সামনে এবার সাদা পোশাকের চ্যালেঞ্জ বাংলাদেশের

সামনে এবার সাদা পোশাকের চ্যালেঞ্জ

ক্রীড়া ডেস্ক : কঠিন সময় অতিক্রম করা বাংলাদেশ এবার সাদা পোশাকের চ্যালেঞ্জের মুখোমুখি। রাত পোহালেই পাকিস্তানের বিপক্ষে দুই টেস্ট ম্যাচ সিরিজের প্রথমটি খেলতে নামবে বাংলাদেশ।

শুক্রবার (২৬ নভেম্বর) চট্টগ্রামের জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামে টেস্টের প্রথম দিনের খেলা শুরু হওয়ার কথা সকাল ১০টায়। সব মিলিয়ে চার মাসের বেশি সময় পর সাদা পোশাকের ক্রিকেট খেলতে নামছে বাংলাদেশ। টাইগাররা সর্বশেষ টেস্ট খেলেছিলেন এবছরের জুলাইয়ে। জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে হারারেতে ওই টেস্টে ২২০ রানে জিতেছিল বাংলাদেশ। সর্বশেষ ১৩ টেস্টে বাংলাদেশের সেটা দ্বিতীয় জয়। অন্য জয়টিও এই জিম্বাবুয়ের বিপক্ষেই। ২০২০ সালে দেশের মাটিতে আফ্রিকান দলটিকে হারিয়েছিল টাইগাররা।

সর্বশেষ ১৩ টেস্টে দুই জয়, সেটিও জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে। পরিসংখ্যানই বলে দিচ্ছে টেস্টে বাংলাদেশের সাম্প্রতিক পারফরম্যান্স কতোটা নাজুক। বর্তমান দলের অবস্থাও সুবিধার নয়। বিশ্বকাপে নাস্তানাবুদ হওয়ার পর ঘরের মাঠে পাকিস্তানের বিপক্ষে কদিন আগে টি-টোয়েন্টি সিরিজে হোয়াইটওয়াশ হয়েছে বাংলাদেশ। যাতে ক্রিকেটারদের আত্মবিশ্বাস নিশ্চয় তলানিতে। ইনজুরি সমস্যাও ভোগাচ্ছে বাংলাদেশকে।

বিশ্বকাপে চোট পাওয়া দেশসেরা ক্রিকেটার সাকিব আল হাসান চট্টগ্রাম টেস্ট খেলতে পারছেন না। আঙ্গুলের ইনজুরির কারণে তামিম ইকবাল পুরো সিরিজ থেকেই ছিটকে গেছেন। কদিন আগে ইনজুরিতে পড়েছেন সম্প্রতি সময়ে বাংলাদেশের সবচেয়ে সফল বোলার তাসকিন আহমেদ। অভিজ্ঞ মাহমুদউল্লাহ অবসর নিয়েছেন। অন্যদিকে পাকিস্তান দলের আত্মবিশ্বাসের কমতি নেই।

সেমিফাইনাল থেকে বিদায় নিলেও বিশ্বকাপে দুর্দান্ত খেলেছে পাকিস্তান। তারপর বাংলাদেশে এসে টি-টোয়েন্টি সিরিজেও দারুণ খেলেছে বাবর আজমের দল। দলটির পেস আক্রমণ ও টপ অর্ডার আছে দারুণ ফর্মে। ইয়াছির শাহর অনুপস্থিতিতে স্পিন বিভাগটাও দারুণ সামলাচ্ছেন নুমান আলী।সামনে এবার সাদা পোশাকের চ্যালেঞ্জ

তবে বাংলাদেশ অধিনায়ক মুমিনুল হক সৌরভ এসব নিয়ে মাথা না ঘামিয়ে নিজেদের সামর্থ কাজে লাগানোর চিন্তাই শুধু করছেন। মুমিনুল ম্যাচ পূর্ব সংবাদ সম্মেলনে বলেন, ‘টেস্ট ক্রিকেট পাঁচ দিনের খেলা। এখানে ১৫টি সেশনের খেলা। যে দল প্রতিটি সেশনই জিতবে তারাই ম্যাচ জিতবে। কেউ যদি ৪ দিনের ১২টি সেশন জেতে এবং পঞ্চম দিনের তিনটি সেশন না জিততে পারে তবুও সেই দল কিন্তু ম্যাচ জিততে পারবে না। এখানে একেকজনের আত্মবিশ্বাস একেক রকম। আমি আমার দর নিয়ে আত্মবিশ্বাসী। প্রতিপক্ষ নিয়ে অতো চিন্তা না করে আমি আমার পরিকল্পনায় অটুট থাকার চেষ্টা করব।’

