চিম পাকিস্তানে বন্দি। বঙ্গবন্ধুকে মুক্ত করার একমাত্র পথ হচ্ছে প্রতিটি পাকিস্তানিকে জীবিত গ্রেফতার করা। এই কাজ করতে পারলে আমরা বলতে পারবো বঙ্গবন্ধুকে মুক্তি দিয়ে ওদের ফিরিয়ে নিতে।
বাংলাদেশে আইন ও শৃঙ্খলা বজায় রাখার জন্য আবেদন জানিয়ে তাজউদ্দিন আহমেদ বলেন, কেউ যেন স্বহস্তে আইন গ্রহণ করবেন না। দালালদের নিশ্চয়ই শায়েস্তা করা হবে। কিন্তু দালালদের যেন মুক্তি বাহিনী কিংবা মিত্র বাহিনীর কাছে সমপর্ণ করা হয়। নিজেরা হত্যা করবেন না। সকলকে মনে রাখতে হবে বাংলাদেশ সরকার সভ্য সরকার হবে।

ভারতবর্ষের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করে তিনি বলেন, স্বাধীনতা সংগ্রামের শুরু থেকেই ভারত নৈতিক সমর্থন দিয়ে আসছে। শুধু তাই নয়, যে এক কোটি ভাই বোন পশ্চিম পাকিস্তানিদের অত্যাচারে দেশ ত্যাগ করেছেন ভারত তাদের আপন করে আশ্রয় দিয়েছেন। তিনি বাংলাদেশের কাহিনী প্রকাশের জন্য আন্তর্জাতিক সাংবাদিকদের ধন্যবাদ জানাচ্ছেন। আর আবেদন করেছেন, আর যারা এখনও হত্যকারীদের সমর্থন করছেন, তারা যেন নবজাতক বাংলাদেশ রাষ্ট্রকে গ্রহণ করেন। যদি না করেন তবে যেভাবে নিরস্ত্র বাঙালি জাতি তাদের দেয়া উন্নত মারণাস্ত্র সত্বেও স্বাধীনতা ছিনিয়ে নিয়েছে তেমনিভাবে বাংলাদেশ বিশ্ব দরবারে স্থান নেবে। বাংলাদেশের পররাষ্ট্রনীতি হবে স্বাধীন জোটনিরপেক্ষ শান্তির নীতি।

‘ঢাকার নাম মুজিবনগর হতে পারে’ শিরোনামে ১২ ডিসেম্বর আর একটি রিপোর্ট প্রকাশ হয় যুগান্তরে। এটিও লিখেছেন অনিল ভট্টচার্য। তিনি লেখেন-‘ঢাকায় বাংলাদেশ সরকার প্রতিষ্ঠার পর যুদ্ধাপরাধীদের বিচারের জন্য একটি ট্রাইব্যুানাল গঠিত হবে বলে গণ-প্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের অস্থায়ী প্রেসিডেন্ট সৈয়দ নজরুল ইসলাম আজ সাংবাদিকদের কাছে ঘোষণা করেন।

অস্থায়ী প্রেসিডেন্ট সেই সঙ্গে ঘোষণা করেন যে, বাংলাদেশের জনসাধারণের জন্য শিঘ্রই সংবিধান রচিত হবে। স্থানীয় ইন্সপেকশান বাংলোতে ভারতীয় বিদেশী সাংবাদিকদের কাছে এক ঘরোয়া আলোচনায় তিনি বলেন, জন্ম থেকে আজ পর্যন্ত পাকিস্তান কোন সংবিধান তৈরি করতে পারেনি। কিন্তু আমরা সংবিধান রচনা করছি যাতে তা দ্রুত চালু করা যায়।

তিনি জানান, শূন্য আসনগুলোর জন্য উপ নির্বাচন হতে পারে।
বাংলাদেশ সরকারের প্রধানমন্ত্রী তাজউদ্দিন আহমেদ সাংবাদিকদের বলেন যে, যদিও কোন সরকারি সিদ্ধান্ত হয়নি। তবে ঢাকা শহরের নাম পরিবর্তন করে মুজিবনগর রাখা হতে পারে। অস্থায়ী প্রেসিডেন্ট এক প্রশ্নের উত্তরে জানান যে, বাংলাদেশ সরকারের সদন কার্যালয় যশোরে সরিয়ে আনা হবে না। মাত্র কয়েক দিন আগে যশোর শত্রুু মুক্ত হয়েছে এবং একজন ডেপুটি কমিশনারের অধীনে যশোরে বেসামরিক শাসন ব্যবস্থা মাত্র তিন দিন হলো চালু হয়েছে।

এদিকে সদামুক্ত যশোর, শ্রীহট্ট ও নোয়াখালী জেলা এবং মেহেরপুর, টাঙ্গাইল ও সাতক্ষীরা অঞ্চলও বেসামরিক শাসন ব্যবস্থা চালু হয়েছে।
-জ্যেষ্ঠ সাংবাদিক

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

সর্বশেষ

ষড়যন্ত্রের কারণে পদ্মা সেতু নির্মাণে দুই বছর দেরি হয়েছে : প্রধানমন্ত্রী

কল্যাণ ডেস্ক: দেশি-বিদেশি নানা ষড়যন্ত্রের কারণে পদ্মা সেতু নির্মাণে দুই বছর দেরি হয়েছে বলে...

কালীগঞ্জের ব্যবসায়ী মফিজুর খুন পঙ্গু হাসপাতালের আব্দুর রউফের বিরুদ্ধে এবার আদালতে মামলা

থানায় দায়ের করা মামলার তদন্ত প্রতিবেদনের কপি আদালতে জমা দেয়ার আদেশ লাবুয়াল হক রিপন: ঝিনাইদহের...

যশোর পৌরসভার ৭ নম্বর ওয়ার্ড : বিএনপির কমিটি গঠন নিয়ে নয়-ছয়ের অভিযোগ

নিজস্ব প্রতিবেদক: যশোর পৌসভার ৭ নম্বর ওয়ার্ড বিএনপির কমিটি গঠন নিয়ে নয়-ছয়ের অভিযোগ উঠেছে।...

নতুনরূপে ধরা দিচ্ছেন ক্যাটরিনা

বিনোদন ডেস্ক: গত বছরের ৯ ডিসেম্বর ভিকি কৌশলকে বিয়ে করে জীবনের দ্বিতীয় ইনিংস শুরু...

‘প্লিজ আমার অপরাধ ক্ষমা করে দিন’

বিনোদন ডেস্ক: অভিনয়ে নিয়মিত সাদিয়া জাহান প্রভা। নিয়মিত সাামজিক যোগাযোগ মাধ্যম ইনস্টগ্রামেও। প্রায় ইনস্টগ্রাম...

গ্রামীণফোনের সিম বিক্রি নিষিদ্ধ

কল্যাণ ডেস্ক : মানসম্মত সেবা (ভয়েস কল ও ইন্টারনেট) দিতে না পারায় দেশের শীর্ষ মোবাইল...