`সন্ত্রাসের কোন জায়গা ইউনিয়নে হবে না’

দেশের প্রথম ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন তৃতীয় লিঙ্গের নজরুল ইসলাম ঋতু।

শাহরিয়ার আলম সোহাগ, ঝিনাইদহ : দেশের প্রথম ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন তৃতীয় লিঙ্গের নজরুল ইসলাম ঋতু। ঝিনাইদহের কালীগঞ্জ উপজেলার ৬নং ত্রিলোচনপুর ইউনিয়ন নির্বাচনে আনারস প্রতিকের স্বতন্ত্র প্রার্থী তৃতীয় লিঙ্গের নজরুল ইসলাম ঋতুর কাছে পরাজিত হয়েছে নৌকা প্রতিকের নজরুল ইসলাম সানা। তৃতীয় লিঙ্গের এই প্রার্থীর জয়ে নিজ গ্রাম দাদপুরের মানুষ অনেক খুশি।
দৈনিক কল্যাণের সাথে একান্ত সাক্ষাৎকারে কথা বলেন ৬নং ত্রিলোচনপুর ইউনিয়নের নবনির্বাচিত চেয়ারম্যান তৃতীয় লিঙ্গের নজরুল ইসলাম ঋতু। তিনি বলেন, সারাদেশের মধ্যে তিনিই প্রথম ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান। সাধারণ মানুষ তার পিছনে ছিল বলেই তিনি নির্বাচিত হয়েছেন। মানুষ তাকে ভালোবেসে ভোটে দাঁড় করিয়েছিল। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা যদি স্বীকৃতি না দিতো তাহলে ভোটে দাঁড়াতে পারতেন না। একমাত্র ইউনিয়নবাসীর জন্যই আজ এই জয় সম্ভব হয়েছে। মানুষের ভালোবাসায় আমি বিপুল ভোটে জয়যুক্ত হয়েছি।
প্রধানমন্ত্রীর সুদৃষ্টি কামনা করে তৃতীয় লিঙ্গের ঋতু বলেন, তিনি ইউনিয়নবাসীর জন্য অনেক কিছু করতে চান। কিন্তু প্রধানমন্ত্রীর সুদৃষ্টি ছাড়া সেটি সম্ভব না। তিনি প্রত্যাশা করেন প্রধানমন্ত্রী যেন তার দিকে সুদৃষ্টি দেন। প্রধানমন্ত্রী সুনসজর দিলে তিনি অনেক কিছু করতে পারবেন।
নবনির্বাচিত এই চেয়ারম্যান বলেন, ভোটের আগে দলাদলি ছিল। ভোটের পর কোন দল নেই। সবকিছু ভূলে গিয়ে একসাথে কাজ করবেন। আওয়ামী লীগ, বিএনপি, জাতীয় পার্টিসহ সব দলই এখানে আছে। কিন্তু এখন তিনি কোন দল বোঝেন না। জনগণ ভোট দিয়েছে এখন আমরা সবাই একই দল। অনেক ত্যাগী আওয়ামী লীগ কর্মী আছে যাদের কোন খোঁজ নেওয়া হয় না। ত্যাগী নেতাকর্মীদের সাথে নিয়ে তিনি নতুনভাবে পথচলা শুরু করবেন।দেশের প্রথম ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন তৃতীয় লিঙ্গের নজরুল ইসলাম ঋতু।
নজরুল ইসলাম ঋতু বলেন, তার নিজের কোন কিছু চাওয়া-পাওয়ার নেই। জনগণই তার সব। কারণ তার কোন ছেলে-মেয়ে বা কোন সংসার নেই। তার কোন লোভ-লালসা নেই। জনগণের জন্যই সবকিছু করতে চান। জনগণের সকল নাগরিক সুবিধা তিনি বুঝিয়ে দিবেন বলে জানান।
ইউনিয়নবাসীর উদ্দেশ্যে তিনি বলেন, রাস্তাঘাটের বেহাল অবস্থা আছে ইউনিয়নের মধ্যে। তিনি সেগুলো দ্রুত মেরামত করার কাজ করবেন। বয়স্কভাতা, বিধবা ভাতাসহ সরকারি সবকিছু সুষ্ঠুভাবে বন্ঠন করার অঙ্গীকার করেন তিনি। জনগণের প্রাপ্যটুকু তিনি বুঝিয়ে দিবেন। জনগণের কাছ থেকে তিনি কোন টাকা-পয়সা নিবেন না। সব সময় সত্যের পথে থাকবো। কোন অন্যায়কে প্রশ্রয় দিবেন না। নির্বাচন শেষ হয়ে গেছে। কোন প্রকার মারামারি-হাঙ্গামা এই ইউনিয়নে চলবে না। দাঙ্গা-হাঙ্গামা কেউ বাঁধালে সে দলেরই হোক কেন তাকে আইনের আওতায় আনা হবে। সন্ত্রাসের কোন জায়গা ইউনিয়নে হবে না।
বিজয়ী চেয়ারম্যান ঋতু উপজেলার ত্রিলোচনপুর ইউনিয়নের দাদপুর গ্রামের মৃত আব্দুল কাদেরের সন্তান। তার আরো তিন ভাই ও তিন বোন রয়েছে। তিন ভাই ঢাকাতে থাকেন এবং বোনদের বিয়ে হয়ে গেছে। জন্মের পর তৃতীয় লিঙ্গ প্রকাশ পাওয়ায় ৭ বছর বয়সে তাকে গ্রাম ছেড়ে ঢাকা চলে যেতে হয়। সামান্য লেখাপড়া করলেও সামাজিক নানা প্রতিবন্ধকতায় প্রাথমিকের গন্ডি পেরোনো হয়নি। ছোটবেলা থেকেই ঢাকার ডেমরা থানাতে তার দলের গুরুমার কাছেই বেড়ে উঠা। এখন তার বয়স ৪৩ বছর। গুরুমার পরের দ্বায়িত্বটা এখন সে দেখভাল করেন।

এলাকাবাসী জানায়, ঢাকাতে থাকলেও পরিবারের টানে প্রায়ই বাড়িতে আসেন। তার কষ্টার্জিত জমানো অর্থ দিয়ে বিগত প্রায় ১৫ বছর ধরে জন্মস্থান দাদপুর গ্রামসহ ইউনিয়নবাসীর উন্নয়নে আর্থিক সহযোগীতা করছেন। এ পর্যন্ত তার এলাকায় দুইটি মসজিদ করেছেন। এছাড়া বিভিন্ন মন্দিরের উন্নয়নে দান করেছেন অর্থ। এলাকার কেউ অসুস্থ বা কন্যাদায়গ্রস্থ হয়ে তার কাছে গিয়ে কখনো বিমুখ হতে হয়নি।
কালীগঞ্জ উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা আলমগীর হোসেন জানান, ২৮ নভেম্বর রোববার তৃতীয় ধাপের ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে আনারস প্রতিকের প্রার্থী নজরুল ইসলাম ঋতু বেসরকারিভাবে চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন। আনারস প্রতিক নিয়ে তৃতীয় লিঙ্গের নজরুল ইসলাম ঋতু পেয়েছেন ৯৫৫৭ ভোট। আর তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বি নৌকা প্রতিকের নজরুল ইসলাম সানা পেয়েছেন ৪৫২৯ ভোট।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে