Sunday, May 29, 2022

হত্যাকান্ড পরিস্থিতি উদ্বেগজনক

দৈনিক কল্যণে ১৮ ডিসেম্বর বিভিন্ন স্থানে ৫টি হত্যার খবর প্রকাশিত হয়েছে। এর মধ্যে ৩টি ঘটনা যশোরের, একটি ঝিনাইদহের ও অন্যটি সাতক্ষীরার। যশোরের ঘটনাগুলোর মধ্যে যশোর শহরের পুরাতন কসবার রহিমা খাতুনের লাশ উদ্ধার করা হয় ১৬ ডিসেম্বর। লাশটি লেপ দিয়ে মোড়ানো ছিল। রহিমার ছেলে টুটুলের অভিযোগ অনুযায়ী তার মার দ্বিতীয় স্বামী এই হত্যাকা- ঘটিয়েছে। স্বামী পালিয়ে গেছে। এই শহরের আর একটি হত্যার ঘটনা ঘটেছে হুশতলায়। ১৭ ডিসেম্বর সেখানকার ভাংড়ি শ্রমিক রাকিব সরদারকে (২৮) ছুরিকাঘাতে হত্যা করে দুর্বৃত্তরা। যশোরের ঝিকরগাছা উপজেলার হাড়িয়াদেয়াড়া গ্রামের আবদুল হাকিম জমাজমির দ্বন্দ্বে আপন ভাই-ভাতিজার হাতে নিহত হয়েছে ১৭ ডিসেম্বর। হত্যাকা-ের অন্য দুটি ঘটনা একটি ঝিনাইদহের ও অন্যটি সাতক্ষীরার। ঝিনাইদহের ঘটনাটি ঘটে ইউপি নির্বাচনকে কেন্দ্র করে। ১৬ ডিসেম্বর পলাশ মুন্সি (৫০) নামে ফুটবল প্রতীকের প্রার্থী প্রতিপক্ষের পিটুনীতে নিহত হন। সাতক্ষীরার আশাশুনি উপজেলার শ্রীউলা গ্রামের চিংড়ী ঘের থেকে ১৫ ডিসেম্বর গোলাম রসুল সরদারের লাশ উদ্ধার করা হয়।

বিভিন্ন স্থানে হত্যাকান্ডের ঘটনা দিনকে দিন উদ্বেগজনকভাবে বেড়েই চলেছে। হত্যার শিকার হতভাগ্যদের স্বজনদের সান্ত¦না পাবার মতো কোনো দৃষ্টান্ত সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ স্থাপন করতে পারছে না। এসব ঘটনা গণমাধ্যমে প্রকাশ হয়েছে বলে জনগণ জানতে পেরেছে। এর বাইরে সারা দেশে আরো কোনো হত্যাকা- ঘটেছে কিনা তা সবার অলক্ষে থেকে গেছে।

এভাবে প্রতিনিয়ত হত্যা জনিত কারণে লাশের মিছিল বাড়ছে। দেশটা যেন মৃত্যু উপত্যাকায় পরিণত হতে যাচ্ছে। এ সব ঘটনা আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতির চরম অবনতির খন্ড চিত্রমাত্র। প্রতিনিয়ত দুর্বৃত্তদের দাপটের সাথে ঘোরাঘুরি ও তাদের দুর্বিনীত আচরণে জনগণ দারুণভাবে উদ্বিগ্ন। আতঙ্কে কাটছে তাদের প্রতিটি মুহূর্ত। দুর্বৃত্তের হাতে যারা জীবন হারাচ্ছেন তারা হত্যা পরবর্তী কিছু জানতে পারছে না। কিন্তু তাদের স্বজনদের অবস্থাটা কি হয় তা অনুভূতিশীল সব মানুষই জানেন। স্বজন হারানোর ব্যথা নিয়ে দীর্ঘ সময় তাদের কাটাতে হয়। অনেক সংসারে আয়ের লোকটি হারিয়ে যাওয়ায় তার রেখে যাওয়া পোষ্যরা অকুল সাগরে পড়ে। এতে সমাজে অসহায় মানুষের সংখ্যা বাড়ছে। সমাজের ভারসাম্য নষ্ট হচ্ছে দারুণভাবে। বিভিন্ন গণমাধ্যমে এ সব ঘটনার খবর প্রকাশিত হলেও আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী কর্তৃপক্ষের যেন সেদিকে কোনো ভ্রুক্ষেপ নেই। পত্র-পত্রিকার ভাষ্য অনুযায়ী দুর্বৃত্তরা অধরা থেকেই যাচ্ছে। অথচ কোনো একটা বিয়োগান্ত ঘটনা ঘটে গেলেই পুলিশ আত্মপক্ষ সমর্থন করে নানা রকম বক্তব্য বিবৃতি দিয়ে দায় এড়িয়ে যাচ্ছে। এতে আর যাই হোক জনগণের নিরাপত্তা নিশ্চিত হবে না।

নাগরিকের জানমালের নিরাপত্তা পুলিশের ওপর বর্তেছে। ‘পুলিশ জনগণের বন্ধু’ এ কথা কেবল স্লোগানে সীবদ্ধ না রেখে বাস্তবে তার দৃষ্টান্ত স্থাপন সবার কাম্য।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

সর্বশেষ

খুলনা-কলকাতা রুটে বন্ধন এক্সপ্রেস আজ ফের চালু

নিজস্ব প্রতিবেদক: আজ রোববার থেকে ফের কলকাতা-খুলনা রুটে ‘বন্ধন এক্সপ্রেস’ রেল চলাচল শুরু হবে।...

রসুনের গায়ে আগুন!

সপ্তাহের ব্যবধানে কেজিতে বেড়েছে ৫০ টাকা ক্ষুব্ধ ক্রেতা, স্বস্তিতে নেই কিছু বিক্রেতাও জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক: এবার ভোক্তার...

আনারসের পাতা থেকে সুতা সৃজনশীল কাজে পৃষ্ঠপোষকতা প্রয়োজন

অপার সম্ভাবনার দেশ বাংলাদেশ। কিন্তু হলে কি হবে। সম্ভবনা থাকলেই তো আর আপনা আপনি...

দড়াটানার ভৈরব পাড়ে মাদকসেবীদের নিরাপদ আঁখড়া

নিজস্ব প্রতিবেদক: যশোর শহরের ঘোপ জেলরোড কুইন্স হাসপাতালের পূর্ব পাশে ভৈরব নদের পাড়ে মাদকসেবীদের...

আজকের মধ্যে অবৈধ ক্লিনিক-ডায়াগনস্টিক বন্ধ না হলে ব্যবস্থা

কল্যাণ ডেস্ক: দেশে অনিবন্ধিত ও নবায়নহীন অবস্থায় পরিচালিত অবৈধ বেসরকারি ক্লিনিক ও ডায়াগনস্টিক সেন্টার...

নিরপেক্ষ সরকারের কাছে ক্ষমতা হস্তান্তর করতে হবে : মির্জা ফখরুল

ঝিনাইদহ প্রতিনিধি: বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, দেশে আওয়ামী লীগের অধীনে আর...