তবে অভিজ্ঞ সাকিব, তামিম, মাহমুদউল্লাহদের ছাড়া কাজটা যে কঠিন হবে সেটাও স্বীকার করলেন মুমিনুল, ‘নতুন টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপ শুরু হচ্ছে। আমাদের তরুণ দল, সিনিয়র ক্রিকেটারদের পাচ্ছি না। অবশ্যই এটা চ্যালেঞ্জিং হবে। আর আপনারা জানেন ওয়ানডে ও টি-টোয়েন্টি চেয়ে টেস্ট ক্রিকেটটা অন্য রকম। এখানে সব সময়ই অভিজ্ঞদের প্রয়োজন হয়। অতএব অধিনায়ক হিসেবে বলব, অবশ্যই চ্যালেঞ্জিং হবে।’

ওদিকে ফর্মে থাকা পাকিস্তান নিশ্চয় চাইবে টেস্টে সিরিজেও ফর্মটা ধরে রাখতে। ম্যাচ পূর্ব সংবাদ সম্মেলনে পাকিস্তানি অধিনায়ক বাবর আজম বললেনও সেটি, ‘আমাদের অভিজ্ঞ বোলাররা কাজে লাগবে। আর এশিয়ায় তো স্পিনারদের জন্য সহায়তা সবসময়ই মেলে। আমাদের সেরা মানের স্পিনার আছে এবং অনেক খেলে আসছে ওরা। পাকিস্তান দলের সবাই অনেক দিন ধরে খেলছে ও পারফর্ম করছে। এটা আমাদের জন্য বাড়তি সুবিধা যে অনেকে ফর্মে আছে এবং সেই ফর্ম আমরা টেস্ট সিরিজে ধরে রাখতে চাই।’

বেশ কয়েকজন সিনিয়র ক্রিকেটার না পেলেও এই বাংলাদেশের যে ভালো ক্রিকেট খেলার সমার্থ আছে সেটাও মনে করিয়ে দিতে চাইলেন বাবর, ‘ তাদের (বাংলাদেশ) কখনো হালকাভাবে দেখার সুযোগ নেই। আসলে কোনো দলকেই হালকাভাবে দেখার সুযোগ নেই। (বাংলাদেশ) নিয়মিত দলটা না পেলেও তাদের তরুণেরা তো আছে। তারা কিন্তু এই কন্ডিশনেই খেলে উঠে এসেছে। এখানকার কন্ডিশনটা কঠিন। মানিয়ে নিতে একটু সময় লাগে। উইকেটে গিয়ে সময় কাটাতে হয়। আমার মতে, অবশ্যই কঠিন পরীক্ষায় ফেলতে পারে।’

টেস্টের আগের দিন দুই পেসার খালেদ আহমেদ ও শহিদুল ইসলামকে স্কোয়াডে ডেকেছে বাংলাদেশ। তরুণ মাহমুদুল হাসান জয় ও রেজাউর রহমান রেজা প্রথমবার টেস্ট দলে ডাক পেয়েছেন। শোনা যাচ্ছে, কাল একাদশেও দেখা যেতে পারে শহিদুল ও জয়কে। সম্প্রতি শেষ হওয়া জাতীয় ক্রিকেট লিগে দারুণ পারফর্ম করেছেন দুজন। অন্য দিকে পাকিস্তান তাদের ১২ সদস্যের দল অনেক আগেই ঘোষণা করে দিয়েছে। সেখান থেকে তরুণ ওপেনার আবদুল্লাহ শাফিন ছাড়া বাকিদের মাঠে নামা মোটামুটি নিশ্চিতই।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে